আমে ইথোফেন ব্যবহার ক্ষতিকর নয়
[x]
[x]
ঢাকা, সোমবার, ৪ ভাদ্র ১৪২৫, ২০ আগস্ট ২০১৮
bangla news

আমে ইথোফেন ব্যবহার ক্ষতিকর নয়

বাংলানিউজ টিম | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৬-০২ ১:৩৪:৪১ পিএম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তেরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা-ছবি: ডি এইচ বাদল ও আরিফ জাহান

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তেরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা-ছবি: ডি এইচ বাদল ও আরিফ জাহান

রাজশাহী চেম্বার ভবন থেকে: আম পাকবে প্রাকৃতিক নিয়মে। কিছু আম তিন, পাঁচ, সাত দিনে পাকবে। কিন্তু ব্যাবসায়ী কিংবা কৃষক বলছেন, একদিনেই পাকা দরকার। তারা ইথোফেন ব্যবহার করছেন। ইথোফেন ব্যবহার কিন্তু ক্ষতিকর নয়। ইথোফেন সেফ। তবে চাষিরা যেন নিরাপদে ব্যবহার করতে পারেন সেটি নিশ্চিত হওয়া দরকার।

বাংলানিউজ আয়োজিত ‘আমের দেশে নতুন বেশে’ শীর্ষক বিশেষ আলোচনা সভায় শনিবার (২ জুন) অংশ নিয়ে একথা বলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তেরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা। 

নিউজটোয়েন্টিফোর ও রেডিও ক্যাপিটালের সিইও এবং বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত রয়েছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক এস এম আব্দুল কাদের।

মঞ্জুরুল হুদা বলেন, চাঁপাইয়ে দ্রুত আম বাগান বাড়ছে। আবহাওয়া ও মাটি বাগানের উপযোগী। তাই মানুষ অন্য ফসল বাদ দিয়ে আমের দিকে ঝুঁকছে। নিরাপদ আম উৎপাদনের জন্য ১০ ব্যাচ করে প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। এবছর ৩শ জন প্রশিক্ষণের আওতায় এসেছে। এবছর এক হাজার আম চাষ নির্দেশিকা প্রকাশ করেছি।

‘মাঝারি মানের ব্যাগ ব্যবাসায়ী পৌনে নয় লাখ ব্যাগ বিক্রি করেছে বলে জানিয়েছে। এটা পরিবেশের জন্য ভালো। রাজশাহীর বাজারদর ভালো না। অথচ গড় ফলন বিঘাপ্রতি ৩০-৩২ মণ। ৮০ টাকা হলে ২৪ হাজার টাকা হয়। এর এক তৃীতায়াংশ খরচ। বছরে ১৫ থেকে ১৭ হাজার আয় করছে। এটা বাড়ানো দরকার।’

তিনি আরও বলেন, আম নিয়ে অনেক প্রত্যাশা। কোয়ালিটি আম বাড়ছে। তাই চাষিরা যেন দাম পায়। চাষিরা যেন হয়রানির শিকার না হয়। বিশ্বের অন্য দেশে যেন আম পৌঁছে যায়, সে উদ্যোগ নেওয়া দরকার।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত রয়েছেন বাংলানিউজের কনসালট্যান্ট এডিটর জুয়েল মাজহার, চট্টগ্রাম ব্যুরো এডিটর তপন চক্রবর্তী, রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুব্রত পাল, আম চাষি ও ব্যবসায়ী ইসমাঈল খান শামীম, আম চাষি ও ব্যবসায়ী খন্দকার মনিরুজ্জামান মিনার, রাজশাহী অ্যাগ্রো ফুড প্রডিউসার সোসাইটির আহ্বায়ক মো. আনোয়ারুল হক, আম গবেষক ও লেখক মো. মাহাবুব সিদ্দিকী, আম চাষি ও ব্যবসায়ী (বাঘা) মো. জিল্লুর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ আম গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শরফ উদ্দিন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩৩ ঘণ্টা, জুন ০২, ২০১৮
এসসিডি/এমবিএইচ/ইইউডি/এসএম/এমআই/জেডএস/এএ-

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   আম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa