[x]
[x]
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৮ ফাল্গুন ১৪২৪, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

bangla news

ট্রাম্পের দেশের মুদ্রার লাফিয়ে চলা স্থবির করে দিয়েছে প্রবাসীদের

জাহিদুর রহমান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০১-৩০ ৬:৪৫:৩৪ এএম
ইউএস ডলার ও মিশরীয় পাউন্ড

ইউএস ডলার ও মিশরীয় পাউন্ড

ইসমাইলিয়া (মিশর) থেকে: শিল্প শহর ইসমাইলিয়ায় এখন কর্মহীন হয়েই পথে পথে ঘুরে বেড়ান শরিয়তপুরের আব্দুল আজিজ। ছবি তুলতে চাইলাম। সবিনয় আপত্তি। আজিজ তাই ছন্দনাম। নিজের ছবি কাগজে প্রকাশিত হোক- এমনটিও চান না কোনভাবেই।

বাড়াতে চান না দেশে থাকা স্বজনদের উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠা। তাই ছদ্মনামেই কথা বলেন বাংলানিউজের সাঙ্গে। অকপটেই বললেন,‘কাজ

নেই। নেই দেশে ফেরারও কোন উপায়। তাই কাজের সন্ধানে ঘোরাঘুরি করেই সময় কাটে।’

কেবল আজিজ একা নন। তার মতো অনেক প্রবাসীই এখন কর্মহীন। বেকার হয়ে ঘুরছেন কাজের সন্ধানে। কেউ বা বেঁচে থাকার সংগ্রামে। সবার পরিস্থিতিই এখন সঙ্গিন। আর এই পরিস্থিতির নেপথ্যে ‘নায়কই’ হচ্ছে ট্রাম্পের দেশের মুদ্রা। ইউএস ডলার আর তার লাফিয়ে চলা।

ইউএস ডলারের বিপরীতে দিন দিন পতন হচ্ছে স্থানীয় মুদ্রা মিশরীয় পাউন্ডের দর। এভাবে পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চার্যের দেশের মুদ্রা অবমূল্যায়িত হতে হতে এখন বেসামাল দেশটির গোটা অর্থনীতি। বিনিয়োগ হ্রাস,বাণিজ্য ঘাটতি, বেকারত্ব, মূল্যস্ফীতিসহ নানা কারণে কমছে স্থানীয় মুদ্রার মূল্যমান।

বিপরীতে হু হু করে বাড়ছে ডলারের দাম। যে কারণে বাড়ছে তেলসহ নিত্য আমদানী পণ্য। ফলাফল অর্থনীতির অনিবার্য বিরূপ প্রতিক্রিয়া।

সভ্যতার ইতিহাসের সবচেয়ে সমৃদ্ধ দেশটির এই নাজুক অর্থনীতি বেকায়দায় ফেলেছে এখানকার প্রবাসীদের।

ধরা যাক আব্দুল আজিজের কথাই। দালালদের মাধ্যমে পর্যটক বেশে তিনি এ দেশে এসেছিলেন প্রায় সাত বছর আগে।

একটি তৈরি পোশাক কারখানায় সুপারভাইজার পদে কাজ করে বেতন পেতেন ৩শ’ ডলার। বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ২৪ হাজার টাকা। স্থানীয় মুদ্রায় (সে সময়ে এক ডলারে = ১২ পাউন্ড হিসেবে) ৩৬শ’ পাউন্ড।

তবে দিন দিন মিশরীয় মুদ্রার অবমূল্যায়ন হওয়ায় এখন আর আগের মতো বেতন ভাতা পাচ্ছেন না প্রবাসীরা। যে কারণে পরিস্থিতির শিকার হয়েই ছাটাঁই হচ্ছেন প্রবাসী কর্মিরা। অনেকে আবার ছাটাঁইয়ের অপেক্ষায়।

আব্দুল আজিজ বাংলানিউজকে জানান, এখন আমাকে আগের বেতন অর্থাৎ ৩শ’ ডলার দিতে হলে তা মিশরীয় মুদ্রায় খরচ হবে প্রায় ৬ হাজার মিশরীয় পাউন্ড। এই বর্ধিত বেতনে আমাকে আর কর্মস্থলে রাখতে চাইছেন না নিয়োগকর্তা।

