ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৪ মে ২০১৯
bangla news

সচেতন হলে ৭৫ ভাগ প্লাস্টিক বর্জ্য দূর হবে: বন উপমন্ত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৫-১১ ৩:১১:১৪ পিএম
বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবসের আলোচনা সভায় অতিথিরা। ছবি: বাংলানিউজ

বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবসের আলোচনা সভায় অতিথিরা। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: মানুষ একটু সচেতন হলেই ৭৫ ভাগ প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে দূরে থাকা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার। যেখানে-সেখানে প্লাস্টিক বর্জ্য ফেলার কারণে জলজ প্রাণীরা হুমকিতে রয়েছে বলেও জানান তিনি।

শনিবার (১১ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম হলে বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবস-২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। 

বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, সাগর ও জলাশয় যদি প্লাস্টিক বর্জ্যে দূষিত হয়ে যায়, তা পরিশোধন করার পরিকল্পনা এখনো আমাদের নেই। যেসব প্লাস্টিক পণ্য উড়ে বেড়ায়; যেমন- পানির বোতল, পলিথিন, চিপসের প্যাকেট, এগুলো অনেক ক্ষতিকর। এ ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে। এসব প্লাস্টিক বিভিন্ন নদী-নালায় গিয়ে পানি দূষিত করছে। এতে জলজ প্রাণীরা হুমকিতে পড়ছে। এ থেকে তাদের রক্ষা করতে হবে। 

তিনি বলেন, দেশে এক শ্রেণির মানুষ আছে, যাদের কেউ দাম দেয় না। অথচ তাদের মাধ্যমেই আমরা দূষণ থেকে অনেকটা মুক্তি পাই। শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্লাস্টিক বর্জ্য কুড়িয়ে দু’পয়সা উপার্জন করে টোকাইরা। আমরা তাদের যেভাবে দেখি, আসলে তাদের স্থান অনেক উপরে।

উপমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশ আছে, যেখানে আগে বনভূমি ছিল, এখন তার চিহ্নও নেই। সব কেটে উজাড় করে ফেলেছে। আমাদেরও অনেক বনভূমি আছে। সেগুলো সংরক্ষণে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।

উপ-প্রধান বন সংরক্ষক জহির উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী, প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, বাংলাদেশ প্রাণিবিজ্ঞান সমিতির সভাপতি ড. গুলসান আরা লতিফাসহ আরো অনেকে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১০ ঘণ্টা, মে ১১, ২০১৯
জিসিজি/একে

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-05-11 15:11:14