ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২৩ শাবান ১৪৪৫

ক্রিকেট

ম্যাচের আগে ‘বিশ্বাস’ থেকেই জয়ের কথা বলেছিলেন শান্ত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২২৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২, ২০২৩
ম্যাচের আগে ‘বিশ্বাস’ থেকেই জয়ের কথা বলেছিলেন শান্ত

সিলেট থেকে: পুরস্কার বিতরণী মঞ্চ থেকে ড্রেসিংরুমের পথ ধরেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ড্রেসিংরুমের উপরেও গ্যালারি, পাশের গ্যালারিটাও খুব কাছে।

মিনিট খানেক পথের পুরোটা জুড়েই অভিবাদনে ভেসে গেলেন তিনি।  

‘শান্ত’, ‘শান্ত’ স্লোগানে মুখরিত হলো চারপাশ। কখনো হাত নাড়িয়ে, কখনো মাথা নিচু করে পথ চলতে শুরু করলেন শান্ত। তার অধিনায়কত্বের পথচলা অবশ্য কেবলই শুরু হলো। এর আগেও তিনটি ওয়ানডেতে নেতৃত্ব দিয়েছেন, তবে টেস্টে টস করতে সিলেটেই নেমেছিলেন প্রথম।  

জয়ে, সেঞ্চুরিতে সেটি রাঙিয়ে দিয়েছেন শান্ত ও তার দলের অন্যরা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সবমিলিয়ে এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় জয়। টেস্টে ২৩ বছর আর ১৪০ টেস্টে কেবল ১৯তম জয়। সবমিলিয়ে এই জয়ের পর শান্তর অনুভূতি কী?  

সংবাদ সম্মেলনে এমন প্রশ্ন শুনে শান্তর জবাব, ‘ভালো লাগছে। খুবই খুশি। যেরকম চিন্তা করে এসেছিলাম, পরিকল্পনা করেছি...প্রথম টেস্ট ম্যাচ ছিল অধিনায়ক হিসেবে। ওভার অল যদি চিন্তা করি, আমার কাছে ব্যক্তিগতভাবে মনে হয় খুব ভালো একটা ম্যাচ খেলেছি। অধিনায়ক হিসেবে প্রথম ম্যাচে এরকম জয়, খুবই আনন্দিত। ’

শান্ত অবশ্য এমন কিছুর আভাস দিয়েছিলেন আগেই। সিরিজ শুরুর আগের সংবাদ সম্মেলনে আশা দেখিয়েছিলেন জয়ের। এমন কিছু নিউজিল্যান্ডের মতো দলের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশের অধিনায়কদের বলতে শোনা যায় কমই।  

কিন্তু অধিনায়কত্বের অভিষেকের আগে বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই বলেছিলেন শান্ত। পরে সেটি তিনি বাস্তবও করে দেখিয়েছেন। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের যে পূর্ভাবাস দিয়েছিলেন, সেটি কতটুকু ‘মিন’ করেছেন? শান্ত বলছেন, কাউকে অনুপ্রাণিত করতে বলেননি এমন।

তিনি বলেন, ‘আমি খুবই পরিষ্কার ছিলাম। আমি কাউকে মোটিভেট (অনুপ্রাণিত) করার জন্য বলিনি। কথাটা মিন (বিশ্বাস থেকেই) করেছিলাম যে এই সিরিজটা জিততে পারি। এবং জেতার জন্যই আমরা খেলবো। এই বিশ্বাসটা শুধু আমার মধ্যে ছিল, তা না। প্রতিটা খেলোয়াড়ের মধ্যে ছিল। ’

‘আমি যখন দেখেছি প্রতিটি খেলোয়াড় ওভাবে চিন্তা করছে তখনই আমার মধ্যে বিশ্বাসটা এসেছে। যে আমি যেটা চিন্তা করেছি, সবাই এটা চিন্তা করছে। এখান থেকে জেতা যে সম্ভব, এই বিশ্বাসটা আমার তখনই করেছি। ’ 

কেন এমন বিশ্বাস তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন শান্ত, ‘আমাদের কন্ডিশনে খেলা হচ্ছে। আমাদের যে বোলিং অ্যাটাক, ব্যাটিংয়ে যে শক্তি আছে। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং তিনটা আলাদা আলদা করে যেমন শক্তি ছিল আমার কাছে মনে হয়েছে সিরিজটা জেতা সম্ভব। ’

‘যদিও একটা ম্যাচ বাকি। অর্ধেক কাজ হয়েছে। এমন না যে পরের ম্যাচ যাবো আর জিতে যাবো। এরকম হবে না। আবার ওই পাঁচদিন কষ্ট করা লাগবে। অর্ধেক কাজ হয়েছে। আশা করবো যে পরের ম্যাচে কীভাবে আরও উন্নতি করে জিততে পারি। ’

বাংলাদেশ সময়: ১২২৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০২, ২০২৩
এমএইচবি/আরইউ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।