ঢাকা, শনিবার, ১৩ মাঘ ১৪২৯, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ০৫ রজব ১৪৪৪

বিএনপি

জেলা পরিষদ নির্বাচন পদ্ধতি সংবিধান পরিপন্থি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৫৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ৩০, ২০১৬
জেলা পরিষদ নির্বাচন পদ্ধতি সংবিধান পরিপন্থি ছবি: বাদল-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: জেলা পরিষদ নির্বাচন পদ্ধতি সংবিধান পরিপন্থি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
 

রোববার (৩০ অক্টোবর) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ২০ দলীয় জোটের মহাসচিব পর্যায়ের বৈঠক শেষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সংবিধানে স্পষ্ট উল্লেখ আছে জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ সব স্থানীয় নির্বাচন জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে অনুষ্ঠিত হবে।

‘কিন্তু নির্বাচন কমিশন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের ইলেক্টোরাল ভোটে জেলা পরিষদ নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছে। ঘোষিত এ পদ্ধতি সংবিধানের মূলনীতির পরিপন্থি’।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্বাচন ব্যবস্থা কোনো কাজেই আসছে না। আমরা শুরু থেকেই বলে আসছি সম্পূর্ণ নখ-দন্তহীন এ নির্বাচন কমিশন সরকারের অনুগত প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে’।

‘এ অবস্থায় জেলা পরিষদ নির্বাচনে আমরা (বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোট) অংশ নেবো কিনা- তা জোটের শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে’।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, একদিকে এই সরকার মুখে গণতন্ত্রের কথা বলছে, অন্যদিকে সমস্ত গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দিচ্ছে। মানুষের মৌলিক অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। তারা আজ অনায়াসে কোনো জবাবদিহীতা ছাড়াই  মানুষকে তুলে নিয়ে যাচ্ছে, আটকে রাখছে, টাকা-পয়সা দাবি করছে, চাঁদা দাবি করছে। দিতে না পারলে জঙ্গি অথবা সন্ত্রাসী মামলা দিয়ে জেলে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। গত তিন মাসে ১শ’ ৫১ জন মানুষকে হত্যা করা হয়েছে।

 

তিনি বলেন, তিন দিন আগে যশোরে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের এক নেতাকে তুলে নিয়ে গেছে। ঝিনাইদহে ১১ জামায়াত নেতা নিখোঁজ রয়েছেন। এর কারণ একটাই দেশে আইনের কোনো শাসন নেই। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যা খুশি তাই করছেন।

 

সংবাদ সম্মেলনে জামায়াত নেতা মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, জাতীয় পার্টির (জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, জাগপার ‍সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লূৎফর রহমান, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া, কল্যাণ পার্টির মহাসচিব আমিনুর রহমান, বিজেপির মহাসচিব আবদুল মতিন, এনপিপির মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, এনডিপির মো. মঞ্জুর হোসেন ইসা, লেবার পার্টির শামসুদ্দিন আহমেদ পারভেজ, ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা আবদুল করিম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম, ইসলামিক পার্টির আবুল কাশেম, মুসলিম লীগের শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, খেলাফত মজলিশের শফিক উদ্দিন, ন্যাপ ভাসানীর গোলাম মোস্তফা, সাম্যবাদী দলের এসএম হানিফুল কবীর প্রমুখ উপিস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৫৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ৩০, ২০১৬/আপডেট ১৫১৫ ঘণ্টা 
এজেড/এমএ/বিএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa