bangla news

সুস্থ হয়ে উঠছে মহাবিপন্ন বনরুইটি

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন, ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-০২ ৫:৩৩:৪২ পিএম
বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের বনরুই/ছবি: বাংলানিউজ

বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের বনরুই/ছবি: বাংলানিউজ

মৌলভীবাজার: ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছে শ্রীমঙ্গলে ঠাঁই পাওয়া পৃথিবীব্যাপী মহাবিপন্ন প্রাণী বনরুই। দু’দিনের ব্যবধানে সে এখন খাবার খাচ্ছে এবং স্বাভাবিকভাবে হাঁটাচলা করছে। 

গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) বিকেলে ওয়াইল্ড লাইফ ক্রাইম কন্ট্রোল ইউনিট লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করার জন্য ঢাকা থেকে নিয়ে আসা বনরুইটি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে বন কর্মকর্তাদের পরামর্শে তাকে শ্রীমঙ্গলে অবস্থিত বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে হস্তান্তর করা হয়।  

এসময় ঢাকা থেকে নিয়ে আসা দু’টি ভুবনচিল ও দু’টি গন্ধগোকুল লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করা হয়। 

শনিবার (১ জুন) দুপুরে বনরুই দেখতে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে আসেন সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মেসবাহ উদ্দিন, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম, মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আশরাফুল রহমান, শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নজরুল ইসলাম প্রমুখ। 

এসময় বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সিতেশ রঞ্জন দেব বন্যপ্রাণী সম্পর্কে নানান তথ্য উপস্থাপন করেন। 

বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব বাংলানিউজকে বলেন, বনরুইটি যখন আমাদের এখানে নিয়ে আসা হয়েছিল তখন তার অবস্থা সংকটাপন্ন ছিল। বর্তমানে বনরুইটির শারীরিক অবস্থা অনেকটাই ভালো। নিজ থেকে সে খেতে পারছে। আর নিজ থেকে খেতে পারার অর্থ তার সামগ্রিক উন্নতি।

তিনি আরো বলেন, আমরা বহু কষ্ট করে দূর-দূরান্ত থেকে গাছে বাস করা লাল পিঁপড়ার বাসা সমেত ডিম সংগ্রহ করে আনছি। এগুলোর সন্ধান পাওয়া খুব কঠিন। তারপরও এটা বনরুইয়ের প্রিয় খাবার বলে আমরা প্রতিদিন তাকে এই খাবারটি দেওয়ার চেষ্টা করছি।

বনরুই আঁশযুক্ত স্তন্যপায়ী প্রাণী। এর ইংরেজি নাম Pangolin। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন) এর লাল-তালিকা অনুযায়ী পৃথিবীব্যাপী মহাবিপন্ন প্রাণী বনরুই। 

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩০ ঘণ্টা, জুন ০২, ২০১৯ 
বিবিবি/এএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জলবায়ু ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-06-02 17:33:42