ঢাকা, শনিবার, ৭ কার্তিক ১৪২৮, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ব্যাংকিং

আর্ন্তজাতিক লেনদেনে অতিরিক্ত চার্জ নিচ্ছে প্রাইম ব্যাংক

শাহেদ ইরশাদ, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮৫৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ৪, ২০১৬
আর্ন্তজাতিক লেনদেনে অতিরিক্ত চার্জ নিচ্ছে প্রাইম ব্যাংক

ঢাকা: বিধি বহির্ভুতভাবে বেসরকারি খাতের প্রাইম ব্যাংক লিমিটিড আন্তর্জাতিক লেনদেনে অতিরিক্ত চার্জ আদায় করেছে। অতিরিক্ত চার্জ আদায়ের কারণ জানতে সম্প্রতি প্রাইম ব্যাংককে চিঠি দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।

 

সোসাইটি ফর ওয়ার্ল্ডওয়াইড ইন্টারব্যাংক ফিন্যান্সিয়াল টেলিকমিউনিকেশনস (সুইফট) হচ্ছে আর্ন্তজাতিক লেনদেন সংস্থা। দেশীয় ব্যাংকগুলোর আন্তর্জাতিক লেনদেন সম্পন্ন হয়ে থাকে সুইফট ব্যবহার করে। এজন্য সুইফটকে নির্ধারিত চার্জ দেয় ব্যাংকগুলো।

বিশ্বের ২০০টি দেশের প্রায় ১০ হাজার ৮০০টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান তাদের অর্থ সংক্রান্ত তথ্য আদান-প্রদান করে থাকে।

চার্জ আদায়ের নির্দেশনা দিয়ে ২০০৯ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, নির্ধারিত চার্জের বেশি অর্থ গ্রাহকের কাছে থেকে নেওয়া যাবে না।

সংশ্লিষ্ট ব্যাংক সূত্র জানায়, গত ছয় মাসে সুইফট চার্জ হিসেবে প্রাইম ব্যাংক ৬ কোটি ৮৫ লাখ টাকা আদায় করেছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে। অথচ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন মোতাবেক সুইফট চার্জের সঙ্গে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কোনো সুযোগ নেই।

অন্যান্য ব্যাংক সূত্রও জানায়, সুইফটের মাধ্যমে লেনদেনের ধরন ও পরিমাণ ভেদে ২শ’ টাকা থেকে এক হাজার টাকা চার্জ নির্ধারিত থাকলেও প্রাইম ব্যাংক অতিরিক্ত অর্থ আদায় করে।

এ প্রসঙ্গে প্রাইম ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, লেনদেন করতে গিয়ে সুইফট কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত চার্জ ছাড়াও ব্যাংকের টেলিফোন, ইন্টারনেট বিলসহ বিভিন্ন ধরনের খরচ রয়েছে। এজন্য ব্যাংকের খরচ বিবেচনা করে নির্ধারিত চার্জের চেয়ে সামন্য বেশি অর্থ আদায় করা হয়।

প্রাইম ব্যাংকের আর্থিক বিবরণীতে দেখা যায়, ওই ছয় মাসে পরিচালন মুনাফা হয়েছে ৩১৫ কোটি টাকা এবং প্রভিশন ও কর পরিশোধের পর নিট মুনাফা হয়েছে ২১৮ কোটি টাকা। সুইফট চার্জ থেকে আয় করা প্রায় ৭ কোটি টাকা বাদ দিলেও ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা কমে হবে ৩০৮ কোটি টাকা। এ ক্ষেত্রে প্রকৃত মুনাফাও কমে যাবে।

অতিরিক্ত চার্জ আদায়ের বিষয়ে প্রাইম ব্যাংকের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠানো চিঠিতে আরও জানতে চাওয়া হয়েছে, গ্রাহকদের কাছ থেকে নেওয়া অতিরিক্ত টাকা কেন ফেরত দেওয়া হবে না।

রোববার (৩ এপ্রিল) এ বিষয়ে কথা বলতে প্রাইম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আহমেদ কামাল খান চৌধুরীর মোবাইল ফোনে কয়েকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫১ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৩, ২০১৬
এসই/এটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa