ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ০৯ জুলাই ২০২০, ১৭ জিলকদ ১৪৪১

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯

সাকিবকে চাপে রেখে বিদায় নিলেন মুশফিক

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-০৭ ০১:১৮:৩১ এএম
সাকিবকে চাপে রেখে বিদায় নিলেন মুশফিক ছবি: সংগৃহীত

৩১৬ রানের বিশাল লক্ষ্য। কিন্তু শুরুটা মোটেও আশা জাগানিয়া হলো না বাংলাদেশের। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার দ্রুত বিদায় নেওয়ার পর চলতি বিশ্বকাপে টাইগারদের বাকি সব ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও হাল ধরেছেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু তাকে সঙ্গ দিতে ব্যর্থ হলেন মুশফিকুর রহিমও। ১৯ বলে ১৬ রানের ইনিংস খেলে পাকিস্তানি পেসার ওয়াহাব রিয়াজের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ফলে আবারও চাপ সামলাতে হচ্ছে সাকিবকেই।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ১৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেট হারিয়ে ৭৮ রান।

চলতি বিশ্বকাপে তামিম ইকবালের ব্যাটিং নিয়ে সমালোচনা কম হয়নি।

পাকিস্তানের বিপক্ষে একই ধারা বজায় রাখলেন তিনি। সৌম্য তবু ২২ বলে ২২ রান করেছেন। তামিম তো খেললেন ২১ বলে ৮ রানের হতাশাজনক এক ইনিংস। পাকিস্তানি পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদির বলে বোল্ড হয়ে ফিরেছেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ইমাম-উল-হকের সেঞ্চুরিতে ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ৩১৫ রান সংগ্রহ করে সরফরাজ আহমেদের দল। বাংলাদেশের সেমিফাইনালের স্বপ্ন আগেই ভেঙে গেছে। শেষ চারে যেতে হলে টাইগারদের বিপক্ষে পাকিস্তানের জিততে হতো ৩১৬ রানে। কিন্তু তারা থেমে গেছে ৩১৫ রানে।

শুক্রবার (০৫ জুন) লর্ডসে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ইমাম-উল-হকের প্রথম বিশ্বকাপ সেঞ্চুরি ও বাবর আজমের ব্যাটে রানের ওঠে পাকিস্তান। সেঞ্চুরি থেকে ৪ রান দূরে দাঁড়িয়ে থাকতে সাইফউদ্দিনের এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন বাবর। তার ৯৮ বলে ৯৬ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১১ চারে। সাজঘরে ফেরার আগে একটি রেকর্ড গড়েন তিনি। বিশ্বকাপের এক আসরে পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৭৪ রান করেন বাবর। এর আগে ১৯৯২ বিশ্বকাপে ৪৩৭ করেছিলের জাভেদ মিঁয়াদাদ।  

বাবর ব্যর্থ হলেও বিশ্বকাপে প্রথম সেঞ্চুরি তুলে নেন ইমাম। চাচা ইনজামাম উল হকের পরে লন্ডনের লর্ডসে দ্বিতীয় পাকিস্তানি হিসেবে সেঞ্চুরি পেয়েছেন ইমাম। ইমামকে হিট উইকেটে আউট করেন মোস্তাফিজুর রহমান। ১০০ বলে করেছেন ১০০ রান করেছেন এই পাকিস্তানি ওপেনার।  

বিশ্বকাপের মঞ্চে এর আগে কোনো পাকিস্তানি দু’টি সেঞ্চুরির দেখা পাননি। ১৯৯২ বিশ্বকাপে একটি করে সেঞ্চুরি করেছিলেন রমিজ রাজা ও আমির সোহেল। ২০১৯ বিশ্বকাপে একই কাজটি করেছেন বাবর ও ইমাম। বাবর সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।

পাকিস্তান তিনশোর্ধ্ব রান পায় ইমাদ ওয়াসিমের ব্যাটে ভর করে। মোস্তাফিজের বলে আউট হওয়ার আগে ২৬ বলে ৪৩ রান করেন তিনি। সাইফউদ্দিন নিজের তৃতীয় শিকার বানান ওয়াহ রিয়াজকে (২)। শাদাব খান (১), মোহাম্মদ আমিরকে (৮) আউট করে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ৫ উইকেট শিকারের মাইলফলক গড়েন মোস্তাফিজ।  

এই মাইলফলক গড়ে গ্যারি গিলমোরকে ছুঁয়েছেন তিনি। ৪৪ বছর আগে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেট নেন এই অস্ট্রেলিয়ান বোলার। আর তামিম ইকবালের পর দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে লর্ডসের অনার্স বোর্ডে নাম লেখাচ্ছেন মোস্তাফিজ। ২০১০ সালে টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করে এই লর্ডসের অনার্স বোর্ডে নাম লেখান তামিম। লর্ডসে যারা সেঞ্চুরি অথবা পাঁচ উইকেট লাভ করে তাদেরকে সম্মান জানানোর জন্য এটি করে লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ড কর্তৃপক্ষ।

২০১৯ বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীদের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে ওঠে এসেছে মোস্তাফিজ। ২৪ উইকেট নিয়ে শীর্ষে আছেন অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক। কাটার মাস্টারের উইকেট ২০টি। এছাড়া দ্রুততম বোলারদের মধ্যে চতুর্থ হিসেবে ১০০ উইকেটের মাইলফলক গড়েছেন মোস্তাফিজ। তিনি এই এই মাইলফলক ছুঁয়েছেন ৫৪ ইনিংসে।

বাংলাদেশ সময়: ২০২৪ ঘণ্টা, জুলাই ০৫, ২০১৯
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa