[x]
[x]
ঢাকা, সোমবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২০ নভেম্বর ২০১৭

bangla news

এই তো সবুজ মায়ার নিঝুম দ্বীপ

এরশাদুল আলম প্রিন্স, ল’ এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০২-১১ ৩:৫১:০২ পিএম
সবুজে মোড়ানো অনিন্দ্য সুন্দর নিঝুম দ্বীপ। ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সবুজে মোড়ানো অনিন্দ্য সুন্দর নিঝুম দ্বীপ। ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

নিঝুম দ্বীপ থেকে ফিরে: হাতিয়া থেকে জাহাজমারা বাজার। এরপর আঁকা-বাঁকা অনেকটা পথ পেরিয়ে মুক্তারিয়া ঘাট। ঘাটের ওপারেই নিঝুম দ্বীপ। এপার থেকে তাকালে দূরে দেখা যায় নিঝুম দ্বীপ। বঙ্গোপসাগরের স্বচ্ছ নীল জলরাশি হাতিয়া থেকে নিঝুম দ্বীপকে বিচ্ছিন্ন করেছে। 

দু’ দ্বীপেরই চারদিকে জলরাশি। মুক্তারিয়া ঘাট থেকে নিঝুম দ্বীপ যাওয়ার জন্য একটি মাত্র খেয়াঘাট। সেই খেয়াঘাটে একটিমাত্রই ট্রলার। নৌকা যাত্রী নিয়ে নিঝুম দ্বীপ যায়, আবার সেখান থেকেই যাত্রী নিয়ে ফেরে মুক্তারিয়া ঘাটে। আগের দফার যাত্রীদের নিয়ে ট্রলার ফিরে আসার পর অপেক্ষা ঘুচলো, এবার ওঠার পালা।পেছন বঙ্গোপসাগরের জলরাশি, সামনে সবুজে মোড়ানো অনিন্দ্য সুন্দর নিঝুম দ্বীপ। ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমবাঁশের সিঁড়ি বেয়ে ট্রলারে উঠতে হলো অন্য সবার মতোই। প্রায় ৫০ জন যাত্রী, ৪টি বাইসাইকেল আর ৫টি মোটরসাইকেল নিয়ে নৌকা ছাড়লো। সেইসঙ্গে উঠলো আরও কয়েকটি হাস-মুরগি ও একটি মাদি ছাগল।

ট্রলারের মাঝি তার ইঞ্জিন চালু করলেন। সুইচ চাপতেই ইঞ্জিন চালু হওয়ার ট্রলার নয়। ট্রলারের ইঞ্জিনে হাতলটি ঠিকমতো সেট করে ৮-১০ বার ঘোরানো লাগলো সবেগে, তারপর ইঞ্জনটি চালু হলো। ইঞ্জিনের পাওয়ার কন্ট্রোলারের সঙ্গে বাধা সুতোটি নিয়ে চালক অসংখ্য যাত্রীর মাঝে কোথায় যেনো হারিয়ে গেলেন। পরে বোঝা গেল, তিনি পেছনে দাঁড়িয়ে বৈঠা নিয়ন্ত্রণ ও সুতা টেনে ট্রলারের ইঞ্জিন নিয়ন্ত্রণ করছেন। এ কাজে তার কোনো সহযোগী নেই। শুধু ভাড়া ওঠানোর জন্য একজন আছেন। মুক্তারিয়া ঘাট থেকে নিঝুম দ্বীপ যাওয়ার জন্য একটিমাত্রই ট্রলার। ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমযাত্রা শেষে ট্রলার ভিড়লো নিঝুম দ্বীপে। পেছন ফিরে তাকালাম- বঙ্গোপসাগর; আর সামনে- সবুজে মোড়ানো অনিন্দ্য সুন্দর নিঝুম দ্বীপ। বাঁশের সিঁড়ির পথ বেয়ে ঘাটে পা পড়লো। ঘাটেই কয়েকটি মুদি দোকান ও চা স্টল। 

হাতে সময় কম। তাই আর দেরি না করে তাড়াতাড়ি মোটরসাইকেলে চেপে বসতে হলো। হাতিয়ার মতোই সোজা একটি সড়ক নিঝুম দ্বীপের মাঝখান দিয়ে চলে গেছে শেষপ্রান্তে। এটিই নিঝুম দ্বীপের প্রধান সড়ক। দুই পাশ দিয়ে গড়ে উঠেছে লোকালয়। রাস্তা ধরেই এগিয়ে চলা নিঝুম দ্বীপের রূপ উপভোগে।সবুজে মোড়ানো অনিন্দ্য সুন্দর নিঝুম দ্বীপ। ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম  পথ যতো যাই, মনে হয় নিঝুম দ্বীপে যেন প্রকৃতির উপহার এ সবুজ শ্যামলিমার দেশে। শহরের সংসর্গ ছেড়ে এমনকি হাতিয়া থেকেও নিজেকে আলাদা করে রাখা দ্বীপটি যেন এ কারণেই আলাতা হয়ে আছে। ধীরে ধীরে নিঝুম দ্বীপের গভীর থেকে আরও গভীরে যেতে থাকলো মোটরসাইকেল।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৭ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৭
এইচএ/

আরও পড়ুন
** ডাকে নিঝুম দ্বীপ, ভেঙচি কাটে অবহেলিত সড়ক
** হাতিয়া যাওয়ার পথে একটি সকাল
** হাতিয়ায় যাওয়া সহজ, আসা কঠিন

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পর্যটন বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

FROM AROUND THE WEB
Loading...
Alexa