[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ৪ কার্তিক ১৪২৫, ১৯ অক্টোবর ২০১৮
bangla news

দার্জিলিংয়ে বন্ধ রোমাঞ্চকর রোপওয়ে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৪-০৫ ২:৪৭:৫০ এএম
দার্জিলিংয়ের রোপওয়ে

দার্জিলিংয়ের রোপওয়ে

কলকাতা: কোনো পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পশ্চিমবঙ্গের ভূ-স্বর্গখ্যাত দার্জিলিংয়ের রোমাঞ্চকর রোপওয়ে পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এতে এই গরমে দার্জিলিং ঘুরতে যাওয়া পর্যটকরা ফিরছেন একরাশ হতাশা নিয়ে। কর্তৃপক্ষের এহেন দায়িত্বহীনতায় ক্ষুব্ধ তারা।

কলকাতার টালিগঞ্জের বাসিন্দা অরিন্দম চক্রবর্তী বাংলানিউজকে বলেন, স্কুলের পরীক্ষা শেষে বাচ্চাদের নিয়ে দার্জিলিংয় গিয়েছিলাম। পরিকল্পনায় ছিল বাচ্চাদের বাতাসিয়া লুপ থেকে টাইগার হিল দেখা আর রোপওয়েতে চড়াবো। কিন্তু গিয়ে  হতাশ হতে হলো। ঘোষণা ছাড়াই রোপওয়ে বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

কলকাতা থেকে যাওয়া আরেক পর্যটক বিশ্বজিৎ সরকার হাওড়া স্টেশনে নেমে বাংলানিউজকে বলেন, ভেবেছিলাম হানিমুনে রোপওয়েতে বসে চুটিয়ে রোম্যান্টিকতা করবো। কিন্তু কপাল খারাপ, বন্ধের বিষয়টি আগেই সংবাদমাধ্যমকে জানালে আমাদের সুবিধা হতো।
 
দার্জিলিংয়ে প্রকৃতির অন্য এক আশ্বর্য সৌন্দর্য় উপভোগ করা যায়। আর এর অন্যতম আকর্ষণ রোপওয়ে। এক পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়, মাঝখানে রোমাঞ্চকর খাদ। সে এক অন্য অনুভূতি। যা এপ্রিল মাস থেকে বন্ধ হয়ে গেলো।

বনদপ্তরের সঙ্গে তাদের চুক্তি শেষ হয়ে যাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে রোপওয়ে কোম্পানি। 

‘দার্জিলিং রঙ্গিত ভ্যালি কনভয়ের রোপওয়ে সার্ভিস প্রাইভেট লিমিটেড’ এর তরফ থেকে জানা যায়, পশ্চিমবঙ্গ বনদপ্তরের সঙ্গে ২০ বছরের চুক্তি ছিল যা শেষ হয়েছে ৩১ মার্চ। সে কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গরমে স্বাভাবিকভাবেই পাহাড়ে ছুটির আমেজ নিতে আসা পর্যটকরা রোপওয়ে বন্ধ থাকায় হতাশ। পরবর্তীতে বনদপ্তরের সঙ্গে আলোচনায় বসে ফের রোপওয়ে চালানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। তবে বিষয়টি বেশ সময়সাপেক্ষ।
 
রাজ্য বনদপ্তর ও রোপওয়ে কোম্পানির মধ্যে ১৯৯৮ সালে ২০ বছরের চুক্তি হয়েছিল। ৩১ মার্চ সেই চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার দু’দিন আগেই ২৯ মার্চ বনদপ্তরের তরফ থেকে রোপওয়ে কোম্পানিকে চিঠি দিয়ে এপ্রিল থেকে পরিষেবা বন্ধ করার কথা বলা হয়। চুক্তি থাকলেও রোপওয়ে পরিষেবা চালাতে প্রতিবছর রাজ্য বনদপ্তর থেকে এনওসি নিতে হয়। 

মেয়াদ শেষ হতে এবার তারা এনওসি পায়নি। রোপওয়ে থেকে প্রতিদিন গড়ে ৭০ থেকে ৯০ হাজার টাকা আয় হচ্ছিল। এখন তা পুরোপুরি বন্ধ।
 
বাংলাদেশ সময়: ১২৪২ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৫, ২০১৮
ভিএস/এএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

কলকাতা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
db