bangla news

বিন্নাঘাস প্রকল্পের প্রসারে গুরুত্বারোপ থাই রাষ্ট্রদূতের

​সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৯-১৮ ৭:২২:০১ পিএম
থাই রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে মতবিনিময় করেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

থাই রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে মতবিনিময় করেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম: পাহাড়ধসে প্রাণহানি রোধ, সিলট্রেশনের মাধ্যমে পলি জমে নালা ভরাট বন্ধে চট্টগ্রামে বিন্নাঘাস প্রকল্প প্রসারের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন থাই রাষ্ট্রদূত অরুনরং ফথং হামফ্রেস।

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) নগরের টাইগার পাসে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের বিন্নাঘাস প্রকল্প পরিদর্শন ও মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ গুরুত্বারোপ করেন।

থাই রাষ্ট্রদূত বিন্নাঘাস প্রকল্পে পৌঁছালে চসিকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা স্বাগত জানিয়ে প্রকল্প কার্যালয়ে নিয়ে যান। চসিকের প্রকৌশল বিভাগের কর্মকর্তারা বিন্নাঘাসের চাষাবাদ ও গবেষণার ওপর তথ্যচিত্র প্রদর্শন করেন।   

এ সময় মেয়র ছাড়াও চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামসুদ্দোহা, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমদ, চসিকের প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে সদ্য যোগদানকারী লে. কর্নেল সোহেল আহমদ, সিটি মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম এবং অনাররি কনসালটেন্ট আমীর হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী, সানভিরাজ হাসান এবং দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি পিচায়া অ্যাডসাকুল ও পলিটিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট মো. সানভিরাজ হাসান নিলয় উপস্থিত ছিলেন।

মেয়র পাহাড়, বাঁধ, রাস্তার ক্ষয়রোধে বিন্নাঘাস প্রকল্পে থাইল্যান্ডের সহযোগিতা এবং থাই রাজকন্যা শিরিনধরন বাটালী হিলের মিঠা পাহাড়ের পাদদেশে বিন্নাঘাস রোপণের কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন।

এ প্রসঙ্গে মেয়র নগরের পরিচ্ছন্নতা, ডোর-টু-ডোর প্রকল্প, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও নগর অবকাঠামো উন্নয়ন সম্পর্কে রাষ্ট্রদূতকে ধারণা দেন।

মেয়র চট্টগ্রামকে একটি বাসযোগ্য, নিরাপদ, পরিবেশবান্ধব নগর হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে নানা পরিকল্পনা ও সবুজায়ন কার্যক্রম রাষ্ট্রদূতের সামনে তুলে ধরেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯
এআর/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-09-18 19:22:01