bangla news

শাশুড়ি হত্যার ৫ দিন পর কনস্টেবল অসীম গ্রেফতার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম | আপডেট: ২০১৯-০৬-১২ ৮:২৫:৪৮ পিএম
শাশুড়ি হত্যার ৫ দিন পর কনস্টেবল অসীম গ্রেফতার
গ্রেফতারের পর অসুস্থ হয়ে পড়েন শাশুড়ি হত্যা মামলার আসামি অসীম

চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় শাশুড়িকে ছুরিকাঘাতে হত্যার দায়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কনস্টেবল অসীম ভট্টাচার্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের ৫ দিন পর বুধবার (১২ জুন) বিকেল চুয়াডাঙ্গা-আলমডাঙ্গা সড়কের ছাগলফার্ম এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া অসীম ভট্টাচার্য খুলনার দৌলতপুরের মৃত দুলাল ভট্টাচার্যের ছেলে। তিনি চুয়াডাঙ্গা সিআইডি বিভাগে কর্মরত।

পুলিশ জানায়, বিকেলে ঘোড়ামারা ব্রিজ এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে ট্রাফিক সার্জেন্ট মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাসসহ চার কনস্টেবল নিয়মিত তল্লাশি চালাচ্ছিলেন। এ সময় মুখে গামছা জড়িয়ে এক ব্যক্তি মোটরসাইকেল নিয়ে ওই এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তার গতিরোধ করেন। 

এবিষয়ে ট্রাফিক সার্জেন্ট মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস বাংলানিউজকে বলেন, গাড়ি থামিয়ে তার গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চাইলে তিনি নিজেকে গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয় দিয়ে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পরে আমরা তার মুখের গামছা সরালে নিশ্চিত হই তিনি শাশুড়ি হত্যা মামলার পলাতক আসামি কনস্টেবল অসীম। এসময় তিনি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে প্রায় দেড় কিলোমিটার ধাওয়া করার পর আমরা তাকে ধরতে সক্ষম হই। এ সময় অসীম তার কাছে থাকা ধারালো চাকু দিয়ে এক কনস্টেবলকে আঘাত করারও ব্যর্থ চেষ্টা করে। 

এদিকে গ্রেফতারের পর অসীম ভট্টাচার্য অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে নেওয়া হয় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা হাসপাতালে ছুঁটে যান এবং দায়িত্বরত ট্রাফিক সদস্যদের নগদ অর্থ পুরষ্কৃত করেন। 

পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ৮ জুন (শনিবার) ভোরে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের মাদ্রাসা পাড়ার ভাড়াটিয়া বাসাতে শাশুড়ি শেফালী অধিকারীকে ছুরিকাঘাত করে খুন করে জেলা সিআইডিতে কর্মরত কনস্টেবল অসীম ভট্টাচার্য। একই সঙ্গে স্ত্রী ফাল্গুনী অধিকারী ও শ্যালক আনন্দ অধিকারীকেও খুনের উদ্দেশ্যে উপর্যুপরী ছুরিকাঘাত করে। পরে তাদের দু’জনকে উদ্ধার করে প্রথমে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনার পর থেকেই পলাতক ছিলেন অভিযুক্ত অসীম। অবশেষে ঘটনার ৫দিন পর পুলিশ হাতে আটক হলো ঘাতক অসীম। 

বাংলাদেশ সময়: ২০২২ ঘণ্টা, জুন ১২, ২০১৯
এসএইচ

Phone: +88 02 8432181, 8432182, IP Phone: +880 9612123131, Newsroom Mobile: +880 1729 076996, 01729 076999 Fax: +88 02 8432346
Email: news@banglanews24.com , editor@banglanews24.com
Marketing Department: 01722 241066 , E-mail: marketing@banglanews24.com

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কপিরাইট © 2019-07-21 08:22:28 | একটি ইডব্লিউএমজিএল প্রতিষ্ঠান