ঢাকা, শনিবার, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জুলাই ২০১৯
bangla news

ভারতের হারে তরুণের মৃত্যু, একজনের আত্মহত্যাচেষ্টা

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৭-১২ ১০:৩৩:৩৪ এএম
ভারতের হার। ছবি- সংগৃহীত

ভারতের হার। ছবি- সংগৃহীত

আসরের শুরু থেকেই ভারত ফেবারিট। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা সেরা চারের একটি হিসেবে বরাবরই ভারতকে সামনের দিকে রেখেছেন। অনেকেই আবার ভারতের হাতে বিশ্বকাপটাও চাইছিলেন। কিন্তু সেরা চারের ভবিষ্যতবাণী সত্যি করতে পারলেও কাপ পর্যন্ত আর যাওয়া হয়নি ভারতের।

ধুকতে থাকা নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেই সেমিফাইনালে ১৮ রানে হেরে বাদ পড়ে যায় বিরাট কোহলির ভারত। আর প্রিয় দলের এই হার সইতে না পেরে এক সমর্থক মৃত্যুবরণ করেন, আরেক সমর্থক আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম থেকে জানা যায়, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলির সেকেন্দারপুরের শ্রীকান্ত মাইতি নামে একজন মৃত্যু বরণ করেন। সাইকেল সারাইয়ের দোকানের মালিক শ্রীকান্ত তার নিজের দোকানেই ফোনে খেলা দেখছিলেন। মহেন্দ্র সিং ধোনি আউট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ৩৩ বছর বয়সী শ্রীকান্ত অজ্ঞান হয়ে লুটিয়ে পড়েন।

তাকে খানাকুল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণা করে। তিনি এক পুত্র ও কন্যা সন্তানের জনক। গ্রামবাসী ও চিকিৎসক জানায়, ম্যাচের উত্তেজনা সহ্য না করতে পেরে হৃদযন্ত্রেরক্রীয়া বন্ধ হয়ে যায় শ্রীকান্তের আর এতেই তার মৃত্যু হয়।
 
এছাড়া, উড়িষ্যায় ২৫ বছর বয়সী এক সমর্থক দলের হার মেনে না নিতে পেরে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। রাজ্য পুলিশ জানায়, কালাহান্দি জেলার সিংভাদি গ্রামের সামারু ভোই বিষ পানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। বন্ধুদের সঙ্গে খেলা দেখার এক পর্যায়ে অতি আত্মবিশ্বাসী হয়ে বাজিও ধরেন ভারতের পক্ষে। কিন্তু ম্যাচ হারার পর হতাশায় ডুবে যান।

পরদিন ভোরে ঘর থেকে বের হয়ে চাষের জমিতে গিয়ে বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরিবারের লোকজন দ্রুত তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে প্রানে বেঁচে যান ভোই। চিকিৎসকরা তাকে শঙ্কামুক্ত ঘোষণা করেছেন।

এছাড়া, ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে একাধিক ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগের ঘটনাও ঘটেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩৩ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১৯
এমকেএম

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-07-12 10:33:34