[x]
[x]
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২০ নভেম্বর ২০১৮
bangla news

ছাত্রলীগ নেতাকে ইয়াবা দিয়ে ‘ফাঁসানো’র অভিযোগ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৮-০৪ ৮:৩১:০৫ এএম
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন রকিবের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান আজিজ।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন রকিবের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান আজিজ।

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা রকিব হোসাইনকে সাড়ে তিন’শ পিস ইয়াবা দিয়ে মামলায় ফাঁসানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান আজিজ। একই সাথে রকিবকে ধরে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন করার অভিযোগ তুলে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের হাটহাজারী সার্কেল এএসপি’র শাস্তি দাবি করেন তিনি।

শনিবার সকালে নগরের চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তিনি।

লিখিত বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান আজিজ বলেন, ‘গত ৩০ জুলাই রাত আটটার দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরের শিক্ষক ক্লাব থেকে আটক করে নিয়ে যায়। পরদিন দুপুর ২টার দিকে তার কাছে সাড়ে তিন’শ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করে চালান দেয়। তার বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে ভেতর থেকে আটক করা হলেও মামলার জব্দ তালিকায় সাক্ষী করা হয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডির কোন সদস্য কিংবা ক্লাবের কোন কর্মচারীকে। হাটহাজারী এলাকার পুলিশের তিনজন সোর্সকে এ মামলা সাক্ষী বানানো হয়। যারা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ক্লাবে প্রবেশের অনুমতিই রাখেন না।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, ৩০ জুলাই দুপুরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে সংঘর্ষ হয়। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েক’শ পুলিশ মোতায়েন ছিল বিভিন্ন জায়গায়। রাত পর্যন্ত পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান করছিলেন। শিক্ষক ক্লাবে পুলিশের সিনিয়র কর্মকর্তারা অবস্থান করছিলেন। রাত আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষকের সাথে দেখা করতে শিক্ষক ক্লাবে যায় রকিব। এ সময় ক্লাবের ক্যাফেটেরিয়ায় নাস্তার অর্ডার করে ব্যাডমিন্টন কোর্টে রকিব ও তার এক বন্ধু অপেক্ষা করছিলো। সেখান থেকে তাকে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের এডিশনাল এসপি’র নির্দেশে বিনা কারণে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা কেউই রকিবের কাছ থেকে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে এমন খবর পাননি।

তিনি আরও বলেন, এতো শত পুলিশের উপস্থিতিতে রকিব কেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ক্লাবে ইয়াবা বিক্রি করতে যাবে? ওই ক্লাবে তো কোন শিক্ষক ও কর্মকর্তা ছাড়া কেউ যায় না। শিক্ষক ক্লাবের ভেতর থেকে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীকে বিনা অপরাধে আটকের পর সে ক্লাবে ইয়াবা বিক্রি করছিলো বলে উল্লেখ করে মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানো সত্যি হাস্যকর ও অবিশ্বাস্য।

সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আজম নাছির উদ্দিনের কাছে দোষী পুলিশ কর্মকর্তার বিচার দাবি করেন এবং বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে রাকিব যদি দোষী হয়, তাহলে তাকে ক্রসফায়ার দিলেও আমার কোন আপত্তি নেই।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩০ ঘণ্টা, আগস্ট ০৪, ২০১৮
এসবি/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ছাত্রলীগ ইয়াবা
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache