ঢাকা, বুধবার, ২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জুলাই ২০১৯
bangla news

‘২০০৩’ বাংলাদেশের ভুলে যাওয়ার মতো বিশ্বকাপ

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৫-২৭ ৭:৩৯:০১ পিএম
তৃতীয় ও টানা দ্বিতীয় শিরোপা ঘরে তোলে অস্ট্রেলিয়া-ছবি:সংগৃহীত

তৃতীয় ও টানা দ্বিতীয় শিরোপা ঘরে তোলে অস্ট্রেলিয়া-ছবি:সংগৃহীত

৩০ মে পর্দা উঠবে ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ লড়াই বিশ্বকাপের ১২তম আসরের। সে উপলক্ষ্যে গত আসরগুলোর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি তুলে ধরা হচ্ছে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস বিশ্বকাপের মূল লড়াইয়ের আগে। এবারের আয়োজনে থাকছে ২০০৩ দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ।

ভূমিকাপর্ব: ইউরোপ-এশিয়া-অস্ট্রেলিয়া মহাদেশ ঘুরে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের আসর বসে আফ্রিকায়। ২০০৩ বিশ্বকাপ নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে থাকবে ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে। ঘরের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার ভরাডুবি, কেনিয়ার চমক, বাংলাদেশের পতন ও ভারতকে হারিয়ে টানা দ্বিতীয়বার শিরোপা ঘরে তোলে অস্ট্রেলিয়া।

আয়োজক: জিম্বাবুয়ে এবং কেনিয়াকে সঙ্গে নিয়ে ২০০৩ বিশ্বকাপের আয়োজন করে দক্ষিণ আফ্রিকা। আফ্রিকার জীববৈচিত্র্যকে উপস্থাপন করে অফিসিয়াল মাস্কটের নাম দেওয়া হয় ‘ড্যাজল।’

অংশগ্রহণকারী দেশ: প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের অষ্টম আসরে অংশগ্রহণ করে ১৪ দেশ। আইসিসির পূর্ণাঙ্গ দশ সদস্য এবং চার সহযোগী-সদস্য। ’৯৯ বিশ্বকাপের পরের বছরেই টেস্ট মর্যাদা পায় বাংলাদেশ। ২০০১ আইসিসি ট্রফি জিতে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের মূল মঞ্চের টিকেট কাটে নেদারল্যান্ডস। এছাড়া সহযোগী হিসেবে কানাডা ও কেনিয়াও আসে মূল মঞ্চে। অভিষেক হয় নামিবিয়ার।

ভেন্যু: দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ আয়োজিত হয় ১৫টি ভেন্যুতে। তার মধ্যে প্রোটিয়াদের ১২ ভেন্যুতে হয় ৪৬ ম্যাচ। জিম্বাবুয়ে তাদের ৬ ম্যাচ আয়োজন করে ২ ভেন্যুতে। কেনিয়া তাদের ২ ম্যাচ আয়োজন করে নাইরোবিতে।

গ্রুপ পর্ব: ’৯৯ বিশ্বকাপের মতো এবারও দলগুলোকে দুই গ্রুপে ভাগ করা হয়। ‘এ’ গ্রুপে ছিল অস্ট্রেলিয়া, ভারত, জিম্বাবুয়ে, ইংল্যান্ড, পাকিস্তান, নেদারল্যান্ডস ও নামিবিয়া। ‘বি’ গ্রুপে বাংলাদেশ প্রতিপক্ষ হিসেবে পায় শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, কেনিয়া ও কানাডা।

’০৩ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ: অভিষেক বিশ্বকাপে চমক দেখালেও দ্বিতীয় বিশ্বকাপে এসেই ভরাডুবি হয বাংলাদেশের। স্মৃতি থেকে মুছে ফেলার মতো বিশ্বকাপ কাটে টাইগারদের। ছয় ম্যাচের একটিতেও জয় পায়নি তারা। এমনকি কানাডা-কেনিয়ার বিপক্ষে হারের যন্ত্রণা ও শূন্য পয়েন্ট নিয়ে ঘরে ফিরেন আকরাম খান-খালেদ মাসুদরা।

মূল লড়াই শুরু: ০৯ ফেব্রুয়ারি, স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হয় বিশ্বকাপের অষ্টম আসর। উদ্বোধনী ম্যাচে হারের ক্ষতটা আর শুকিয়ে উঠতে পারেনি প্রোটিয়ারা। বিদায় নেয় গ্রুপ পর্ব থেকে।

তবে আফ্রিকার দুঃখ মুছে দিয়েছিল কেনিয়া। যারা কিনা বিশ্বকাপের টিকেট পেয়েছিল বাছাইপর্ব খেলে। সেই কেনিয়া একে একে শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ড (ওয়াকওভার জয়), বাংলাদেশ ও কানাডাকে হারিয়ে জায়গা করে নেয় সুপার সিক্সে। সেখানেও জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠে তারা। শেষ চারে তারা হেরে যায় ভারতের মতো পরাশক্তির বিপক্ষে। আরেক সেমিতে শ্রীলঙ্কার ওপর প্রতিশোধ নিয়ে ফাইনালে ওঠে অস্ট্রেলিয়া।

শিরোপা উৎসব:  ২৩ মার্চ, জোহেন্নেসবার্গের ফাইনালে কোনো প্রতিরোধই করতে পারেনি ভারত। রিকি পন্টিংয়ে ঝড়ো সেঞ্চুরিতে ৩৫৯ রানের পাহাড়সম সংগ্রহ দাঁড় করায় অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ১২৫ রানে হারে ভারত। টানা দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জয়ের আনন্দে মেতে উঠে অজিরা।

পরিসংখ্যান: ফাইনালে ব্যর্থ হলেও ‘ম্যান অব দ্য সিরিজ’ হন শচীন টেন্ডুলকার। ভারতীয় কিংবদন্তি টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ ৬৭৩ রান সংগ্রহ করেন। সর্বোচ্চ ২৩ উইকেট নেন শ্রীলঙ্কার চামিন্দা ভাস।

রেকর্ড কর্নার: টেস্ট স্ট্যাটাস না পাওয়া প্রথম দেশ হিসেবে সেমিতে খেলে কেনিয়া। সেই রেকর্ড এখনো অক্ষুন্ন আছে।

টুকিটাকি: ২০০৩ বিশ্বকাপ জন্ম দিয়েছিল নানা বিতর্কের। অাসর শুরুর একদিন অাগে ড্রাগ নেওয়ায় নিষিদ্ধ হন অস্ট্রেলিয়ান লেগ স্পিনার শেন ওয়ার্ন। নিরাপত্তার অজুহাতে কেনিয়ায় খেলতে যায়নি নিউজিল্যান্ড এবং জিম্বাবুয়ে যায়নি ইংল্যান্ড। ডার্ক লুইস মেথড (ডিএল) নিয়মে এক রানে কপাল পুড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার। গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো পরাশক্তির দলগুলো।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৪ ঘন্টা, মে ২৭, ২০১৯
ইউবি/এমএমএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-05-27 19:39:01