ঢাকা, সোমবার, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ আগস্ট ২০২২, ১৬ মহররম ১৪৪৪

জলবায়ু ও পরিবেশ

বজ্রপাত রোধে কোটালীপাড়ায় বপন হবে ১০ হাজার তালবীজ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১১ ঘণ্টা, অক্টোবর ৫, ২০২১
বজ্রপাত রোধে কোটালীপাড়ায় বপন হবে ১০ হাজার তালবীজ বজ্রপাত মোকাবিলায় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন টিম লাইফ সাপোর্টের তালবীজ বপন

গোপালগঞ্জ: ‘বেশি করে তাল গাছ লাগাই, বজ্রপাতে প্রাণহানি কমাই’ এ স্লোগানে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ১০ হাজার তাল বীজ বপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও বজ্রপাত থেকে রক্ষায় এ উদ্যোগ নিয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন টিম লাইফ সাপোর্ট।

 

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) সকালে উপজেলার কলাবাড়ী ইউনিয়নের বুরুয়া-ভাঙ্গারপাড় সড়কে তালবীজ বপন করে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন করেন কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফেরদৌস ওয়াহিদ।

এ সময় উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ নিটুল রায়, কলাবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাইকেল ওঝা, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা কৃত্তিবাস পাণ্ডে, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সুধাংশু হালদার, মনোনয়ন কুমার মৃধা, টিম লাইফ সাপোর্টের পরিচালক সুশান্ত মণ্ডলসহ টিম লাইফ সাপোর্টের ৫০ জন স্বেচ্ছাসেবক উপস্থিত ছিলেন।

টিম লাইফ সাপোর্টের পরিচালক সুশান্ত মণ্ডল বলেন, পরিবেশ রক্ষা এবং বজ্রপাতে মৃত্যু কমাতে টিম লাইফ সাপোর্ট খোলা জায়াগা ও গাছ-পালাহীন নতুন সড়কের পাশে তালের বীজ বপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এ বছর টিম লাইফ সাপোর্টের উদ্যোগে কোটালীপাড়া উপজেলার কলাবাড়ী, শুয়াগ্রাম, কান্দি ও কুশলা ইউনিয়নের বিভিন্ন নতুন সড়কের ১০ হাজার তালবীজ বপন করা হবে। মঙ্গলবার এ কর্মসূচি আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করলাম।  

তিনি আরও বলেন, তালবীজ বপন কর্মসূচি শেষে আমরা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে নির্মিত নতুন রাস্তাগুলোতে বিভিন্ন ধরনের বনজ ও ফলদ গাছের চারা রোপণ করবো।

কলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মাইকেল ওঝা বলেন, তালগাছ সাধারণত বজ্রপাত থেকে মানুষকে রক্ষা করাসহ পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করে। অথচ কালের বির্বতনে আমাদের এলাকায় তাল গাছগুলো হারিয়ে যাচ্ছে। ফলে প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটছে। এসব বিবেচনায় টিম লাইফ সাপোর্ট তাল বীজ বপনের যে উদ্যোগ নিয়েছে, তা মানবতার কাজে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।  

উপজেলা কৃষি অফিসার নিটুল রায় বলেন, কোটালীপাড়া উপজেলা বৃষ্টিপ্রবণ একটি এলাকা। বৃষ্টিপাতের সময় এ এলাকায় ব্যাপক বজ্রপাত হয়। বজ্রপাতে প্রতিবছর মানুষসহ অনেক পশু-পাখি মারা যায়। ক্ষতি হয় মূল্যবান গাছ-পালারও। উঁচু গাছেই বেশি বজ্রপাত হয়। উঁচু গাছ থাকলে এলাকায় বজ্রপাতে প্রাণহানি অনেকটা লাঘব হতো। বজ্রপাতে মৃত্যু ঠেকানোর জন্য উঁচু তাল গাছই সবচেয়ে কার্যকর। তাছাড়া তাল গাছ মানুষের নানা উপকারে আসে। ঘর নির্মাণের জন্য মূল্যবান কাঠ ও জ্বালানির পাশাপাশি এই গাছ থেকে রস ও পুষ্টিকর সুস্বাদু ফল পাওয়া যায়।  

ইউএনও ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, দেশে দিন দিন বজ্রপাতে প্রাণহানির ঘটনা বাড়ছে। তালগাছ বজ্রপাত প্রতিরোধসহ প্রাণহানি কমাতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। পরিবেশ রক্ষা ও দুর্যোগ মোকাবিলায় সরকার নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। সরকারের পাশাপাশি আমাদের সবাইকে নিজ অবস্থান থেকে পরিবেশ রক্ষায় কাজ করতে হবে। টিম লাইফ সাপোর্ট পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় তালবীজ বপনের যে উদ্যোগ নিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়।

বাংলাদেশ সময়: ২০১০ ঘণ্টা, অক্টোবর ০৫, ২০২০
এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa