[x]
[x]
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২ কার্তিক ১৪২৫, ১৮ অক্টোবর ২০১৮
bangla news

শাস্ত্রীয় সংগীতচর্চায় সংগীত ভবনের ৫১ বছর

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৪-১৬ ১২:১২:৩৫ পিএম
সংগীত ভবনের শিল্পীদের পরিবেশনায় সংগীতানুষ্ঠান।

সংগীত ভবনের শিল্পীদের পরিবেশনায় সংগীতানুষ্ঠান।

চট্টগ্রাম: সংগীত গুরুমুখী বিদ্যা উল্লেখ করে কিংবদন্তী সংগীতশিল্পী ওস্তাদ মিহির লালা বলেছেন, ‘সংগীত হচ্ছে সাধনার বিষয়। সংস্কৃতি চর্চা মানুষের জীবনকে আনন্দময় করে তোলে।’

সোমবার (১৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় শাস্ত্রীয় সংগীতের বাতিঘর সঙ্গীত ভবনের গৌরব ও অর্জনের একান্ন বছরপূর্তি উৎসবের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নগরের জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সঙ্গীত ভবনের ৫১ বছর পূর্তিতে সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ওস্তাদ মিহির লালা বলেন, ‘শিল্পীদের শাস্ত্রীয় সংগীতচর্চা বাড়াতে হবে। একটু পরিশ্রম করলেই সাফল্য আসবে। সংগীতে নিজের অবস্থান তৈরি হবে।

এরপর শুরু হয় সংগীত ভবনের শিল্পীদের পরিবেশনায় সংগীতানুষ্ঠান।

শাস্ত্রীয় সংগীতের জনপ্রিয় রাগ 'ইমন’ পরিবেশনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু করেন সঙ্গীত ভবনের শিক্ষার্থীরা। একে একে জনপ্রিয় বেশ কিছু রাগ, খেয়াল ও  ঠুমরি পরিবেশন করেন শিল্পীরা।

সংগীত ভবনের সম্পাদক নূরনবী মিরণ বলেন, সেই ১৯৬৬ সাল থেকে দীর্ঘ ৫১ বছর ধরে সংগীত ভবন শুদ্ধ সংগীত চর্চা করে আসছে। যেই প্রতিষ্ঠানটি চট্টগ্রামে সঙ্গীতের বাতিঘর হিসেবে পরিচিত। এই সুদীর্ঘ সময়ে সংগীতভবন থেকে শাস্ত্রীয়সহ সঙ্গীতের নানা ক্ষেত্রে অনেক গুণি ও শ্রোতাপ্রিয় শিল্পী তৈরি করেছে। শুদ্ধ সঙ্গীত চর্চায় সবাইকে সংগীত ভবনের পাশে থাকারও আহবান জানান তিনি।

অধ্যক্ষ কাবেরী সেনগুপ্তা বলেন, সংগীত ভবন শুদ্ধ সংস্কৃতিচর্চার পীঠস্থান। যেখান থেকে ৫১ বছর ধরে অনেক গুণী শিল্পী সৃষ্টি হয়েছে। সংগীত ভবনের এ ধরনের উৎসব তরুণ শিল্পীদের অনুপ্রাণিত করবে বলেও মত প্রকাশ করেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ২২১৩ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০১৮

এসবি/টিসি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa