গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলায় নলকূপ ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্যদের হাতাহাতি ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় চার ইউপি সদস্য কাশিয়ানী সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

">
bangla news

কাশিয়ানীতে চেয়ারম্যান-মেম্বরদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম | আপডেট: ২০১৯-০১-১৭ ৪:২৭:৩১ এএম
কাশিয়ানীতে চেয়ারম্যান-মেম্বরদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ
গোপালগঞ্জ

গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলায় নলকূপ ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্যদের হাতাহাতি ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় চার ইউপি সদস্য কাশিয়ানী সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বুধবার (১৬ জানুয়ারি) উপজেলার রাজপাট ইউপি কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। 

কাশিয়ানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, হাতাহাতির ঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, কাশিয়ানী উপজেলার ৯ নং রাজপাট ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে দুস্থদের মধ্যে ভিজিডি কার্ডের চাউল বিতরণ চলছিল। এ সময়ে রাজপাট ইউনিয়নের ইউপি সদস্যরা চেয়ারম্যান এম ডি মনিরুল আলম খানের কক্ষে গিয়ে ইউনিয়নের নলকূপ বরাদ্দের বিষয়ে জানতে চান। এনিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় চেয়ারম্যানকে প্রায় দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন ইউপি সদস্যরা।

রাজপাট ইউপি সদস্য মো. মহসিন শিকদার ও বাদল মোল্যা অভিযোগ করেন, আমরা ১০ জন ইউপি সদস্য এক সঙ্গে চেয়ারম্যানের কক্ষে গিয়ে গভীর নলকূপ সরকারিভাবে বরাদ্দের বিষয়ে জানতে চেয়েছিলাম। এ সময় চেয়ারম্যান মনিরুল ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের ওপর চড়াও হয়ে ইউপি সদস্য মহসিনকে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন। পরে চেয়ারম্যানের গ্রামের ১০ থেকে ১২ জন লোক এসে আমাদের এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করে। এ ঘটনায় রাজপাট ইউপির ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য বাদল, ৭ নং ওয়ার্ডের মহসিন, সংরক্ষিত ২ নং আসনের সদস্য সাবিনা ইয়াসমিন এবং সংরক্ষিত ০৩ নং  আসনের সদস্য মনিকা বিশ্বাস আহত হন। পরে তারা কাশিয়ানী সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। 
কাশিয়ানী হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. আরিফুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, আহত চারজন মেম্বর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান মনিরুল অভিযোগ করেন, ইউপি সদস্যরা আমার ওপর হামলা করে। আত্মরক্ষার্তে আমার রুমের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে রাখি। পরে চৌকিদাররা ও স্থানীয় লোকজন ঘটনাস্থলে আসলে আমি নিজের রুমের দরজা খুলে বের হই। বাইরে ইউপি সদস্যদের কে বা কারা মারধর করেছে সেটা আমার জানা নাই। 

বাংলাদেশ সময়: ০৪২৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৭, ২০১৯
আরআইএস/

Phone: +88 02 8432181, 8432182, IP Phone: +880 9612123131, Newsroom Mobile: +880 1729 076996, 01729 076999 Fax: +88 02 8432346
Email: news@banglanews24.com , editor@banglanews24.com
Marketing Department: 01722 241066 , E-mail: marketing@banglanews24.com

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কপিরাইট © 2019-07-15 23:25:53 | একটি ইডব্লিউএমজিএল প্রতিষ্ঠান