ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৩ মে ২০২৪, ১৪ জিলকদ ১৪৪৫

ক্রিকেট

টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট করতে ২০ লাখ টাকা পাচ্ছে আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থাগুলো

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৯ ঘণ্টা, মার্চ ৩১, ২০২৪
টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট করতে ২০ লাখ টাকা পাচ্ছে আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থাগুলো

বিসিবির অনেকদিনের আলোচনার বিষয় আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থা। দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে এখন কিছুটা হলেও আলোর মুখ দেখেছে।

বরিশালের বিসিবি পরিচালক আলমগীর আলো অসুস্থ থাকায় এখনও ওখানে কোনো অ্যাডহক কমিটি করা হয়নি। এর বাইরে সবগুলোতেই অ্যাডহক কমিটি আছে।  

এই আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থাগুলোকে ‘টেস্ট কেইস’ হিসেবে টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট করার জন্য ২০ লাখ করে টাকা দিচ্ছে বিসিবি। এই টাকা ঠিকভাবে ব্যবহার হচ্ছে কি না সেটি পর্যবেক্ষণ করবে বিসিবি। এরপরই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।  

এ নিয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন রোববার বিসিবির এজিএম শেষে বলেন, ‘আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থা তো বিসিবিরই অংশ। এগুলোই নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়েছে। টেস্ট হিসেবে একটা টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে বলেছি, দেখার জন্য। ওই টুর্নামেন্টটা তারা চালাবে। ২০ লাখ টাকা তাদের দেওয়া হবে। এটা একটা টেস্ট কেইস যে তারা কে কীভাবে কাজ করছে। ’

দীর্ঘদিন ধরে আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার কথা বলা হলেও এসবে তেমন গতিশীলতা নেই। তবে এখন অ্যাডহক কমিটি থেকে নির্বাচন করা হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। এ নিয়ে পাঁচ তারকা হোটেলে বিসিবির এজিএমে বিশদ আলোচনা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন পাপন।

তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের একটা করে কমিটি করে দিয়েছি। আমরা যেটা করে দিয়েছি, সেটা অ্যাডহক কমিটি। এই অ্যাডহক কমিটি এখন সকলকে নিয়ে নির্বাচন করবে। নির্বাচনের মাধ্যমে একটা নির্বাচিত কমিটি লাগবে। সেই কমিটি হবে আসল আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থা। উনারা কিছু সমস্যার কথা আজকের সভায় তুলে ধরেছেন। ’ 

‘যেমন ধরেন আমরা যে টাকাটা দিই সেটা উঠাতে গেলে তাদের এতো কষ্ট করতে হয় যে প্রায় সমপরিমাণ টাকা ওখানেই শেষ হয়ে যায়। নাম্বার টু হচ্ছে ওখানে আমাদের যে কোচরা আছেন, তারা ওদের কথায়ই শুনতে চান না। তারা বলে আমরা তো বিসিবির লোক। তোমরা কারা। ওদের সঙ্গে একটা বিশাল গ্যাপ। এ জন্য টাকা কারো বাধ্যবাধকতা হবে না। সরাসরি টাকা তাদের কাছে চলে যাবে। আর যারা স্টাফ থাকবে তারা তাদের অধীনে থাকবে। তারা তো বিসিবিই। ’

আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থাগুলো এখনই বিসিবির হস্তক্ষেপ মুক্ত হচ্ছে না জানিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘কেন্দ্র হস্তক্ষেপ মুক্ত হবে না। যতদিন পর্যন্ত আমরা সন্তুষ্ট না হবো যে তারা স্বাধীনভাবে চালাতে পারবে...। আমরা একটা টেস্ট কেইস দিয়েছি যে টাকা কীভাবে খরচ হয়। অন্ধভাবে দিয়ে দেবো না, আগে দেখতে হবে। ’
 
‘সব জেলা টাকা পায় না। যাদেরটা দেখে আমরা সন্তুষ্ট যে ভালোভাবে চালাতে পারছে, তাদেরকে আমরা টাকা দিচ্ছি। কাজে এখনই যদি বলে ঢালাওভাবে যা খুশি তা-ই করতে পারবে...আমরা আগে দেখে নিই, বুঝে নিই। তারপর ঠিক করবো। তবে আমাদের উদ্দেশ্যটা হচ্ছে স্বাধীন সংস্থা হিসেবে কাজ করা। ঢাকার থেকে মনোযোগটা আমরা কমিয়ে দিচ্ছি। সেটা বিকেন্দ্রীকরণের জন্যেই। ’

বাংলাদেশ সময় : ২০৫৮ ঘণ্টা, মার্চ ৩১, ২০২৪
এমএইচবি/এএইচএস
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।