bangla news

বিশ্বকাপ মাতাবেন যে আট তরুণ ক্রিকেটার

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-০২ ১২:৪৯:০৩ এএম
বিশ্বকাপ মাতাতে পারেন এই তরুণ ক্রিকেটাররা

বিশ্বকাপ মাতাতে পারেন এই তরুণ ক্রিকেটাররা

বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়া যেকোনো ক্রিকেটারের দীর্ঘ দিনের লালিত স্বপ্ন। যদি সুযোগ মিলে যায়, তাহলে পারফর্ম করে বিশ্বকাপ রাঙাতে চেষ্টার কমতি করেন না। এ জন্য নিজের সামর্থ্যের সবটুকু উজাড় করে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরেন নিজের দেশকে।

এবারের বিশ্বকাপে যারা প্রথমবারের মতো খেলতে নামছেন, তাদের আলাদা আনন্দ ও ভিন্ন রকমের রোমাঞ্চ রয়েছে। প্রত্যেকবার বেশি কিছু খেলোয়াড়ের বিশ্বকাপে অভিষেক হয়। নিজেদের সামর্থ্যের জানান দেবার জন্য বিশ্বকাপের চাইতে আর ভালো কোনো মঞ্চ নেই। তাই অভিষেকেই বাজিমাত করতে চান তারা। আর এবারের বিশ্বকাপে তেমন নতুন যেসব খেলোয়াড়ের দ্যূতি দেখানোর সম্ভাবনা রয়েছে, তাদের নিয়েই এই প্রতিবেদন।

মোস্তাফিজুর রহমান (বাংলাদেশ):
অনেকটা ধুমকেতুর মতো যার আগমন। শুরুর লগ্নেই হৈ চৈ রব ফেলে দিয়েছিলেন। সংবাদমাধ্যমে মেতে ওঠে তার প্রতিভা-বন্দনায়। ভারতের সঙ্গে ওয়ানডে অভিষেকেই ছয় উইকেট শিকার। পরের ম্যাচে আবার পাঁচ উইকেট। তাকে নিয়ে তো আলোচনা হবেই। কিন্তু মাঝে মাঝে নিজেকে হারিয়ে ফেললেও যোগ্যতা ও প্রতিভার কমতি নেই বলে বিনা দ্বিধায় স্বীকার করেন ক্রিকেটবোদ্ধারা।

মোস্তাফিজের বোলিংয়ের প্রধান বৈশিষ্ট্য আকস্মিক স্লোয়ার ও কাটার। এই দুটো দিয়ে তিনি অনেক অনেক বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানকে পরাস্ত করেছেন। এরপর থেকে তো পুরো ক্রিকেট বিশ্বে ‘কাটার মাস্টার’ খ্যাতি পেয়ে যান। দেশের আঙিনা ছাড়িয়ে বিদেশের মাটিতেও বোলিংয়ের সেই ক্ষুরধার পারঙ্গম মোস্তাফিজ। বর্তমানে বাংলাদেশের বোলিংয়ের অন্যতম প্রধান অস্ত্র বলা যায় তাকে। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বড় সাফল্য পেতে তাকে অবশ্যই বড় ভুমিকা রাখতে হবে।

বিজয় শংকর (ভারত):
তামিলনাডুর এই ক্রিকেটার ভারতীয় এ দলের হয়ে ব্যাটে-বলে ভালোই সময় কাটিয়েছেন। স্ট্রাইকরেট ধরে রাখা ও বিগ শট খেলা—দুটোতেই তার দক্ষতা আছে। লিস্ট ‘এ’তে তার গড় ৩৬.৬৫ এবং স্ট্রাইকরেট ৯২ এর ওপর। দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ের সঙ্গে মোটামুটি কার্যকরী বোলিংয়ের মিশেল তাকে করেছে তাকে দারুণ অলরাউন্ডারে পরিণত করেছে। এবারের বিশ্বকাপে নতুন চমক আসতে পারে তার কাছ থেকেও।

শাই হোপ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ):
কয়েক বছরের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের তালিকা করা হলে শাই হোপের নাম থাকবে শুরুর দিকেই। বিশ্বকাপে ক্রিস গেইলের সঙ্গে তাকে ওপেনিংয়েও দেখা যাচ্ছে। তার সামর্থ্য নিয় কোনো প্রশ্ন নেই। ধীরগতির ব্যাটিংয়ের কারণে কিছুদিন সমালোচনার শিকার হলেও ইদানিং মারকাটারি ব্যাটিংয়ের কারণে আলোচনায়। বিশ্বকাপে কিছু দুর্দান্ত ইনিংস খেলে দেখাতে পারেন নিজের ব্যাটিং ঝলক।

রশিদ খান (আফগানিস্তান):
ইতিমধ্যে তারকা খেতাব পেয়ে গেছেন তিনি। বিচক্ষণ ও বৈচিত্রপূর্ণ স্পিনে রীতিমতো নাকাল করছেন বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের। এবারের বিশ্বকাপ তার প্রথম। প্রথম হলেও বলা যায়, তার দলের ভাগ্য অনেকটাই নির্ভর করছে তার বোলিংয়ের উপর। পাশাপাশি ব্যাটিংয়ে অতো আহামরি না হলেও খারাপ নয়। কিছুদিন আগেই সাকিব আল হাসানের কাছে ওয়ানডে অলরাউন্ডারের শীর্ষ স্থান হারিয়েছেন। তবে বিভিন্ন টি-টোয়েন্টি লিগে বড় বড় তারকাদের সঙ্গে খেলার অভিজ্ঞতা তাকে কাজে দেবে নিশ্চয়ই।

উসমান খাজা (অস্ট্রেলিয়া):
স্মিথ ও ওয়ার্নার যখন দলে প্রায় বারো মাস নিষিদ্ধ ছিলেন, তখন উসমান খাজা দলের অন্যতম ত্রাতার ভূমিকা পালন করেন। ওই সময়ে খাজা ১৩ ওডিআই খেলে ৮টিতে পঞ্চাশোর্ধ ইনিংস উপহার দেন। সর্বশেষ ভারত-অস্ট্রেলিয়ার ওডিআই সিরিজে সর্বোচ্চ রান ছিল তার। এমন দুর্দান্ত ফর্মের কারণে বিশ্বকাপে নিজের জায়গা পাকাপোক্ত করে নেন খাজা। নিজের প্রথম বিশ্বকাপটা ভালোভাবেই রাঙাতে চাইবেন অসি ব্যাটসম্যান।

কুশল মেন্ডিস (শ্রীলংকা):
যেকোনো বোলিংয়ের বিরুদ্ধে বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের ক্ষমতা রয়েছে তার। সাম্প্রতিক সময়ে দল যখন বারবার হিমশিম খাচ্ছে, তখন কুশাল মেন্ডিস জ্বলে উঠেছেন উইলো হাতে। প্রতিকূল অবস্থার মোকাবেলা করতে পছন্দ করেন এই লংকান। শ্রীলংকার এই সংগ্রামী সময়ে তার ভালো পারফরমেন্স বিশ্বকাপে বাঁচাতে পারে তার দলকে।

ইমাম উল হক (পাকিস্তান):
১৯৯২ সালে পাকিস্তান যেবার বিশ্বকাপ জিতেছিল, সেবার পাকদের আনসাং হিরো ছিলেন ইনজামাম-উল-হক। এবার বিশ্বকাপ খেলবেন তারই ভাতিজা ইমাম-উল-হক। ছোট ক্যারিয়ারে এই খেলোয়াড়ের রয়েছে কিছু অসাধারণ ইনিংস। স্টাইলিশ এই ওপেনারের চোখধাঁধানো টেকনিক ও ব্যাটিং স্কিলও নজর কাড়ে সবার। ২৩ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার বিশ্বকাপে ভালো কিছু করতে নিশ্চয় কুণ্ঠাবোধ করবেন না।

টম ল্যাথাম (নিউজিল্যান্ড):
স্পিন বা পেস—দুটোতেই তার দক্ষতা রয়েছে। বিশ্বকাপে পাঁচ নম্বর পজিশনে খেলবেন, যা কোনো দলের অন্যতম প্রধান স্থান। দলের রান বড় করার পেছেনে তার অবশ্যই অবদান রাখতে হবে। অন্তত যখন ইনিংসের মধ্যখানে বিশেষ করে লেগস্পিনাররা খুব বাঁধা হয়ে যায়, তখন বিশ্বকাপে ভালো কিছু দেখাতে এ কিউই ক্রিকেটার জ্বলে উঠবেন আশা করা যায়।

বাংলাদেশ সময়: ০০৪৮ ঘণ্টা, জুন ০১, ২০১৯
এইচএমএস/এমএমইউ/এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-06-02 00:49:03