ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

বাঁশখালী ১১ হত্যা

আসামীর আইনজীবী অনুপস্থিত, জেরা ৯ মার্চ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৩৪ ঘণ্টা, মার্চ ২, ২০১৪
আসামীর আইনজীবী অনুপস্থিত, জেরা ৯ মার্চ

চট্টগ্রাম: আসামীপক্ষের আইনজীবী অনুপস্থিত থাকায় চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে ১১ জনকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় জেরা হয়নি। আদালত আগামী ৯ মার্চ জেরার সময় পুননির্ধারণ করেছেন।



রোববার এ মামলায় বেঁচে যাওয়া ওই পরিবারের সদস্য ও মামলার বাদির ছোট ভাই নির্মল শীলকে চট্টগ্রামের তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ লা মংয়ের আদালতে আসামীপক্ষের আইনজীবীদের জেরা করার কথা ছিল।

চট্টগ্রাম জেলা পিপি অ্যাডভোকেট আবুল হাশেম বাংলানিউজকে বলেন, বিচারক এজলাসে ছিলেন। সাক্ষীকেও কাঠগড়ায় নেয়া হয়েছিল। কিন্তু আসামীপক্ষের আইনজীবীরা অনুপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও তারা  কেউ না আসায় বিচারক এজলাস ত্যাগ করেন।

এর আগে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি নির্মল শীল আদালতে সাক্ষ্য দেন। এসময় তাকে সংক্ষিপ্ত জেরাও করেন আসামীপক্ষের এক আইনজীবী।  

উল্লেখ্য ২০০৩ সালের ১৮ নভেম্বর রাতে বাঁশখালীর সাধনপুর ইউনিয়নের শীলপাড়ায় তেজেন্দ্র লাল শীলের বাড়িতে একই পরিবারের ১১ জনকে পুড়িয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

নির্মম খুনের শিকার ব্যক্তিরা হলেন, তেজেন্দ্র লাল শীল (৭০), তার স্ত্রী বকুল বালা শীল (৬০), ছেলে অনিল কান্তি শীল (৪২) ও তার স্ত্রী স্মৃতি রাণী শীল (৩০), তাদের মেয়ে মুনিয়া শীল (৭) ও রুমি শীল (১১), চারদিন বয়সী শিশু কার্তিক শীল, তেজেন্দ্রর ছোট ভাইয়ের মেয়ে বাবুটি শীল (২৫), প্র‍সাদী শীল (১৭), অ্যানি শীল (১৫) এবং তেজেন্দ্রর বেয়াই দেবেন্দ্র শীল (৭৫)।

এ ঘটনায় কয়েক দফা অভিযোগপত্র দাখিল, বাদির নারাজিসহ নানা নাটকীয়তার পর ২০১২ সালের ১৯ এপ্রিল ৩৮ আসামির বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখল করতে গিয়ে পরিকল্পিত হত্যাকান্ডের ধারায় অভিযোগ গঠন করেন আদালত।   এরপর আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

তবে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকায় মামলার মূল আসামী আমিনুর রহমান বিচার কার্যক্রমের বাইরে আছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪০ঘণ্টা, মার্চ ০২, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa