[x]
[x]
ঢাকা, বুধবার, ২ কার্তিক ১৪২৫, ১৭ অক্টোবর ২০১৮
bangla news

নানা আয়োজনে শেষ হলো নাসিরাবাদ স্কুলের সুবর্ণ জয়ন্তী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০১-১৩ ১০:২৬:৪০ এএম
নানা আয়োজনে শেষ হলো নাসিরাবাদ স্কুলের সুবর্ণ জয়ন্তী

নানা আয়োজনে শেষ হলো নাসিরাবাদ স্কুলের সুবর্ণ জয়ন্তী

চট্টগ্রাম: স্মৃতি চারণ, অবসর প্রাপ্ত শিক্ষকদের সম্মাননা, স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন ও বিতরণ, স্কুলের সাবেক ছাত্রদের সংঙ্গীতানুষ্ঠান ও বাংলাদেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড ফিডব্যাকের সংঙ্গীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণ জয়ন্তীর মিলনমেলা।

সকাল থেকেই শুরু হয় স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান। শিক্ষকদের মধ্যে স্মৃতিচারণ করেন সুরেন্দ্র বিজয় দাশ, সাইফুল ইসলাম, রেজাউল করিম, আবু মহসিন খান, পুলকেশ বড়ুয়া, অজিত চৌধুরী, মমতাজ উদ্দিন আহমেদ খান, রশিদ উদ্দীন।

সাইফুল ইসলাম বলেন এই সুবর্ণ জয়ন্তীর মিলনমেলা শুধু শিক্ষার্থীদেরই নয়, শিক্ষকদের কাছেও সম্মানের ও গৌরবের। ছাত্ররা দেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছে দেখে আমাদের গর্বে বুক ভরে যায়।

পুলকেশ বড়–য়া  নতুনদের খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ তৈরির অনুরোধ জানান। সাবেক ছাত্রদের মধ্যে গ্রামীণফোনের সাবেক জেনারেল ম্যানেজার ১৯৮৫ ব্যাচের জাবেদুর রহমান বলেন, স্কুলের কাছে আজীবন কৃতজ্ঞ থাকবো। জ্ঞান অর্জনের প্রাথমিক সোপান এখান থেকে তৈরি হয়েছিল।

১৯৯৪ ব্যাচের হাবিবুল আলম বলেন, নাসিরাবাদ স্কুল প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে ক্রীড়া ও সংস্কৃতিতে স্কুল পর্যায়ে চট্টগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে আসছিল। ১৯৯০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত এই স্কুল সবসময় জাতীয় পর্যায়ে ক্রিকেট ও ফুটবলে অত্যান্ত গুরুত্বের সাথে অবস্থান করতো। নাসিরাবাদ স্কুল বেশ কয়েকবার স্কুল পর্যায়ে জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হয়।

স্মরণিকা  ‘অরিত্র’ এর সম্পাদক ১৯৮৪ ব্যাচের তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ম্যাগাজিনটিতে সকল সাবেক ছাত্রের নাম, ব্যাচ ও ফোন নাম্বার উল্লেখ আছে যা পরবর্তীতে যে কোন যোগাযোগ রক্ষায় সাহায্য করবে। এছাড়া ছাত্রদের বিভিন্ন ধরনের লিখনী, স্মৃতিচারণ স্থান পেয়েছে।

স্মরণিকায় সাবেক শিক্ষার্থী ও ১৯৯২ উদযাপন পরিষদে সভাপতি প্রয়াত ফয়েজ আহমেদ এবং ২০১০ উদযাপন পরিষদে সদস্য সচিব প্রয়াত মাহবুব আলী কে অত্যান্ত শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করা হয়।

পরিষদের পক্ষ থেকে আহ্বায়ক আবদুল হান্নান আকবর, সদস্য সচিব মনিরউল ইসলাম খোকা এবং প্রধান সমন্বয়কারী মামুনুর রশীদ মামুন স্কুলের সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব ছাড়াও বিভিন্ন আয়োজনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখার জন্য স্কুলের ১৯৭৭ ব্যাচের প্রাক্তন ছাত্র ইয়াছিন আলীকে কৃতজ্ঞতা জানান।

নান্দনিক মঞ্চ, প্রবেশধার ও পুরো মাঠের সাজ সজ্জায় দায়িত্বরত অ্যাডভোকেট শাহীন আফতাব রেজা চট্টগ্রামের বিখ্যাত বারকোড রেষ্টুরেন্ট, সিক্স ইভেন্টস এর কর্ণধার ১৯৯২ ব্যাচের মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, সানোয়ারা গ্রুপ, মুন স্টার পেইন্ট সহ সকল অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানকে পরিষদের পক্ষ হতে সম্মাননা ও কৃতজ্ঞতা জানান।

এসময় প্রাক্তন ছাত্র সমিতির সভাপতি ড. মাসুদ আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান জাহাঙ্গীর উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৬ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৩, ২০১৮

এমইউ/টিসি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa