ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

ছায়ানটে নজরুল স্মরণ

ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৮-৩১ ৯:১৫:৫৯ পিএম
অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করছেন এক শিল্পী। ছবি: বাংলানিউজ

অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করছেন এক শিল্পী। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: বাংলা সাহিত্য, সমাজ ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব কাজী নজরুল ইসলাম। কবিতা ও গানের সঙ্গে সঙ্গে তার লেখনীর মধ্য দিয়ে মানবতা, সাম্য, প্রেম ও দ্রোহের কথা বলেছিলেন এই কবি। তাকে স্মরণ করেই ছায়ানটে অনুষ্ঠিত হয়েছে নজরুল প্রয়াণবার্ষিকীর অনুষ্ঠান।

শনিবার (৩১ আগস্ট) সন্ধ্যায় ছায়ানটের শিল্পীদের সম্মেলক কণ্ঠে ‘জাগো অমৃত পিয়াসি চিত’ গানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় এ আয়োজন। কবির ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এভাবেই কবিকে স্মরণ করা হয়।

কাজী নজরুল ইসলাম জাগতিক সব বিষয়ের বাইরে ইসলামী দর্শন ও তার ভেতরের সত্ত্বাকে নাড়া দিয়েছিল দারুণভাবে। বাঙালির আত্ম-পরিচয়ের মূলে নজরুলের অসামান্য সৃষ্টিকর্ম। এ আয়োজনের গানে ও কবিতায় সেই বিষয়গুলোকেই তুলে ধরে ছায়ানট।

সম্মেলক, একক গান ও কবিতা দিয়ে সাজানো ছিল পুরো আয়োজন। এতে গানের সুরে ও কবিতার দীপ্ত উচ্চারণে জাতীয় কবিকেই মূর্ত করে তুলেছিলেন শিল্পীরা। অনুষ্ঠানে সম্মেলক কণ্ঠে আরও পরিবেশন করা হয় ‘এসেছি তব দ্বারে, বেদনার সিন্ধু মন্থন শেষ’, ‘নীরন্ধ্র মেঘে মেঘে’, ইত্যাদি গানগুলো।অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করছেন শিল্পীরা। ছবি: বাংলানিউজএরপর নজরুলের একক গান পরিবেশন করেন মৌমিতা সরকার মুমু। তিনি গেয়ে শোনান ‘হে প্রিয় আমারে দিব না ভুলিতে’। একক কণ্ঠে শুক্লা পাল সেতুর কণ্ঠে গীত হয় ‘বল রে জবা বল’, কানিজ হুসনা আহম্মাদী গেয়ে শোনান ‘কোন কাননের ফুল গো তুমি’, অর্পিতা চক্রবর্তী পরিবেশন করেন ‘ওগো অন্তর্যামী ভক্তের তব’, অভিজিৎ কুণ্ডুর কন্ঠে গীত হয় ‘মোর প্রথম মনের মুকুল’, তমা সরকর গেয়ে শোনান ‘ঘুমিয়ে গেছে শ্রান্ত হয়ে’।

পপি আক্তার পরিবেশন করেন ‘পরাণ-প্রিয় কেন এলে অবেলায়’, সুস্মিতা দেবনাথ শুচির কন্ঠে গীত হয় ‘মনে পড়ে আজ’, শেখর মণ্ডল শোনান ‘মেঘে মেঘে অন্ধ অসীম’, সুদীপ্ত শুভ পরিবেশন করেন ‘সাঁঝের পাখিরা ফিরিল’, সুস্মিতা দাস শোনান ‘তোমার বীণার মূর্ছনাতে’। 

এছাড়াও আসরে নজরুলের কবিতা আবৃত্তি করেন জাহিদ রেজা নূর ও কৃষ্টি হেফাজ। পরে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় আয়োজন।

বাংলাদেশ সময়: ২১১০ ঘণ্টা, আগস্ট ৩১, ২০১৯
এইচএমএস/আরবি/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

শিল্প-সাহিত্য বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-08-31 21:15:59