Alexa
ঢাকা, শনিবার, ১০ চৈত্র ১৪২৩, ২৫ মার্চ ২০১৭
bangla news
symphony mobile

সাংবাদিক মারধরে জড়িত ছাত্রলীগ নেতাদের বহিষ্কার দাবি

ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৩-১৬ ১২:৩৮:৩৫ এএম
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: সাংবাদিক ইমরান হোসেনকে মারধরের ঘটনায় জড়িত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বহিষ্কারের দাবি করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি।

বুধবার (১৫ মার্চ) সন্ধ্যায় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি ফরহাদ উদ্দীন এবং সাধারণ সম্পাদক ফররুখ মাহমুদ এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, এ ঘটনায় জড়িতদের বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) বিকেল ৫টার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের পাশাপাশি বিজয় একাত্তর হল শাখার ছাত্রলীগ কমিটি বিলুপ্ত করতে হবে। তা না হলে সাংবাদিকরা কঠোর অবস্থানে যেতে বাধ্য হবে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, সোমবার দিবাগত রাতে বিজয় একাত্তর হলের অর্ধশত কক্ষে প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া ছাত্রলীগের দলীয় নেতা-কর্মীরা প্রবেশ করে। নেতা-কর্মীরা প্রাধ্যক্ষের কার্যালয় ভাঙচুর করে, দুর্ব্যবহার করে আবাসিক শিক্ষকদের সঙ্গে। লাঞ্ছিত করে বেশকিছু আবাসিক শিক্ষার্থীকে। ফলে চরম আতঙ্কের মধ্যে হলের সাধারণ ছাত্ররা রাত পার করেন।

রাতেই এই সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে বার্তা সংস্থা ইউএনবি’র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ইমরানের হোসেনের ওপর পরিকল্পিত হামলা চালায় সংগঠনটির ১০-১৫ জন নেতা-কর্মী। হামলায় সাংবাদিক ইমরান সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলেন।

রাত ৩টার দিকে সংবাদ সংগ্রহ শেষে ফেরার সময় হঠাৎ লাইট বন্ধ করে, কাপড় দিয়ে মুখ ঢেকে সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। হল ছাত্রলীগের সভাপতি ফকির রাসেল আহমেদ ও নয়ন হাওলাদারের নির্দেশেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ইমরানের হোসেনের ওপর পরিকল্পিত হামলা চালানো হয বলেও অভিযোগ করেন সাংবাদিক নেতারা।

সাংবাদিক নেতাদের অভিযোগ, প্রকৃত অপরাধীদের বহিষ্কার না করে লোক দেখ‍াতে একাত্তর হল শাখার পাঁচজন কর্মীকে বহিষ্কার করেছেন ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন।

বহিষ্কৃতরা হলেন- মনোবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের সজিব ও তুনান শেখ, উর্দু বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের সালাউদ্দিন ও মাহফুজ আহমেদ এবং মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের সাকিব।

বাংলাদেশ সময়: ১২৩২ ঘণ্টা, মার্চ ১৬, ২০১৭
এসকেবি/এমএফআই/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

You May Like..