ঢাকা, শনিবার, ২১ মাঘ ১৪২৯, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১২ রজব ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

চট্টগ্রামে করোনায় ফিরেছে স্বস্তি, ডেঙ্গুতে আতঙ্ক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৩ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২২
চট্টগ্রামে করোনায় ফিরেছে স্বস্তি, ডেঙ্গুতে আতঙ্ক ...

চট্টগ্রাম: নগরে করোনায় স্বস্তি ফিরলেও, নতুন আতঙ্ক উঠেছে ডেঙ্গু। প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা।

অন্যদিকে ঠিক এর উল্টো চিত্র করোনার। গত এক মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত যেখানে দুই হাজার ছাড়িয়েছে সেখানে করোনা সংক্রমণ অর্ধশতকেরও কম।

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, নভেম্বর মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ৭ জন। যা গত অক্টোবর মাসে আক্রান্তের চেয়ে ১৪৬ জন বেশি। গত অক্টোবরে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ছিল এক হাজার ৮৬১ জন। চলতি নভেম্বর মাসে মোট ডেঙ্গু আক্রান্তের মধ্যে এক হাজার ৫৫৪ জন নগরের বাসিন্দা। যা চলতি মাসের মোট আক্রান্তের ৭৭ দশমিক ৪২ শতাংশ। এছাড়া বিভিন্ন উপজেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে ৪৫৩ জন। যা চলতি মাসের মোট আক্রান্তে ২২ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

এদিকে, গত একমাসে চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত হয়েছে মাত্র ৪১ জন। যা চলতি বছরের মোট আক্রান্তের দশমিক ১৫ শতাংশ। এ মাসে আক্রান্তের মধ্যে ৩১ জন নগরের এবং বাকি ১০ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। চলতি নভেম্বর মাসে মৃত্যুবরণ করেছে ২ জন। এদের মধ্যে গত ১৩ নভেম্বর একজন এবং ২৯ নভেম্বর আরও এক জনের মৃত্যুর খবর জানায় সিভিল সার্জন কার্যালয়। চলতি বছর জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে মোট আক্রান্ত ২৬ হাজার ৮৬৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছে ৩৮ জন।  

ডেঙ্গুর তথ্য বিশ্লেষণে আরও দেখা যায়, এ বছর জানুয়ারি মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে মাত্র ৯ জন। ফেব্রুয়ারিতে আক্রান্তের সংখ্যা আরও কমে দাঁড়ায় ৪ জন। মার্চ ও এপ্রিলে ডেঙ্গুতে যথাক্রমে ১ ও ৩ জন আক্রান্ত হলেও মে মাসে পাওয়া যায়নি কোনো রোগী। তবে জুন মাস থেকে আবারও বাড়তে শুরু করে আক্রান্তের সংখ্যা। এ মাসে আক্রান্ত হয় ১৯ জন। গেল জুলাই মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত বেড়ে ৬৪ জন, আগস্ট মাসে ১১৪ জন এবং সেপ্টেম্বর মাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ৬০১ জন।  

এ বছর মোট ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে ৪ হাজার ৬৮৩ জন। এর মধ্যে নগর এলাকায় আক্রান্ত হয়েছে ৩ হাজার ৫১৩ জন। যা মোট আক্রান্তের ৭৫ দশমিক ০১ শতাংশ। এছাড়া বিভিন্ন উপজেলায় ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার ১৭০ জন। যা মোট আক্রান্তের ২৪ দশমিক ৯৮ শতাংশ। এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে মৃত্যু হয়েছে ৩৩ জনের।  

চট্টগ্রামে ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা. ইলিয়াছ চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, সবার আগে সচেতনতা প্রয়োজন। বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে আরও যত্নবান হওয়া জরুরি। যেকোনো সময় ঘুমাতে গেলে অবশ্যই মশারি টাঙিয়ে ঘুমাতে হবে। আর কোনো লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।  

তিনি বলেন, চট্টগ্রামে ডেঙ্গু রোগী বেড়েছে। এ রোগ মোকাবিলায় আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য আলাদা চিকিৎসার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এছাড়া নগরের হাসপাতালগুলোতেও পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে।  

বাংলাদেশ সময়: ২০৪০ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২২
এমআর/পিডি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa