ঢাকা: ‘দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধি ও বিনিয়োগের উত্তম ক্ষেত্র হিসেবে বাংলাদেশ বিবেচিত হতে পারে। কারণ বাংলাদেশে রয়েছে স্থিতিশীল রাজনৈতিক অবস্থা, উৎপাদিত পণ্যের বিশাল বাজার, উৎপাদনের জন্য নিম্ন শ্রম মজুরি ও সর্বোপরি সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের বিনিয়োগ প্রণোদনা প্যাকেজ।’- এমন কথাই বলেছেন ইতালিতে নিযু্ক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার।

">
bangla news

বাংলাদেশে বিনিয়োগ আকর্ষণ বাড়াতে ইতালিতে সেমিনার

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম | আপডেট: ২০১৯-০৬-০৩ ৬:২৭:১৩ পিএম
বাংলাদেশে বিনিয়োগ আকর্ষণ বাড়াতে ইতালিতে সেমিনার
ইতালির নেপলস শহরের চেম্বার ভবনে আয়োজিত সেমিনার। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ‘দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধি ও বিনিয়োগের উত্তম ক্ষেত্র হিসেবে বাংলাদেশ বিবেচিত হতে পারে। কারণ বাংলাদেশে রয়েছে স্থিতিশীল রাজনৈতিক অবস্থা, উৎপাদিত পণ্যের বিশাল বাজার, উৎপাদনের জন্য নিম্ন শ্রম মজুরি ও সর্বোপরি সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের বিনিয়োগ প্রণোদনা প্যাকেজ।’- এমন কথাই বলেছেন ইতালিতে নিযু্ক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার।

শুক্রবার (৩১ মে) ইতালির নেপলস শহরের চেম্বার ভবনে ইতালিয়ান ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগে আকর্ষণের জন্য আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। 

বাংলাদেশের উন্নয়ন চিত্র, বিনিয়োগ পরিবেশ, বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা তুলে ধরার লক্ষ্যে ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাস এ সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ভিশন ২০৪১ সম্পর্কে এবং বিগত দশ বছরে বাংলাদেশের ধারাবাহিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের চিত্র ব্যবসায়ীদের কাছে তুলে ধরেন ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার। 

রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশ এবং ইতালির মধ্যে একটি চমৎকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। ফলে দু’দেশের বাণিজ্য ক্রমবর্ধমান হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। দু’দেশের এ সম্পর্কের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের অনেক ভূমিকা রয়েছে। সে সময় দেশ দু’টির মধ্যকার এ সম্পর্ককে আরও শক্তিশালী করতে বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

সেমিনারে ‘বাংলাদেশ: ডেস্টিনেশন নেক্সট’ শিরোনামে একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন পরিবেশন করেন ইকোনমিক কাউন্সিলর মানস মিত্র। প্রেজেন্টেশনের শুরুতে তিনি সংক্ষিপ্তভাবে বাংলাদেশের ইতিহাস ও ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন। এরপর বাংলাদেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগের বর্তমান অবস্থান এবং ইতালির সঙ্গে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কের বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন। 

প্রেজেন্টেশনের শেষে হাই-টেক পার্ক ও নির্ধারিত অর্থনৈতিক অঞ্চলে বরাদ্ধ নিয়ে বিনিয়োগ করার সুযোগসহ বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশ সরকারের দেওয়া বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা এবং বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র তুলে ধরা হয়।

এছাড়াও প্রেজেন্টেশনে বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র হিসেবে কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, ফার্মাসিউটিক্যাল, তথ্যপ্রযুক্তি, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, সিরামিকস, নবায়নযোগ্য শক্তি, ব্লু-ইকোনমি এবং ট্যুরিজম বিষয়েও বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

প্রেজেন্টেশন শেষে প্রশ্ন-উত্তর ও মুক্ত আলোচনা পর্ব অনুষ্ঠিত হলে এতে বিপুল আগ্রহ ও স্বতস্ফূর্তভাবে অংশ নেন উপস্থিত ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা দূতাবাসের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে ইতালি ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধির ক্ষেত্রে এ ধরনের উদ্যোগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন। 

সে সময় রাষ্ট্রদূত ও ইকোনমিক কাউন্সিলর ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। 

ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদারের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও অংশ নিয়েছে- নেপসল চেম্বার অব কমার্সের নেতারাসহ কাম্পানিয়া অঞ্চলের প্রায় ৩০ জন ইতালিয়ান ব্যবসায়ী। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপিস্থিত ছিলেন নেপসল চেম্বার অব কমার্সের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফাব্রিজিও লুওঙ্গ। 

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন নেপলসের বাংলাদেশ অনারারি কনসাল জেনারেল ফিওরেল্লা ব্রেগলিয়া।

ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাস সেখানকার মিলান, ভেনিস, ফ্লোরেন্স, নেপলস, জেনোয়া, পালেরমো ও কাতানিয়া শহরসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলে এ ধরনের সেমিনার আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে। এর আগে ১৭ মে ফ্লোরেন্সে এ ধরনের সেমিনার আয়োজিত হয়েছিল।

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৭ ঘণ্টা, জুন ০৩, ২০১৯
এসএ/

Phone: +88 02 8432181, 8432182, IP Phone: +880 9612123131, Newsroom Mobile: +880 1729 076996, 01729 076999 Fax: +88 02 8432346
Email: news@banglanews24.com , editor@banglanews24.com
Marketing Department: 01722 241066 , E-mail: marketing@banglanews24.com

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কপিরাইট © 2019-07-21 08:16:36 | একটি ইডব্লিউএমজিএল প্রতিষ্ঠান