ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ আষাঢ় ১৪২৬, ১৮ জুন ২০১৯
bangla news

চমেক হাসপাতালের সামনের ৩ ফার্মেসিকে জরিমানা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-১২ ৬:১৯:০৯ পিএম
চমেক হাসপাতালের সামনে ওষুধের দোকানে অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান

চমেক হাসপাতালের সামনে ওষুধের দোকানে অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান

চট্টগ্রাম: নগরের কেবি ফজলুল কাদের সড়কের ইপিক মার্কেটের তিনটি ওষুধের দোকানকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। লাইসেন্সের শর্ত অমান্য, অনুমোদনহীন বিদেশি ওষুধ সংরক্ষণ ও বিক্রি, ক্রেতাদের রশিদ না দেওয়া, নির্ধারিত তাপমাত্রায় ওষুধ সংরক্ষণ না করায় এ জরিমানা করা হয়।  

বুধবার (১২ জুন) চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন। অভিযানে ঔষধ প্রশাসন, চট্টগ্রামের তত্ত্বাবধায়ক হোসাইন মোহাম্মদ ইমরানসহ সিএমপির সদস্যরা অংশ নেন।

মো. আলী হাসান বাংলানিউজকে জানান, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে ড্রাগ অ্যাক্ট ১৯৪০ এর আওতায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছি। ইপিক মার্কেটের গাজী ফার্মেসি ও সার্জিক্যাল, সাথী মেডিকেল হল এবং ডায়মন্ড ফার্মেসী ওষুধ প্রশাসন কর্তৃক ইস্য করা লাইসেন্সের শর্ত অমান্য করে ব্যবসা পরিচালনা করছিল। তারা অনুমোদনহীন বিদেশি ওষুধ সংরক্ষণ ও বিক্রি করছিলেন।

সাথী মেডিকেল হলে লাইসেন্সের মেয়াদ ছিল না। তিনটি ফার্মেসিতেই দেখা যায়, ওষুধ বিক্রির পর কোনো ক্যাশ মেমো দিচ্ছে না। এছাড়াও সঠিক তাপমাত্রায় মেডিসিনগুলো ফ্রিজে সংরক্ষণ করার নির্দেশনা থাকলেও ফার্মেসিগুলো ফ্রিজ ছাড়াই বাইরে ওষুধ সংরক্ষণ করছিল।

এসব অপরাধের কারণে গাজী ফার্মেসি ও সার্জিক্যালকে ১৫ হাজার টাকা, সাথী মেডিকেল হলকে ২০ হাজার টাকা ও ডায়মন্ড ফার্মেসিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অনুমোদনহীন ওষুধগুলো জব্দক্রমে বিনষ্ট করা হয় এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ না করার ব্যাপারে সতর্ক করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১২ ঘণ্টা, জুন ১২, ২০১৯
এআর/টিসি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-06-12 18:19:09