ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

ক্রিকেট

রাসেলের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে কলকাতার দারুণ জয়

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৩৮ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০২৪
রাসেলের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে কলকাতার দারুণ জয়

ব্যাট হাতে তাণ্ডব চালিয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে বিশাল সংগ্রহ এনে দিয়েছিলেন আন্দ্রে রাসেল। এর জবাবে ঝড় তুলেছিলেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হেনরিখ ক্লাসেনও।

কিন্তু তার লড়াই যথেষ্ট প্রমাণিত হয়নি। বরং পরে বল হাতে নৈপুণ্য দেখিয়ে সব আলো কেড়ে নেন রাসেল। আর তাতে দারুণ জয়ে আসর শুরু করে কলকাতা।  

২০২৪ আইপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আজ ৪ রানে জিতেছে স্বাগতিকরা। ঘরের মাঠ ইডেন গার্ডেনসে ম্যাচটি জিততে অবশ্য শেষ বল পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হয় তাদের। ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২০৯ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল কলকাতা। কিন্তু হায়দরাবাদের ইনিংস থামে ২০৪ রানে।

লক্ষ্য তাড়ায় নামা হায়দরাবাদ দুই ওপেনার মায়াঙ্ক আগারওয়াল (৩২) ও অভিষেক শর্মার (৩২) ব্যাটে ভালো শুরু পায়। তাদের জুটিতে আসে ৬০ রান। আগারওয়াল বিদায় নেওয়ার পর অভিষেককে বেশিক্ষণ টিকতে দেননি রাসেল। রাহুল ত্রিপাঠি (২০), এইডেন মার্করাম (১৮) সেট হলেও রানের গতি বাড়াতে পারেননি। বিশেষ করে কলকাতার স্পিনার সুনিল নারিনের বল খেলতেই পারছিলেন না তারা।  

তবে ক্লাসেন এসে দৃশ্যপট বদলে দেন। বরুণ চক্রবর্তীর এক ওভারে নেন ২১ রান। এরপর ক্লাসেন ও শাহবাজ মিলে অজি পেসার মিচেল স্টার্কের ওপর চড়াও হন। ১৯তম ওভারে আইপিএলের অন্যতম দামি ফাস্ট বোলারের বলে দুজন মিলে নেন ২৬ রান। এর মধ্যে ৩টি ছক্কাই হাঁকান ক্লাসেন। তৃতীয় ছক্কাটির মাধ্যমে ২৫ বলে ফিফটি ছুঁয়ে ফেলেন তিনি।  

শেষ ওভারে লক্ষ্য নেমে আসে মাত্র ১৩ রানে। কিন্তু এই লক্ষ্যই পেরোতে পারেনি হায়দরাবাদ। প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে অবশ্য ভালো ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ক্লাসেন। কিন্তু দ্বিতীয় বলে ১ রান আসার পর তৃতীয় বলে শাহবাজ (১৬) বিদায় নেন। আর তাতে খেলার মোড় কিছুটা ঘুরে যায়। চতুর্থ বলটিতে সিঙ্গেল নেন ইয়েনসেন। কিন্তু পঞ্চম বলে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন ক্লাসেন। ২৯ বলে ৮ ছক্কায় ৬৩ রান করেছেন তিনি। শেষ বলে কোনো রান নিতে পারেননি কামিন্স। ফলে হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে হায়দরাবাদ।

বল হাতে কলকাতার রাসেল নিয়েছেন ২ উইকেট। হারশিত রানা ঝুলিতে পুরেছেন ৩ উইকেট।  

এর আগে টস হেরে ব্যাট করে রাসেলের ঝড়ে ভর করে রানের পাহাড় গড়ে কলকাতা। যদিও দলটির শুরুটা ছিল হতাশাজনক। ওপেনার ফিলিপ সল্ট ছাড়া টপ অর্ডারের কেউ রানের দেখা পাননি। মিডল অর্ডারেও লাগে বিপর্যয়ের ছোঁয়া। দলীয় ৫৪ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে কলকাতা।

তবে প্রথমে সল্ট ও রমনদীপ সিং মিলে সেই বিপর্যয় দারুণভাবে সামাল দেন। রমনদীপ ১৭ বলে ৩৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন। এর কিছুক্ষণ পর ফিল্টও ড্রেসিংরুমের পথ ধরেন। তার ব্যাট থেকে আসে ৪০ বলে ৫৪ রান। এরপর শুরু হয় আন্দ্রে রাসেলের তাণ্ডব। মাত্র ২০ বলে তুলে নেন দারুণ এক ফিফটি।

২৫ বলে অপরাজিত ৬৪ রানের ঝলমলে এক ইনিংস খেলেছেন রাসেল। এই ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার ৭টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন। এর সঙ্গে নাম লিখিয়েছেন আইপিএলে ২০০টি ছক্কা মারার রেকর্ডেও। সবচেয়ে বেশি ছক্কার রেকর্ড অবশ্য তার স্বদেশী  ক্রিস গেইলের (৩৫৭) দখলেই রয়েছে। রাসেলের ইনিংসে আছে ৩টি চারও। এছাড়া রিংকু সিং শেষ ওভারের প্রথম বলে আউট হওয়ার আগে করেন ১৫ বলে ২৩ রান।  

হায়দরাবাদের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি খরুচে ভুবনেশ্বর কুমার। ৪ ওভারে ৫১ রান খরচ করেও উইকেটশূন্য রয়ে যান এই ভারতীয় পেসার। এর মধ্যে তার শেষ ওভার থেকেই আসে ২৬ রান। মাত্র ৩ ওভারে ৪০ রান খরচ করেও উইকেট পাননি দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার মার্কো ইয়েনসেন। আর অধিনায়ক প্যাট কামিন্স ৪ ওভারে ৩২ রানে নিয়েছেন ১ উইকেট। তবে তুলনামূলক সফল হয়েছেন টি নটরাজন। তার ঝুলিতে গেছে ৩ উইকেট। এছাড়া মারকান্ডে নিয়েছেন ২ উইকেট।

বাংলাদেশ সময়: ০০৩৪ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০২৪
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।