ঢাকা, শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৮ মে ২০২৪, ০৯ জিলকদ ১৪৪৫

ক্রিকেট

বিসিএলে আশরাফুলের ব্যাটে ঝড়

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০১৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২২, ২০১৮
বিসিএলে আশরাফুলের ব্যাটে ঝড় মোহাম্মদ আশরাফুল-ছবি: সংগৃহীত

প্রথমদিন বৈরি আবহাওয়ার কারণে বল মাঠেই গড়ায়নি। ফলে চারদিনের ম্যাচটি যে ড্র হবে তা অনেকটা নিশ্চিতই ছিল। কিন্তু নিষ্প্রাণ ড্র ম্যাচেও ব্যাট হাতে ঝড় তুললেন মোহাম্মদ আশরাফুল। খেললেন ৩৭ বলে ৫৪ রানের এক বিধ্বংসী ইনিংস। আসন্ন বিপিএলের আগে ব্যাট হাতে প্রস্তুতিটা ভালোভাবেই সেরে নিলেন এই তারকা ব্যাটসম্যান।

শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের ম্যাচে (বিসিএল) বগুড়ায় আগেরদিনের ৩ উইকেট হারিয়ে ১৩৬ রানের সংগ্রহ নিয়ে খেলতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭৫ রান তুলে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে দক্ষিণাঞ্চল। আগেরদিন ফিফটি তুলে নেওয়া ওপেনার ফজলে মাহমুদ আজ ব্যক্তিগত ৬৯ রানে তাইজুল ইসলামের শিকার হয়ে ফেরেন।

মাঝে এক তুষার ইমরানের ৪০ রানের ইনিংস ছাড়া বাকিদের ব্যাটে রানের হাহাকার মিলিয়ে ১৭৫ রানেই নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে দেয় আব্দুর রাজ্জাকের দল।

বল হাতে ২টি করে উইকেট নেন পূর্বাঞ্চলের ফরহাদ রেজা, আবু জায়েদ, খালেদ আহমেদ ও তাইজুল ইসলাম।

জবাবে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৫৯ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে দেয় পূর্বাঞ্চল।  

ওপেনার রনি তালুকদারের ব্যাট থেকে আসে ৩৯ বলে ৫৮ রানের ঝড়ো ইনিংস। ৪ চার ও ৩ ছক্কায় সাজানো ইনিংসটি শেষ হয় আব্দুর রাজ্জাকের বলে। এদিন ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন আশরাফুলও। ৩০ বলে করেন ফিফটি। ৩৭ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় তার ৫৪ রানের ঝড়ো ইনিংসটি শেষ হয় মেহেদি হাসানের বলে। আগের ইনিংসে তার ব্যাট থেকে এসেছিল ৩৭ রানের ইনিংস।

পূর্বাঞ্চলের মেহেদি হাসান একাই নেন ৩ উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন শফিউল ইসলাম ও আব্দুর রাজ্জাক।

২৪৭ রানের টার্গেট নিয়ে দক্ষিণাঞ্চল ব্যাট করতে নেমে দিন শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৩২ তুলতেই ম্যাচ ড্র ঘোষণা করা হয়। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৯ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন মেহেদি হাসান।  

বল হাতে ২টি করে উইকেট নেন পূর্বাঞ্চলের ফরহাদ রেজা ও আবু জায়েদ। বাকি উইকেটটি তুলে নেন তাইজুল ইসলাম।

অন্যদিকে রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত উত্তরাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলের মধ্যকার ম্যাচটিও ড্র হয়েছে। উত্তরাঞ্চলের প্রথম ইনিংসের সংগ্রহ ১৪৬ রানের জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৯৪ রান তুলে সব উইকেট হারায় মধ্যাঞ্চল। আগেরদিনের দুই ফিফটির ইনিংস খেলা ব্যাটসম্যান সাইফ-শান্ত’র পর ফিফটির দেখা পান আব্দুল মাজিদও। আর বল হাতে উত্তরাঞ্চলের সানজামুল ইসলাম একাই তুলে নেন ৬ উইকেট। ৩ উইকেট পান সাকলাইন সজিব।  

জবাবে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে উত্তরাঞ্চল ৩ উইকেট হারিয়ে ১১৩ রান তুলতেই ম্যাচ ড্র ঘোষণা করা হয়। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৭ রান আসে ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকের ব্যাট থেকে।

ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন উত্তরাঞ্চলের সানজামুল।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২১, ২০১৮
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।