bangla news

বিশ্বকাপ ইতিহাসে সেরা ৫ বোলার

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-০১ ৪:৩৩:৩৫ পিএম
বিশ্বকাপ ইতিহাসে সেরা ৫ বোলার-ছবি:বাংলানিউজ

বিশ্বকাপ ইতিহাসে সেরা ৫ বোলার-ছবি:বাংলানিউজ

তাদের হাস্যোজ্জ্বল মুখ দেখে বোঝার উপায় নেই, বল হাতে কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারেন তারা। হাতে আগুন ঝরিয়ে সরল হাসিতে ফেটে পড়েন উল্লাসে। তাইতো তারা এগিয়ে থাকেন। আর বিশ্বকাপ ইতিহাসের মাঠে এগিয়ে থাকা এমন ৫ জন বোলারকে তুলে ধরা হলো এই প্রতিবেদনে।

০১. গ্লেন ম্যাকগ্রা:
অস্ট্রেলিয়ার পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৯৪৯টি উইকেট শিকার করেন, যা ফাস্ট বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ। ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বকালের সেরা পেসারের তালিকা তৈরি করলে তার নামটা উপরেই থাকবে। এই কিংবদন্তি পেসার অস্ট্রেলিয়ার হয়ে চারটি বিশ্বকাপ খেলেছেন। আর নিজের চার বিশ্বকাপের সবগুলো বিশ্বকাপে ফাইনাল খেলেছেন তিনি, যার মধ্যে তিনবার জয়ী দলের সদস্য ছিলেন।

গ্লেন ম্যাকগ্রা বিশ্বকাপে মোট ৩৯ ম্যাচ খেলে ১৮.১৯ বোলিং গড়ে এবং ২৭.৫ স্ট্রাইকরেটে ৭১ উইকেট শিকার করেছেন। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ৪২টি মেডেন ওভার বল করেছেন এই পেসার। রান দেওয়ার দিক থেকে বরাবরই মিতব্যয়ী থাকা এই ম্যাকগ্রা ওভারপ্রতি রান দিয়েছেন মাত্র ৩.৯৬। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সেরা বোলিং ফিগারও তার দখলে।

০২. মুত্তিয়া মুরালিধরন:
মুত্তিয়া মুরালিধরন ১৯৯৬ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত মোট পাঁচটি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন। তার খেলা পাঁচ বিশ্বকাপের মধ্যে শ্রীলঙ্কা তিনবার ফাইনাল খেলেছিল। এর মধ্যে ১৯৯৬ সালে বিশ্বকাপে তারা শিরোপা ঘরে তোলে। তিনি ৪০ ম্যাচের মধ্যে ৩৯ ইনিংসে বোলিং করে ১৯.৬৩ বোলিং গড়ে এবং ৩০.৩ স্ট্রাইকরেটে ৬৮ উইকেট শিকার করেছেন। ইনিংসে পাঁচ উইকেট শিকার না করলেও চারবার চার উইকেট শিকার করেছেন তিনি।

১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপে মুরালিধরন ছয় ম্যাচ খেলে ৩০.৮৫ ব্যাটিং গড়ে সাত উইকেট শিকার করেছিলেন। মাত্র সাত উইকেট শিকার করেই আসরে শ্রীলঙ্কার হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার করার রেকর্ডও গড়েছেন এই বোলার।

দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ আসরে স্পিনারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার করেছিলেন তিনিই। বিশ্বকাপে তার উইকেট সংখ্যা ৬৮টি, যা স্পিনারদের মধ্যে বিশ্বকাপে দ্বিতীয় সর্বাধিক উইকেট শিকার করা ড্যানিয়েল ভেট্টোরির (৩৬) তুলনায় ৩২ উইকেট বেশি।

০৩. ওয়াসিম আকরাম:
আর সব বিখ্যাত বোলারদের মতোই ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালে ব্যাটে-বলে ওয়াসিম আকরামের অসাধারণ নৈপুণ্যে শিরোপা ঘরে তোলে পাকিস্তান। ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট হাতে মাত্র ১৮ বলে ৩৩ রান করার পর বল হাতে তিন উইকেট শিকার করেছিলেন, যার মধ্যে অ্যালান লাম্ব এবং ক্রিস লুইসকে পরপর দুই বলে ফিরিয়ে ইংল্যান্ডকে ব্যাকফুটে ঠেলে দেন। ঐ আসরে সবচেয়ে বেশি ১৮ উইকেট শিকার করেছিলেন ওয়াসিম আকরাম।

১৯৮৭ আসরে সাত ম্যাচে ৪২.১৪ বোলিং গড়ে সাত উইকেট শিকার করেছিলেন। এরপর ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপে তার উইকেটের সংখ্যা ১৮টি। এছাড়া ওয়াসিম আকরাম বিশ্বকাপে ৩৮ ম্যাচে ২৩.৮৩ বোলিং গড়ে ৫৫ উইকেট শিকার করেছিলেন। ইনিংসে পাঁচ উইকেট একবার এবং চার উইকেট দুইবার শিকার করেছিলেন।

ওয়াসিম আকরাম তার ক্যারিয়ারে বহু উইকেট শিকার করলেও সবচেয়ে বেশি স্মরণীয় হয় থাকবে ‘৯২ এর বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পরপর দুই বলে দুই উইকেট। আর সেই কারণেই হয়তো পাকিস্তান শেষ পর্যন্ত ঘরে তুলেছিল বিশ্বকাপ।

০৪. চামিন্দা ভাস:
শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট ইতিহাসে অন্যতম সেরা পেসার চামিন্দা ভাস। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত মোট চারটি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার হয়ে তিনি বিশ্বকাপে মোট ৩১ ম্যাচ খেলে ২১.২২ বোলিং গড়ে ৪৯ উইকেট শিকার করেছিলেন। ১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপে ছয় ম্যাচে ৩২.১৬ বোলিং গড়ে ৬ উইকেট এবং ওভার প্রতি খরচ করেছিলেন মাত্র ৩.৯৩ রান।

চামিন্দা ভাস ২০০৩ সালের বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে ইনিংসের প্রথম ওভারের প্রথম তিন বলে হ্যাটট্রিক করেন। একইসাথে প্রথম ওভারে চার উইকেট শিকার করেছিলেন।

শ্রীলঙ্কা ২০০৭ সালের বিশ্বকাপ ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজিত হয়ে রানার্সআপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকে। চামিন্দা ভাস এই আসরের মধ্য দিয়ে নিজের বিশ্বকাপ ক্যারিয়ারের ইতি টেনেছিলেন। তিনি এই বিশ্বকাপে দশ ম্যাচে ২২.০০ বোলিং গড়ে এবং মাত্র ৩.৬৮ ইকোনোমি রেটে ১৩ উইকেট শিকার করেছিলেন।

০৫. জহির খান:
ভারতের বাঁহাতি পেসার জহির খান দলের হয়ে খেলেছেন তিনটি বিশ্বকাপ। এর মধ্যে ভারত ২০১১ সালে চ্যাম্পিয়ন এবং ২০০৩ সালে রানার্সআপ হয়ে টুর্নামেন্ট শেষ করেছিল। এই দুই আসরেই দুর্দান্ত বোলিং করে জহির খান। তিনি বিশ্বকাপে ভারতের হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার করেছেন; মোট ২৩ ম্যাচে ২০.২২ বোলিং গড়ে তার উইকেট সংখ্যা ৪৪টি।

জহির খান ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সুপার সিক্সের ম্যাচে ৪২ রান খরচায় চার উইকেট শিকার করে দলকে গুরুত্বপূর্ণ জয় এনে দিয়েছিলেন। পুরো টুর্নামেন্টজুড়ে দুর্দান্ত বোলিং করে ভারতের সর্বোচ্চ উইকেটসংগ্রাহক ছিলেন তিনি। ১১ ম্যাচে ২০.৭৭ বোলিং গড়ে ১৮ উইকেট শিকার করেছিলেন তিনি।

বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক হিসাবে এই পাঁচ বোলারের নাম থেকে যাবে হয়তো আরো কয়েকটি বিশ্বকাপ। তবে পুরনোদের ভিড়ে নতুনরা এসে জায়গা করে নেবে, এমনটাও আশা বিশ্বের ক্রিকেট মোদীদের।

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৬ ঘণ্টা, জুন ০১, ২০১৯
এইচএমএস/এমএমএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-06-01 16:33:35