bangla news

জলবায়ু আন্দোলনে গ্রেটার পাশে গোটা বিশ্ব

আরাফাত খান, নিউজরুম এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৯-২১ ২:৫২:১৭ পিএম
নিউইয়র্কের সমাবেশে যাচ্ছেন গ্রেটা। ছবি: সংগৃহীত

নিউইয়র্কের সমাবেশে যাচ্ছেন গ্রেটা। ছবি: সংগৃহীত

গ্রেটা থানবার্গ, বয়স মাত্র ১৬। অথচ এই বয়সেই তিনি হয়ে উঠেছেন বিশ্বের অন্যতম দাপুটে কণ্ঠস্বর। ছোট্ট মেয়েটির ডাকে সাড়া দিয়ে রাস্তায় নেমেছে লাখ লাখ মানুষ, রব উঠেছে ‘জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকাও, পৃথিবী বাঁচাও’।

গত বছরের আগস্টে নিজ দেশের সংসদের সামনে পরিবেশ রক্ষার দাবিতে আন্দোলনে নামে এ সুইডিশ কিশোরী। আন্দোলনের নাম দেওয়া হয় ‘স্কুল স্ট্রাইক ফর ক্লাইমেট’। এর পরপরই সাড়া পড়ে যায় সারা বিশ্বে। তাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয় স্কুল-কলেজের হাজারো শিক্ষার্থী। গত এপ্রিলেই বিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনের নজরে প্রভাবশালী ১০০ জনের তালিকাতে জায়গা করে নিয়েছে এ কিশোরী।  এবছর নাম এসেছিল শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ীদের সম্ভাব্য তালিকাতেও। আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় তাকে বলা হচ্ছে ‘নেক্সট জেনারেশন লিডার।’

মেয়েটি যে কতটা প্রভাবশালী তার প্রমাণ মিলেছে গত শুক্রবারই (২০ সেপ্টেম্বর)। এ সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘ অধিবেশনে আমন্ত্রণ পেয়ে এখন যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে গ্রেটা থানবার্গ। তবে, অধিবেশন শুরুর আগেই রীতিমতো হৈ চৈ ফেলে দিয়েছে এ কিশোরী। তার ডাকে সাড়া দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শুরু হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন প্রতিরোধের আন্দোলন। 

গ্রেটার আন্দোলনে উৎসাহিত হয়েছে হাজার হাজার শিক্ষার্থী। ছবি: সংগৃহীত

শুক্রবার প্ল্যাকার্ড-স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছিল যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানহাটান। জাতিসংঘ সদর দফতরের সামনে জড়ো হয়েছিলেন লাখ লাখ মানুষ। সবারই এক দাবি- জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকাও।

এদিন নিউইয়র্কের ব্যাটারি পার্কের সমাবেশে পৌঁছামাত্রই রীতিমতো রকস্টারের মতো সংবর্ধনা পান গ্রেটা থানবার্গ। চারদিকে শুরু হয় ‘গ্রেটা’, ‘গ্রেটা’ রব।

সবাই অধীর আগ্রহ, কী বলবেন তাদের কিশোরী নেতা। হতাশ করেননি গ্রেটা। বরাবরেই মতোই সাহসী বক্তব্য দিয়ে মাতিয়ে তোলেন আন্দোলনকারীদের।

গ্রেটা থানবার্গ বলেন, এটিই ইতিহাসের সবচেয়ে বড় জয়বায়ু আন্দোলন। এ নিয়ে আমাদের গর্ব করা উচিত। কারণ, আমরা সবাই মিলেই এটি করেছি।

তার মতে, আন্দোলনে অন্তত ৪০ লাখ মানুষ অংশ নিয়েছেন এবং এ সংখ্যা আরও বাড়ছে।

নিউইয়র্ক সমাবেশে বক্তব্য দিচ্ছেন গ্রেটা থানবার্গ। ছবি: সংগৃহীত

গ্রেটা এখন আর শুধু সুইডেনের নয়, হয়ে উঠেছেন গোটা বিশ্বের নাগরিক। বাবা-মায়ের ছোট্ট বাড়ি নয়, এখন পৃথিবীটাই তার ঘর। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সেই ঘর আজ ধ্বংসের মুখে। এ প্রসঙ্গে মেয়েটি বলে, আমাদের ঘরে আগুন লেগেছে। আর এটা শুধু ছোটদের ঘর নয়, আমরা সবাই এ ঘরেই থাকি- এটা সবারই ক্ষতি করছে।

বয়স কম হলেও বিশ্বরাজনীতি ভালোই বোঝেন গ্রেটা। ক্ষমতাবান নেতারা বহুবার জলবায়ু পরিবর্তন রোধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, কিন্তু কাজের কাজ হচ্ছে না কিছুতেই। এ নিয়ে তার কথা, নেতাদের শূন্য প্রতিশ্রুতিগুলো সবই এক, মিথ্যাগুলো এক, একই তাদের নিষ্ক্রিয়তা।

একারণে সবার চোখ এখন জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের দিকে। গ্রেটা বলেন, তাদের সুযোগ এসেছে নেতৃত্ব নিয়ে প্রমাণ করার যে, তারা আসলেই আমাদের কথা শুনতে পান।

শুধু চমৎকার বক্তৃতাই নয়, বিশ্বনেতাদের কাছে রীতিমতো সতর্কবার্তাও দিয়ে রেখেছেন গ্রেটা থানবার্গ। বক্তব্য শেষ করার আগে তার চিৎকার করে প্রশ্ন, কে আমাদের ভয় পাচ্ছে? জনগণের শক্তি এমনই। মাত্র তো শুরু। তাদের ভালো লাগুক না লাগুক, পরিবর্তন আসবেই।  

শুধু কথায় কখনো নেতা হওয়া যায় না, কাজেও প্রমাণ দেখাতে হয়- গ্রেটা সেটা ভালোভাবেই বুঝেছেন। সুইডেন থেকে যুক্তরাষ্ট্র যেতে তিনি প্লেন বা জাহাজে ওঠেননি, গিয়েছেন নৌকায় চড়ে। কারণ, ইঞ্জিনচালিত যানবাহনও পরিবেশ দূষণের অন্যতম কারণ, আর তার আন্দোলন পরিবেশ রক্ষার জন্যই।

একা একাই আন্দোলন শুরু করেছিলেন গ্রেটা। ছবি: সংগৃহীত

কী ঘটেছে শুক্রবার?

কিরিবাতি, সলোমন দ্বীপপুঞ্জ, ভানুয়াতুর মতো প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের বাসিন্দারা যোগ দিয়েছেন গ্রেটার জলবায়ু আন্দোলনে। তাকে সমর্থন জানিয়েছে অনলাইনে পোস্ট করেছেন আন্দোলনের ছবি।

অস্ট্রেলিয়ায় অন্তত সাড়ে তিন লাখ মানুষ যোগ দিয়েছেন এ আন্দোলনে। কিছু কিছু এলাকায় স্কুলশিক্ষার্থী ও শ্রমিকদেরও আন্দোলনে নামতে উৎসাহিত করা হচ্ছে। 

আন্দোলন ছড়িয়েছে এশিয়া, ইউরোপ, আফ্রিকা, আমেরিকাতেও।

ঘানায় শিক্ষার্থীরা রাজধানী আকরা অভিমুখে পদযাত্রা করেছে। 

‘ডাই-ইন’ করেছেন আন্দোলনকারীরা। ছবি: সংগৃহীত

ভারত-থাইল্যান্ডে ‘ডাই-ইন’ (মৃতের অভিনয়) করেছেন আন্দোলনকারীরা।

জার্মানির পাঁচ শতাধিক শহরে পথে নেমেছেন জলবায়ু আন্দোলনকারীরা। দেশটির সরকার ইতোমধ্যে গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ কমাতে ৫৪ বিলিয়ন ইউরো বরাদ্দের ঘোষণা দিয়েছে।

আর যুক্তরাজ্যের চারটি দেশেই লাখ লাখ মানুষ জলবায়ু আন্দোলনে সামিল হয়েছেন।

জাতিসংঘ অধিবেশন শুরু হলে এ আন্দোলন আরও জোরদার হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯
একে

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জলবায়ু ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-09-21 14:52:17