মান্নার ইফতারে ফখরুল, আসেননি কাদের
[x]
[x]
ঢাকা, রবিবার, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৫, ১২ আগস্ট ২০১৮
bangla news

মান্নার ইফতারে ফখরুল, আসেননি কাদের

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৫-২৭ ১০:১৪:০৯ পিএম
অতিথি মঞ্চে মাহমুদুর রহমান মান্নার বাঁ পাশে ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ডান পাশে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ অতিথিরা। ছবি: শাকিল আহমেদ

অতিথি মঞ্চে মাহমুদুর রহমান মান্নার বাঁ পাশে ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ডান পাশে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ অতিথিরা। ছবি: শাকিল আহমেদ

ঢাকা: ‘গ্রহণ‌যোগ্য, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই’ শিরোনামে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেছিল মাহমুদুর রহমান মান্নার নাগরিক ঐক্য। মান্না একইসঙ্গে দেশের দুই বড় দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে দাওয়াত করেছিলেন এই ইফতারে।

রোববার (২৭ মে) সন্ধ্যায় রাজধানীর তোপখানা রোডের এশিয়া হোটেলে আয়োজিত ইফতার মাহফিলে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির দুই স্থায়ী কমিটির সদস্য উপস্থিত হলেও আসেননি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

অনুষ্ঠানে সে বিষয়ে আক্ষেপ করেন মান্না। তিনি বলেন, আমি আমার বন্ধু ওবায়দুল কাদেরকে দাওয়াত করেছিলাম। প্রথমে আমি তার সঙ্গে সরাসরি কথা বলেছিলাম। তখন তিনি ২-৩ দিন সময় নিয়েছিলেন। ভেবেছিলাম আসবেন। কিন্তু পরে আমি আর তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারিনি। তিনি আমার মেসেজেরও আর জবাব দেননি।

মান্না বলেন, তিনি যদি এখানে আসতেন, আমার পাশে বসলে এই কথাগুলো বলতে একটু সমস্যাও হতো। কারণ তিনিও বলেছেন, কাউকে ছাড়বো না। যদি প্রমাণ পাই সবার ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবো।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, (মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানে) যে ৬৪ জনকে গুলি করে মেরেছেন, প্রথম দাবি করছি, তাদের নাম ঠিকানা পত্রিকা-মিডিয়ায় প্রকাশ করা হোক। তাদের নামে কী কী অভিযোগ আছে, কী কী মামলা আছে সেটা বলা হোক। ওই মামলার কী কী প্রমাণ আছে সেটাও বলা হোক।

‘প্রমাণ ছাড়া যদি (সংসদ সদস্য আবদুর রহমান) বদির চুল ধরা না যায়, তাহলে প্রমাণ ছাড়া ৬৪টা লোককে যে হত্যা করেছেন, অপেক্ষা করেন দিন আসবে, এই রোজার মাসের মধ্যে আমি বলি, কাউকে ছাড়বো না। সমস্ত অন্যায়ের জবাব দিতে হবে, তাদেরও আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। আমরা গুলি করে মারবো না, বিনা-বিচারে হত্যা বিশ্বাস করি না। কিন্তু ছেড়ে দেওয়া যাবে না।’

রাস্তায় জ্যামের কারণে গাড়ি রেখে মোটরসাইকেলে করে শেষ মুহূর্তে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন বিএনপির মহাসচিব ফখরুল। বক্তৃতাকালে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, হোন্ডাই শেষ পর্যন্ত কাজ করে। কারণ প্রায়ই আমার এই অভিজ্ঞতা হয়। আজকে যে অভিজ্ঞতা হয়েছে সেটা অত্যন্ত ভয়াবহ। উত্তরা থেকে আসতে আমার আড়াই ঘণ্টা লেগেছে। সেটাও ডিবি অফিসের কাছ থেকে মোটরসাইকেলে আসতে হলো।’

ইফতারে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, যুক্তফ্র‌ন্টের চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরু‌দ্দোজা চৌধুরী, বিএন‌পির স্থায়ী ক‌মি‌টির সদস্য মির্জা আব্বাস, ড. আব্দুল মঈন খান, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্র‌তিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণ‌ফোরামের নির্বাহী সভাপ‌তি অ্যাড‌ভো‌কেট সুব্রত চৌধুরী, জাতীয় সমাজতা‌ন্ত্রিক দলের সভাপ‌তি আ স ম আব্দুর রব, বিপ্লবী ওয়ার্কাস পা‌র্টির সাধারণ সম্পাদক কম‌রেড সাইফুল হক, ঢাকা বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের শিক্ষক ড. আ‌সিফ নজরুল, বিএনপির সাংগঠ‌নিক সম্পাদক শামা ওবা‌য়েদ, বাংলা‌দেশ ন্যা‌পের মহাস‌চিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ন্যাশনাল ডে‌মো‌ক্রে‌টিক পা‌র্টির ভারপ্রাপ্ত মহাস‌চিব মঞ্জুর হো‌সেন ঈসা, সোনার বাংলা পা‌র্টির চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর নূর, ‌বিকল্প ধারা বাংলা‌দে‌শের মহাস‌চিব মেজর (অব.) আব্দুল মান্নান, আইনজীবী শাহদীন মা‌লিক প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ২২০০ ঘণ্টা, মে ২৭, ২০১৮
এমএইচ/এইচএ/

** দেশের অবস্থা জাতির জন্য হুমকি: ফখরুল

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa