ঢাকা, বুধবার, ১১ বৈশাখ ১৪২৬, ২৪ এপ্রিল ২০১৯
bangla news

যে থানায় কেউ ফেরেনি খালি মুখে!

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-১৪ ৯:৩৭:৪৯ পিএম
পহেলা বৈশাখ সেবাপ্রত্যাশীদের আপ্যায়ন করেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

পহেলা বৈশাখ সেবাপ্রত্যাশীদের আপ্যায়ন করেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

চট্টগ্রাম: হারানো, নিখোঁজসহ সাধারণ ডায়েরি (জিডি), হামলার অভিযোগ, মামলা নানা কাজে যারাই এসেছেন থানায় কেউ ফেরেনি খালি মুখে। গ্রামবাংলার আবহমানকালের ঐতিহ্যবাহী পিঠাপুলি, মুড়ি-মুড়কি, মোয়া, নারকেলের নাড়ু দিয়ে আপ্যায়ন করানো হয়েছে সবাইকে।

নগরের কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিনের উদ্যোগে ব্যতিক্রমী এ আয়োজন মুগ্ধ করেছে সেবাপ্রত্যাশীদের।

থানায় বর্ষবরণের ব্যতিক্রমী আয়োজন দেখে মুগ্ধ জিডি করতে আসা কামরুন নাহার। তিনি বলেন, একটি কথা প্রচলিত ছিল থানার কাছ দিয়ে কানাও হাঁটে না। এ কথা মিথ্যে প্রমাণ করেছে কোতোয়ালী থানা। ছোট্ট আয়োজন কিন্তু মনটা ভরে গেল।

থানার কর্মকর্তার টেবিলে সাজানো ছিল মুড়ি মুড়কির পসরা।

নগরের ডিসি হিলে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে মোবাইল হারিয়ে থানায় জিডি (নম্বর ১০৩১) করতে যান ৩৫১ সিরাজউদ্দৌলা সড়কের এইচএল মল্লিক ভবনের অধীর চৌধুরীর ছেলে অজয় চৌধুরী। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, থানা বলতে ভয় পেতাম। আজ বিপদে পড়ে এসে দেখলাম জনবান্ধব পরিবেশ। খুবই ভালো লাগলো একজন নাগরিক হিসেবে।  

ওসি মহসিন বাংলানিউজকে বলেন, জনবান্ধব পুলিশিং তথা জনসাধারণের মধ্যে থানা ভীতি কাটাতে নববর্ষে ব্যতিক্রমী এ উদ্যোগ নিয়েছি। ছুটির দিন থাকায় সেবাপ্রত্যাশী ছিলেন কম। তবুও শতাধিক সেবাপ্রত্যাশীকে আমরা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে পেরেছি। সকাল ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত আমরা কাউকে খালিমুখে যেতে দিইনি।

তিনি জানান, সেবাপ্রত্যাশীদের আপ্যায়নের পাশাপাশি থানার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পান্তা ইলিশ খাওয়ানো হয়েছে।   

বাংলাদেশ সময়: ২০০৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৪, ২০১৯
এআর/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   চট্টগ্রাম পুলিশ
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14