নীলনদের এই দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের স্বাচ্ছন্দ্যময় গন্তব্য ছিলো না কখনোই। তা সত্বেও পর্যটক পরিচয়ে অনেকেই এখানে আসেন। কাজ করেন চুপিসারে। আব্দুল আজিজের বেতনে খরচ বাদ দিয়ে মাসে ১৫ হাজার টাকাও দেশে পাঠানো যেতো। বর্তমান পরিস্থিতিতে এমনিতেই কারখানায় কাজ নেই। তার ওপর মুদ্রামান কমে যাওয়ায় আগের বেতনে কর্মী পোষাও দুস্কর। এখন ডলারের মূল্যমানে আগের বেতনে দু’জন কর্মী নিয়োগ করতে পারেন নিয়োগকর্তারা। যে কারণে চলছে ছাঁটাইয়ের ধুম। অনেকে আবার অর্ধেক বেতনেই কাজ করছেন। সেটা কেবলমাত্র পেটের তাগিদে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতিই প্রবাসীদের ফেলেছে গভীর সংকটে।

মিশরের সুয়েজ সিটিতে কথা হয় ঢাকার হাজারীবাগের আরমানের সঙ্গে। তিনিও বর্তমানে কর্মহীন। তিনি বাংলানিউজকে জানান, ডলারের মূল্য বেড়ে যাওয়ায় সবই ওলটপালট হয়ে গেছে এখানে। সমস্যটা হচ্ছে, ডলারের দর এখানে বাড়লেও দেশে বাড়েনি। উল্টো এখন
আমাদের আয় কমে গেছে। কমে গেছে এ দেশ থেকে পাঠানো রেমিটেন্সের পরিমাণ। অনেকের জন্যে আবার দেশে টাকা পাঠানোই কঠিন হয়ে পড়েছে।

মিশরের অর্থনীতিতে কান পাতলেই সত্যতা মেলে আব্দুল আজিজ ও আরমানের কথার। একটা সময় এক ডলারের বিপরীতে যে দেশে পাওয়া যেতো ৪ মিশরীয় পাউন্ড। সেখানে বর্তমানে এক ডলার কিনতে গুনতে হচ্ছে প্রায় ২০ মিশরীয় পাউন্ড।

২০১১ সালে শুরু রাজনৈতিক সংঘাতের পর থেকে অর্থনীতির ওপর পড়ছে একের পর এক আঘাত।

মিশরের জিডিপিতে ১১ শতাংশ অবদান রাখা পর্যটন খাতেও এখন হাহাকার। কাঙ্খিত সংখ্যক পর্যটক নেই। তার ওপর মারাত্বক  মন্দার কারণে অর্থনৈতিক স্থবিরতা।

মন্দার প্রভাবটি ঠিক কেমন?

জিজ্ঞাসা করেছিলাম মিশরের একজন জ্যেষ্ঠ গণমাধ্যমকর্মীকে। স্বভাবতই নাম প্রকাশ করতে চাননি।

‘আমরা মায়েদের স্তনে দুধ আছে কিনা তাও পরীক্ষা করছি’।

এমন ‘সকৌতুক’ উত্তর কৌতুহলকে আরও বাড়িয়ে দেয় শতগুনে।

‘বিতর্কিত হলেও শিশুখাদ্যে ভর্তুকি কমাতে গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে এই সিদ্ধান্তই নিয়েছে মিশর। ফি বছর পাঁচ কোটি দশ লাখ ডলার সমমূল্যের শিশু খাদ্য আমদানী করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে ৪০ শতাংশ দাম বেড়ে যাওয়ায় কে শিশু খাদ্য পেতে পারেন। তার যোগ্যতা নির্ধারণেই মায়েদের স্তনে দুধ আছে কিনা তা পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার- বেশ গম্ভীর হয়ে ব্যাখ্যা দেন ওই সাংবাদিক।

আরও পড়ুন

** ভিন্ন আবহে বেড়ে উঠছে প্রবাসীদের সন্তানরা
** জাল ভিসার জালে আটকে মিশরের কারাগারে বাংলাদেশিরা​
** মিশরের শিক্ষার দিগন্তে বাংলাদেশের উজ্জ্বল এক ঝাঁক নক্ষত্র
**জাল ভিসা চক্রে বিপন্ন দেশের ইমেজ

**সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে প্রয়োজন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়ন​
**মিশরে মানবতার ফেরিওয়ালা ডা.আরিফুল হক
**
গার্মেন্টস শ্রমিক সুলতান আজ অনারারি কনসাল জেনারেল
** মিশরের ধূসর মরুভূমিতে প্রবাসীদের চিকিৎসায় শাফায়েত উল্লাহরা
** ঢাকা-কায়রো সম্পর্ক এখন অনন্য উচ্চতায়
** কায়রোয় ৫ মাস ধরে রাষ্ট্রদূতের চেয়ার শূন্য
** আমির হোসেনের নির্বাসনের জীবনই যেন ফুরোয় না!

** ‘ইজ্জত’ রক্ষায় ঢাকায় মাহমুদ ইজ্জাত

বাংলাদেশ সময়: ০৬৩৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩০, ২০১৭
এজি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

প্রবাসে বাংলাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa