[x]
[x]
ঢাকা, শনিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৫, ২০ অক্টোবর ২০১৮
bangla news

পাঁচ বছরে ভূমি কর বেড়েছে ৭৮ শতাংশ!

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৯-১৭ ৯:৪১:০৩ এএম
সীতাকুণ্ড ভূমি অফিস।  ছবি: উজ্জ্বল ধর

সীতাকুণ্ড ভূমি অফিস। ছবি: উজ্জ্বল ধর

সীতাকুণ্ড থেকে: ২০১৩-১৪ অর্থবছরে সীতাকুণ্ডে ভূমিকর আদায় হয় ৪ কোটি ২৭ লাখ টাকা। ৫ বছরে প্রায় ৭৮ শতাংশ বেড়ে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ভূমিকর আদায়ের এ পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৭ কোটি ২৫ লাখ টাকায়। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ভূমি অফিস ডিজিটালাইজেশন, জনবল বৃদ্ধি, জবাবদিহি এবং কর্মকর্তাদের আন্তরিকতার করণেই সীতাকুণ্ডে বিপুল সংখ্যক এ ভূমিকর আদায় সম্ভব হয়েছে। সরকারও পেয়েছে অতিরিক্ত রাজস্ব।

ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে সীতাকুণ্ডে ভূমিকর আদায় হয় ৪ কোটি ২৭ লাখ ৬৪ হাজার ৭৯০ টাকা। এর মধ্যে টেরিটাইল তফশিলে ৩২ লাখ ৪৭ হাজার ৬২২ টাকা, সদর তফশিলে ৮৬ লাখ ৩১ হাজার ৭২০ টাকা, কুমিরা তফশিলে ৮৯ লাখ ৩৩ হাজার ৮৯২ টাকা এবং ভাটিয়ারি তফশিলে ২ কোটি ১৯ লাখ ৫১ হাজার ৫৫৬ টাকা ভূমিকর আদায় হয়।

৭৫ লাখ টাকা বেড়ে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ভূমিকর আদায় হয় ৫ কোটি ২ লাখ ৭০ হাজার ৬৬১ টাকা। এর মধ্যে টেরিটাইল তফশিলে ৪৮ লাখ ৩২ হাজার ৩৮৪ টাকা, সদর তফশিলে ১ কোটি ১২ লাখ ৬৫ হাজার ৭৫১ টাকা, কুমিরা তফশিলে ১ কোটি ৮ লাখ ২৫ হাজার ৭৩৬ টাকা এবং ভাটিয়ারি তফশিলে ২ কোটি ৩৩ লাখ ৪৬ হাজার ৭৯০ টাকা ভূমিকর আদায় হয়।

৬৯ লাখ টাকা বেড়ে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ভূমিকর আদায় হয় ৫ কোটি ৭১ লাখ ২৩ হাজার ১৩৬ টাকা। এর মধ্যে টেরিটাইল তফশিলে ৪৫ লাখ ৫৪ হাজার ৬৭৪ টাকা, সদর তফশিলে ১ কোটি ৩১ লাখ ৭২ হাজার ৮৩৩ টাকা, কুমিরা তফশিলে ১ কোটি ৩২ লাখ ৫৪ হাজার ৩৪৮ টাকা এবং ভাটিয়ারি তফশিলে ২ কোটি ৬১ লাখ ৪১ হাজার ২৮১ টাকা ভূমিকর আদায় হয়।

রেকর্ড সংখ্যক ভূমিকর আদায় হয় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে। প্রায় দেড় কোটি টাকা বেড়ে এ অর্থবছরে ভূমিকর আদায় হয় ৭ কোটি ১৬ লাখ ৫১ হাজার ২৮৯ টাকা। এর মধ্যে টেরিটাইল তফশিলে ৬১ লাখ ৫৫ হাজার ৬৮৫ টাকা, সদর তফশিলে ২ কোটি ২৯ লাখ ৭৫ হাজার ৬৪৯ টাকা, কুমিরা তফশিলে ১ কোটি ৬৬ লাখ ৬১ হাজার ৯৯৪ টাকা এবং ভাটিয়ারি তফশিলে ২ কোটি ৫৮ লাখ ৫৭ হাজার ৯৫১ টাকা ভূমিকর আদায় হয়।

ভূমিকর আদায়ের এ ধারা অব্যাহত থাকে ২০১৭-১৮ অর্থবছরেও। ৯ কোটি টাকা বেড়ে এ অর্থবছরে ভূমিকর আদায় হয় ৭ কোটি ২৫ লাখ ৯০ হাজার ৪৩২ টাকা। এর মধ্যে টেরিটাইল তফশিলে ৬৫ লাখ ৯০ হাজার ৯০৩ টাকা, সদর তফশিলে ১ কোটি ৮৩ লাখ ৩ হাজার ৯৪০ টাকা, কুমিরা তফশিলে ১ কোটি ৬৯ লাখ ৫ হাজার ১২৭ টাকা এবং ভাটিয়ারি তফশিলে ৩ কোটি ৭ লাখ ৯০ হাজার ৪৬২ টাকা ভূমিকর আদায় হয়।

বেড়েছে মামলা নিষ্পত্তির হার

সীতাকুণ্ড ভূমি অফিসে গেলো বছরের অক্টোবর থেকে চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত ১১ মাসে জমি সংক্রান্ত ৪১০টি মামলা রুজু হয়। নিষ্পত্তি হয়েছে ২১১টি। এর মধ্যে গেলো বছরের অক্টোবরে মামলা রুজু হয় ২০টি, নিষ্পত্তি হয় ১০টি। নভেম্বরে মামলা রুজু হয় ৭৫টি, নিষ্পত্তি হয় ৪০টি। ডিসেম্বরে মামলা রুজু হয় ৪৮টি, নিষ্পত্তি হয় ২২টি।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে মামলা রুজু হয় ৩৫টি, নিষ্পত্তি হয় ২০টি। ফেব্রুয়ারিতে মামলা রুজু হয় ২৫টি, নিষ্পত্তি হয় ১২টি। মার্চে মামলা রুজু হয় ৪০টি, নিষ্পত্তি হয় ১৮টি। এপ্রিলে মামলা রুজু হয় ৪৮টি, নিষ্পত্তি হয় ২৫টি। মে’তে মামলা রুজু হয় ৩২টি, নিষ্পত্তি হয় ১৪টি। জুনে মামলা রুজু হয় ৩৬টি, নিষ্পত্তি হয় ২২টি। জুলাইয়ে মামলা রুজু হয় ২৪টি, নিষ্পত্তি হয় ১৩টি এবং আগস্টে মামলা রুজু হয় ২৭টি, নিষ্পত্তি হয় ১৫টি।

১৫ একর সরকারি জমি উদ্ধার

সরকারি খাস জমি দখল করে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে প্রায় ১৫ একর সরকারি জমি উদ্ধার করেছে ভূমি অফিস। এর মধ্যে ভাটিয়ারি তফশিলে ৮ দশমিক ২২ একর, কুমিরা তফশিলে ৩ দশমিক ৩৩ একর, টেরিটাইল তফশিলে শূন্য দশমিক ৬৯ একর এবং সদর তফশিলে ১ দশমিক ৫১ একর জমি উদ্ধার করা হয়।

সীতাকুণ্ডের সহকারী কমিশনার ভূমি মো. কামরুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, ভূমি অফিসের নিয়মিত কাজের বাইরেও আমরা কিছু কাজ করার চেষ্টা করেছি। যে কারণে রাজস্ব বৃদ্ধি, সরকারি জমি উদ্ধার, মামলা নিষ্পত্তি, ভ্রাম্যমাণ আদালতসহ নানা কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারি সেবা কোনো ধরণের ভোগান্তি ছাড়াই জনগণের দুয়ারে পৌঁছে দিতে চাই আমরা। এ জন্য ভূমি অফিসকে আরও জনবান্ধব করতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। এখন যে কেউ চাইলেই সরাসরি আমার অফিসে চলে আসতে পারেন। সেবা পেতে কোনো দুর্ভোগ হলে জানাতে পারেন। তবে এর সুফল পেতে হলে জনগণের মধ্যে নিজের কাজ নিজে করার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে।    

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮
এমআর/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   সীতাকুণ্ড
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache