সাভার থেকে: মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হাজারো মানুষের ঢল নেমেছে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে। ক্রসওয়াড, শীতের চাদর মুড়ি দিয়ে স্মৃতিসৌধে আসছেন মানুষজন। আর এখানে জমজমাট ব্যবসা করছেন মৌসুমি মাফলার বিক্রেতারা।

">
bangla news

স্মৃতিসৌধে জমজমাট ‘লাল-সবুজ’ মাফলার বিক্রি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম | আপডেট: ২০১৮-১২-১৬ ১১:২৮:৪৬ এএম
স্মৃতিসৌধে জমজমাট ‘লাল-সবুজ’ মাফলার বিক্রি
মাফলার বিক্রেতা মোহাম্মদ মিজান, ছবি: বাংলানিউজ

সাভার থেকে: মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হাজারো মানুষের ঢল নেমেছে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে। ক্রসওয়াড, শীতের চাদর মুড়ি দিয়ে স্মৃতিসৌধে আসছেন মানুষজন। আর এখানে জমজমাট ব্যবসা করছেন মৌসুমি মাফলার বিক্রেতারা।

গাবতলীতে তেমন সাড়া না পেয়ে স্মৃতিসৌধে মাফলার নিয়ে এসেছেন মোহাম্মদ মিজান (৪০)। এবারই প্রথম মাফলার বিক্রির উদ্দেশে স্মৃতিসৌধে আসা তার। গুলিস্তান থেকে প্রতি পিস ৫০ টাকা দরে কেনা ৭১ পিস মাফলার নিয়ে এসেছেন মিজান। প্রতিটি মাফলার বিক্রি করছেন ১০০ টাকায়। 

সকাল সাতটায় স্মৃতিসৌধের মূল অংশে প্রবেশ করে এক ঘণ্টার মধ্যেই ৫৪টি মাফলার বিক্রি করেন বলে জানান মিজান। 

মিজান একা নয় তার মতো বিজয় দিবসে লাল-সবুজের মাফলার বিক্রি করতে এসেছেন রফিক, তারা মিয়া, মোস্তফাসহ অন্তত ১৫ জন বিক্রেতা। বেচাবিক্রি ভালো হচ্ছে কমবেশি প্রায় সবারই। 

মিজান বলেন, ‘শীত পড়ছে। অনেকেরই মাফলার লাইগতে পারে। আর বিজয় দিবস। তাই অনেকেই এইনে আইবো। তাই পতাকার লাহান ডিজাইনের মাফলার নিয়া আইছি’।

জাতীয় পতাকার রংয়ে দুই পাশে সবুজ আর মাঝে লাল সুতা দিয়ে তৈরি করা হয়েছে এসব মাফলার। আর এই নকশার কারণেই ক্রেতাদের নজর কাড়ছে মাফলারগুলো। স্মৃতিসৌধে আসা মানুষদের বেশ উৎসাহ নিয়েই কিনতে দেখা যায় মাফলার। রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনগুলোর নেতারাও দলের কর্মীদের মাফলার কিনে দিচ্ছেন। এছাড়াও ছোট ছোট সোনামনিদেরকেও মাফলার কিনে দিচ্ছেন সঙ্গে থাকা অভিভাবকরা।

ক্যাপশন: মাফলার বিক্রেতা মোহাম্মদ মিজান।

বাংলাদেশ সময়: ১১২২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮
এসএইচএস/জেডএস

Phone: +88 02 8432181, 8432182, IP Phone: +880 9612123131, Newsroom Mobile: +880 1729 076996, 01729 076999 Fax: +88 02 8432346
Email: news@banglanews24.com , editor@banglanews24.com
Marketing Department: 01722 241066 , E-mail: marketing@banglanews24.com

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কপিরাইট © 2019-05-21 15:51:05 | একটি ইডব্লিউএমজিএল প্রতিষ্ঠান