ঢাকা, রবিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১ শাওয়াল ১৪৪৫

ক্রিকেট

সিলেটে ম্যাচ নিয়ে নাদেল, ‘এখন হয়তো সেভেন স্টার খুঁজতে হবে’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৩৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৭, ২০২৩
সিলেটে ম্যাচ নিয়ে নাদেল, ‘এখন হয়তো সেভেন স্টার খুঁজতে হবে’ ছবি: শোয়েব মিথুন

সিলেট থেকে: চারদিকে প্রকৃতির মায়া। পাহাড়, চা বাগান চোখে পড়বে ক্রিকেট দেখার সঙ্গেই।

মূল মাঠের পাশেই আউটার মাঠ। অনুশীলনের সুযোগ-সুবিধাও দারুণ। দর্শকদের উন্মাদনারও কমতি থাকে না প্রায়ই। তবুও সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম ম্যাচ পায় না খুব একটা।  

সর্বশেষ ২০২০ সালে এখানে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ। এরপর প্রায় বছর তিনেক পেরিয়ে গেলেও সিলেটের দর্শকরা দেখেননি ছেলেদের আন্তর্জাতি ম্যাচ। মাঝে নারী এশিয়া কাপের পর এবার বিপিএল হচ্ছে। তাও সিলেট পেয়েছে কেবল আটটি ম্যাচ।  

এ নিয়ে হতাশা আছে স্থানীয়দের মধ্যে। এক সময় অজুহাত দেওয়া হতো সিলেটে পাঁচতারকা হোটেল না থাকার। এখন আছে সেটি। তবুও কেন ম্যাচ হচ্ছে না? এমন প্রশ্নের জবাবে সিলেটের ক্রিকেট সংগঠক ও বিসিবি পরিচালক শফিউল হক চৌধুরী নাদেল শুক্রবার বলেছেন, ‘এখন হয়তো আমাদের সেভেন স্টার খুঁজতে হবে। ফাইভ স্টার তো হয়ে গেছে। ’

বিপিএলের পরপরই বাংলাদেশে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলতে আসছে ইংল্যান্ড। এই সিরিজেও কোনো ম্যাচ পায়নি সিলেট। আন্তর্জাতিক ম্যাচের জন্য তাদের অপেক্ষা করতে হবে আয়ারল্যান্ড সিরিজ অবধি। গুঞ্জন আছে, ইংল্যান্ড নাকি খেলতে আসতে চায়নি সিলেটে।

এ নিয়ে নাদেল বলেন, ‘(ইংল্যান্ড এখানে) খেলবে না আমি বলি নাই। এটা যিনি বলেছেন, তিনি জানেন। আমি মনে করি, যুক্তরাজ্যের সঙ্গে, বিশেষ করে, ইংল্যান্ডের সঙ্গে সিলেটের যে সম্পর্কটা এবং ইংল্যান্ড দলে যারা খেলেন, তাদের কিন্তু সিলেটের প্রতি...সিলেটে খেলার ব্যাপারে আগ্রহ আছে। এখানে যে ফ্যাসিলিটি আছে সেটা তো অন্য জায়গায় এভাবে নেই। তারা আসতে চাইবে না, এটা আমি জানি না আসলে। ’

সিলেটে এবার বিপিএল নিয়ে উন্মাদনার কমতি নেই। টিকিট নিয়ে হাহাকার দেখা গেছে। প্রথম দিন গ্যালারিও ছিল দর্শকে পরিপূর্ণ। অনেকের গায়েই ছিল সিলেট স্ট্রাইকার্সের জার্সি।

এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘সিলেটে তো শুধু বিপিএল নয়, যেকোনো ক্রিকেটের আসর যখন বসে, দর্শকে মাঠ ভরপুর থাকে। সেটা আপনারাও দেখেছেন। এবার আমরা চার দিনে আটটা ম্যাচ পেয়েছি। ... আমি মনে করি, আমাদের এই ভেন্যু সুযোগ-সুবিধা, সৌন্দর্য সব কিছু নিয়ে যে জায়গায় এসেছে, আগামী দিনে আমরা আরও টুর্নামেন্ট পাব, সেই প্রত্যাশা সব সময়ই করি। ’

‘আবার আশাহতও হই। ইংল্যান্ড ট্যুরটি আমরা পাইনি। আয়ারল্যান্ড সফর এখানে হবে। তো আমি আশাবাদী। আবাসনসহ আমাদের প্র্যাকটিস ফ্যাসিলিটি এই সমস্ত বিষয় নিয়ে আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতা ছিল। ইতোমধ্যে এই সীমাবদ্ধতাগুলো অতিক্রম করে আমরা অনেকখানি এগিয়ে গিয়েছি। আমি আশা করি, আগামী দিনে যারা এই খেলাগুলোর ফিক্সচার ও সময়সূচি নির্ধারণ করবেন, ভেন্যু নির্ধারণ করবেন, তারা আরেকটু সদয় হবেন। আরেকটু সুবিবেচক হয়ে তারা সিলেটের দর্শকদের এবং আপনাদের চাহিদা পূরণ করতে তারা এগিয়ে আসবেন। ’

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৭, ২০২৩
এমএইচবি/আরইউ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।