শনিবার ইউএস-বাংলার ‘কাস্টমার সাকসেস সামিট’
[x]
[x]
ঢাকা, বুধবার, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৫ আগস্ট ২০১৮
bangla news

শনিবার ইউএস-বাংলার ‘কাস্টমার সাকসেস সামিট’

এভিয়াট্যুর ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৩-০৯ ১০:৪৩:১১ এএম
ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

ঢাকা: দ্বিতীয়বারের মতো কাস্টমার সাকসেস সামিটের আয়োজন করতে যাচ্ছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। এ সম্মেলনে ইউএস-বাংলার দেশি-বিদেশি ট্রাভেল এজেন্টরা অংশ নেবেন। সম্মেলনের লক্ষ্য দেশি-বিদেশি ট্রাভেল এজেন্টদের মধ্যে সেতুবন্ধন, ট্রাভেল এজেন্সি ব্যবসাকে উৎসাহিত করা।

সম্মেলনে দেশের বাইরে থেকে বিশেষ করে কাতার, ওমান, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, নেপাল ও ভারত থেকে ইউএস-বাংলার প্রায় দুই শতাধিক ট্রাভেল পার্টনার অংশ নেবেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিশেষত রাজধানী ঢাকা, বন্দরনগরী চট্টগ্রাম, চায়ের দেশ সিলেট, ম্যাঙ্গোসিটি হিসেবে খ্যাত রাজশাহী, দক্ষিণাঞ্চলের জেলা বরিশাল, পূর্বাঞ্চলীয় জেলা যশোর-খুলনা, উত্তরাঞ্চলীয় জেলা রংপুর, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী থেকে প্রায় ছয় শতাধিক ট্রাভেল এজেন্ট ও কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা সম্মেলনে অংশ নেবেন।

শনিবার (১০ মার্চ) কক্সবাজারের লংবিচ হোটেল বলরুমে আয়োজিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল।

সম্মেলনে সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থার উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। এছাড়া বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডিয়ান হাইকমিশনার বেনিয়ট প্রিফনটেইন, আটাবের নেতৃবৃন্দ ও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তরা উপস্থিত থাকবেন।

সামিটে উল্লেখযোগ্য অংশের মধ্যে রয়েছে বেস্ট সেলার অ্যাওয়ার্ড, ট্রাভেল ও কর্পোরেট পার্টনারদের সাথে ইউএস-বাংলার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতে ফানুস ফেস্টিভালসহ আরো অনেক ইভেন্ট। এছাড়া ইউএস-বাংলা অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গন্তব্যের ট্রাভেল এজেন্টদের মধ্যে যারা বেস্ট সেলার নির্বাচিত হয়েছে তাদের মধ্যে সম্মাননা স্মারক ও সার্টিফিকেট বিতরণ করা হয়।

‘ফ্লাই ফাস্ট-ফ্লাই সেফ’ স্লোগান নিয়ে ১৭ জুলাই ২০১৪ তারিখে ৭৬ আসনবিশিষ্ট দু’টি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ঢাকা-যশোর ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে যাত্রা শুরু করা ইউএস-বাংলা। অভ্যন্তরীণ সকল রুটসহ সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর, ব্যাংকক, দোহা, মাস্কাট, কাঠমুন্ডু ও কলকাতা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে এয়ারলাইন্সটি। বর্তমানে ইউএস-বাংলার বিমান বহরে চারটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ ও চারটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট রয়েছে। 

২০১৮ সালের মধ্যে আরো তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০, তিনটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এবং দু’টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ইআর এয়ারক্রাফট বিমান বহরে যুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে ইউএস-বাংলার। খুব শিগগিরই বাংলাদেশের প্রথম বিমানসংস্থা হিসেবে চীনের অন্যতম বাণিজ্যিক গন্তব্য গুয়াংজুহ রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। 

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স বর্তমানে সপ্তাহে প্রায় ৩০০টি ফ্লাইট পরিচালনা করে যাত্রা শুরুর পর থেকে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে প্রায় ৩৫,০০০ ফ্লাইট পরিচালনা করেছে যা বাংলাদেশের এভিয়েশন ইতিহাসে একটি রেকর্ড।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩৭ ঘণ্টা, মার্চ ০৯, ২০১৮
এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa