[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৬ নভেম্বর ২০১৮
bangla news

সিসিকে কাউন্সিলর পদে বিএনপির দ্বিগুণ আ’লীগ

নাসির উদ্দিন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৭-৩১ ১:১৮:২৫ এএম
সিলেট সিটি করপোরেশন ও নির্বাচন কমিশন।

সিলেট সিটি করপোরেশন ও নির্বাচন কমিশন।

সিলেট: সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সাধারণ ওয়ার্ডে বিজয়ী কাউন্সিলরদের বেশিরভাগই আওয়ামী লীগের। ক্ষমতাসীন দলের ১৬ নেতাকর্মী বিজয়ী হয়েছেন। বিএনপি বিজয়ী হয়েছে আটটিতে, জামায়াত নেতা দু’টি ও একজন সাংবাদিক।

এছাড়া সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে বিএনপির ২ জন, আওয়ামী লীগ ১, স্বতন্ত্র হিসেবে ৫ জন বিজয়ী হয়েছেন এবং সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ডে ২ প্রার্থীর ভোট সমান হওয়ায় তাদের ফলাল ঘোষণা করা হয়নি।

কাউন্সিলর নির্বাচনে পুরোনোদের জয়জয়কার হয়েছে। বিজয়ীদের মধ্যে নতুন মুখ রয়েছেন মাত্র পাঁচজন।

সোমবার (৩০ জুলাই) দিনগত রাতে সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বেসরকারিভাবে তাদের বিজয়ী ঘোষণা করেন।

কাউন্সিলর পদে ২৭টি ওয়ার্ডে বিজয়ী কাউন্সিলর প্রার্থীরা হলেন- ১নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা সৈয়দ তৌফিকুল হাদি (ঝুড়ি) এক হাজার ৫৯৩ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। 

২নং ওয়ার্ডে নতুন মুখ হিসেবে আওয়ামী লীগের বিক্রম সম্রাট (লাটিম) ২ হাজার ৮৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। ৩নং ওয়ার্ডে নতুন মুখ আওয়ামী লীগের আবুল কালাম আজাদ লায়েক (ঠেলাগাড়ি) পেয়েছেন ৩ হাজার ১৭৯ ভোট। ৪নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা রেজাউল হাসান কয়েস লোদী (লাটিম) দুই হাজার ৮২৮ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। ৫নং ওয়ার্ডে সাংবাদিক রেজওয়ান আহমদ (টিফিন ক্যারিয়ার) তিন হাজার ৯৮৬ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। ৬নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা ফরহাদ চৌধুরী শামীম (ঘুড়ি) ৪হাজার ৩ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। ৭নং ওয়ার্ডে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আফতাব হোসেন খান (ঘুড়ি) ছয় হাজার ২২৩ ভোট পেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ৮নং ওয়ার্ডে ছাত্রলীগ নেতা ইলিয়াছুর রহমান (ঘুড়ি) চার হাজার ৫৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ৯নং ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা মোখলিছুর রহমান কামরান (ঠেলাগাড়ি)। তার প্রাপ্ত ভোট চার হাজার ৯২। ১০ নং ওয়ার্ডে নতুন মুখ হিসেবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা তারেক উদ্দিন তাজ (ঠেলাগাড়ি) ২ হাজার ২৪৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ১১নং ওয়ার্ডে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম ঝলক (ঠেলাগাড়ি) চার হাজার ১৮০ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। ১২নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা সিকন্দর আলী (ব্যাডমিন্টন র‌্যাকেট) ৩ হাজার ২২৬ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। ১৩নং ওয়ার্ডে ২ হাজার ৭১২ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের শান্তনু দত্ত সন্তু (ঘুড়ি)। ১৪নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম মুনিম (ঘুড়ি) ৩ হাজার ৬৮৭ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন।

১৫নং ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা ছয়ফুল আমিন বাকের (টিফিন ক্যারিয়ার) পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ২ হাজার ৮৪৮। ১৬নং ওয়ার্ডে ২ হাজার ৯১৮ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন জামায়াত নেতা আবদুল মুহিত জাবেদ (টিফিন ক্যারিয়ার)। ১৭নং ওয়ার্ডে নতুন মুখ আওয়ামী লীগের রাশেদ আহমদ (ট্রাক্টর) চার হাজার ২শ ৮৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। ১৮নং ওয়ার্ডে দুই হাজার ১৯৬ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন এবিএম জিল্লুর রহমান উজ্জ্বল (মিষ্টি কুমড়)। ১৯নং ওয়ার্ডে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন এসএম শওকত আমিন তৌহিদ (ঠেলাগাড়ি)।

২০নং ওয়ার্ডে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা আজাদুর রহমান আজাদ। ২১নং ওয়ার্ডে ৪ হাজার ২২১ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন বিএনপি নেতা আবদুর রকিব তুহিন (লাটিম)। ২২নং ওয়ার্ডে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম (টিফিন ক্যারিয়ার)। তার প্রাপ্ত ভোট দুই হাজার ৩শ ৪২। ২৩নং ওয়ার্ডে দুই হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তাক আহমদ (ঠেলাগাড়ি)। ২৪নং ওয়ার্ডে জামাত নেতা সোহেল আহমদ রিপন (ঠেলাগাড়ি) দুই হাজার ৬৩৮ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। ২৫নং ওয়ার্ডে ৩ হাজার ৩৮০ ভোট পেয়ে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা তাকবির ইসলাম পিন্টু (ঘুড়ি)। ২৬নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ তৌফিক বক্স লিপন (ব্যাডমিন্টন র‌্যাকেট) পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। ২৭নং ওয়ার্ডে ৩ হাজার ২৫৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের আজম খান (ঘুড়ি)।

এছাড়া সংরক্ষিত ১নং (১,২ ও ৩) ওয়ার্ডে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন সালমা সুলতানা (চশমা)। তিনি পেয়েছেন চার হাজার ৬৩৮ ভোট। সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ডে (৪,৫ ও ৬) ওয়ার্ডে নির্বাচিত হয়েছেন কুলসুমা বেগম পপি (হেলিকাপ্টর)। তিনি পেয়েছেন ৫হাজার ৮৩২ ভোট। সংরক্ষিত ৩নং ওয়ার্ডে (৭,৮ ও ৯) ওয়ার্ডে রোকসানা খানম (ডলফিন) পেয়েছেন চার হাজার ৭৬৬ ভোট। সংরক্ষিত ৪নং ওয়ার্ডে (১০,১১ ও ১২) নির্বাচিত হয়েছেন মাসুদা সুলতানা (চশমা) তার প্রাপ্ত ভোট ১১হাজার ১৪৮। সংরক্ষিত  ৫নং ওয়ার্ডে (১৩, ১৪ ও ১৫) ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন সাহানা বেগম শানু (ডলফিন)। তার প্রাপ্ত ভোট ছয় হাজার ৮৫৪। সংরক্ষিত ৬নং ওয়ার্ডে (১৬, ১৭ ও ১৮) পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন সাহানারা বেগম (বই)। সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ডে (১৯, ২০ ও ২১) দু'জন প্রার্থী সমান সংখ্যক ভোট পেয়েছেন। এরমধ্যে নাজনীন আক্তার কনা (জিপগাড়ি) পেয়েছেন চার হাজার ১৫৫ ভোট। সমান সংখ্যক ভোট পেয়েছেন নার্গিস সুলতানা (চশমা)। সংরক্ষিত এই ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সংরক্ষিত ৮নং ওয়ার্ডে (২২, ২৩ ও ২৪) রেবেকা আক্তার লাকি (জিপগাড়ি) পেয়েছেন পাঁচ হাজার ৯শ ৭৭ ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন। এ সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ১১৬নং কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত রয়েছে। সংরক্ষিত ৯নং (২৫,২৬ ও ২৭) নং ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন অ্যাডভোকেট রুকসানা বেগম শাহনাজ (চশমা)। তার প্রাপ্ত ভোট ৭হাজার ৯শ ৭০ ভোট।

বাংলাদেশ সময়: ১১১৩ ঘণ্টা, জুলাই ৩১, ২০১৮
এনইউ/এএটি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

নির্বাচন ও ইসি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
db