ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ বৈশাখ ১৪২৬, ২৩ এপ্রিল ২০১৯
bangla news

লাউয়াছড়ার পাহাড়ি কাশ

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন, ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১২-১০ ৮:৩৮:০১ এএম
লাউয়াছড়ায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে পাহাড়ি কাশ। ছবি: বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন

লাউয়াছড়ায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে পাহাড়ি কাশ। ছবি: বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন

মৌলভীবাজার: সবুজে সাদার আভা। সাদা রংগুলো যেন তুলোর মতোই। আকাশের দিকে তাকিয়ে মাথা উঁচু করে দুলছে লাউয়াছড়ার পাহাড়ি কাশ। নদী বা ছড়ার ধারের অন্য কাশের মতো এগুলো ততটা সাদা নয়। কিছুটা কালচে। রঙের বৈশিষ্ট্যই জানান দিচ্ছে তার প্রজাতিভিন্নতা।

পাহাড়ি জনগোষ্ঠীরদের কাছে কাশের এই প্রজাতিটির গুরুত্ব রয়েছে। এটি দিয়ে তারা ঝাড়ু, ঘরের বেড়া, ঘরের চাল ও ঝুড়ি তৈরি করেন।  
 
প্রকৃতি বিষয়ক লেখক মোকারম হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, পাহাড়ি কাশ ঘাসের একটি প্রজাতি। এর ইংরেজি নাম Pin-reed grass এবং  বৈজ্ঞানিক নাম Saccharum arundinaceum। এগুলো পাহাড় ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় সহজলভ্য।
 
পাহাড়ি কাশের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে তিনি বলেন, পাহাড়ি কাশ বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ। এরা গুচ্ছ আকারে বা ঝাড় আকারে বেড়ে ওঠে। উচ্চতায় এরা দশ-পনের ফুট লম্বা হয়। নদী, চর বা ছড়ার ধারে ফোটা কাশের থেকে পাহাড়ি কাশগুলো একটা আলাদা। শেষের দিকে ফুলগুলো ফ্যাকাশে হয়ে যায়।
 
লাউয়াছড়ায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে পাহাড়ি কাশ। ছবি: বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপনএই পাহাড়ি কাশের পরিবারের আরো একটি কাশের প্রজাতি রয়েছে যেটা থেকে ফুলের ঝাড়ু তৈরি হয়। সমতলভূমিতে এদের দেখা পাওয়া যায় না। ভূমির ক্ষয়রোধে এই পাহাড়ি কাশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে বলে জানান উদ্ভিদ গবেষক মোকারম হোসেন।
 
লাউয়াছড়ার বিট কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, এখনই এগুলো লাউয়াছড়ায় ফুটে রয়েছে। শীত মৌসুমে প্রতিবছর ফুটতে দেখা যায়। দু-তিন সপ্তাহ ফুটে থাকে; তারপর আস্তে আস্তে ঝরে যায়। স্থানীয়দের কাছে এ উদ্ভিদটির প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
 
ফুল-ঝাড়ুর হাতা তৈরির জন্য যে শক্ত কাঠিগুলো লাগে স্থানীয়রা এই পাহাড়ি কাশের ডাটিগুলো দিয়ে সেই ফুল-ঝাড়ুর হাতা তৈরি করে বলে জানান আনোয়ার হোসেন।
 
বাংলাদেশ সময়: ০৮৩৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১০, ২০১৮
বিবিবি/এএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   মৌলভীবাজার
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জলবায়ু ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14