bangla news

খাবারের খোঁজে মেহেরপুর শহরে বিপন্ন প্রজাতির ৬ হনুমান

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১২-০২-০৭ ১১:০১:১২ এএম

বন্যপ্রাণীদের খাদ্য ও আবাস সংকট ক্রমেই তীব্র হয়ে উঠছে। বন-জঙ্গলের পরিসর সীমিত হয়ে আসায় খাবারের সন্ধানে বন্যপ্রাণীদের লোকালয়ে চলে আসা এখন নিয়মিত ঘটনা হয়ে উঠছে। সম্প্রতি খাবারের খোঁজে মেহেরপুর শহরে ঠাঁই নিয়েছে বিপন্ন প্রজাতির ছোট-বড় ৬টি হনুমান।

মেহেরপুর: বন্যপ্রাণীদের খাদ্য ও আবাস সংকট ক্রমেই তীব্র হয়ে উঠছে। বন-জঙ্গলের পরিসর সীমিত হয়ে আসায় খাবারের সন্ধানে বন্যপ্রাণীদের লোকালয়ে চলে আসা এখন নিয়মিত ঘটনা হয়ে উঠছে। সম্প্রতি খাবারের খোঁজে মেহেরপুর শহরে ঠাঁই নিয়েছে বিপন্ন প্রজাতির ছোট-বড় ৬টি হনুমান।

জেলা শহরের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছে এরা।

প্রতিদিন ভোর থেকে রাত পর্যন্ত হনুমানগুলো খাবারের জন্য হামলা চালাচ্ছে বিভিন্ন দোকানে। তবে খাবার নেওয়া ছাড়া কারো ক্ষতি করছে না এরা ।
 
বেশ কিছুদিন যাবত এসব হনুমানের কারণে বাজার করতে আসা অনেকেই ভীত সন্ত্রস্ত থাকছেন। বিশেষ করে স্কুলপড়ুয়া শিশুরা হনুমানগুলোর ভয়ে স্কুলে যেতে ভয় পাচ্ছে।

হনুমানগুলো নিয়ে বাজারের কিছু ব্যবসায়ী হৈ হুল্লোড় করে দিনভর মাতিয়ে রাখছেন গোটা বাজার।

হনুমানগুলো সকালের দিকে বাজারের বিস্কুটের দোকান, হোটেল ও সবজি বাজারে গিয়ে হাতের কাছে যা পাচ্ছে তাই নিয়ে যাচ্ছে। সেগুলো নিয়ে বাজারের বড় বড় দোকানের টিনের চালে কিংবা গাছের ডালে গিয়ে খাচ্ছে।

কৌতূহলী লোকজন অনেক সময় এদের রুটি, কলাসহ বিভিন্ন খাবার দিলে হাত থেকে নিয়ে যাচ্ছে এরা।

মাঝে মধ্যে বৈরী আচরণও করছে হনুমানগুলো। বাজারের বিভিন্ন দোকানে হানা দিয়ে মালামালও লণ্ডভণ্ড করে দিচ্ছে।
 
মেহেরপুর শহরের ডিসি কোর্ট বাজারের ব্যবসায়ী অনল, মামুনসহ কয়েকজন বাংলানিউজকে জানান, বেশ কিছুদিন আগে হনুমানগুলো মেহেরপুর শহরে আসে। মূলত খাবারের সন্ধানেই হনুমানগুলো লোকালয়ে চলে আসে বলে জানান তারা।

তাদের ধারণা, যশোর অথবা নেত্রকোনা থেকে কলাবোঝাই ট্রাকে চেপে রাতের বেলায় হনুমানগুলো এ বাজারে এসে থাকতে পারে।

হুনুমানগুলো হামলা চালিয়ে শহরের বিভিন্ন দোকানপাট তছনছ করলেও ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ বিপন্ন প্রজাতির এই প্রাণীগুলোর কোনো ক্ষতি করছেন না।

বাংলাদেশ সময়: ২১৪০ ঘন্টা, ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০১২

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জলবায়ু ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
db 2012-02-07 11:01:12