[x]
[x]
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ আষাঢ় ১৪২৫, ২১ জুন ২০১৮

bangla news

জাফলংয়ে বন বিভাগের ২৫ একর ভূমি উদ্ধার

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৩-০৬ ৯:৪৬:১৭ পিএম
বন বিভাগের অভিযান-ছবি-বাংলানিউজ

বন বিভাগের অভিযান-ছবি-বাংলানিউজ

সিলেট: সিলেটের জাফলংয়ে বন বিভাগের মালিকানা গ্রিন পার্কের ২৫ একর ভূমি পাথর ব্যবসায়ীদের কবল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। 

মঙ্গলবার (৬ মার্চ) টাস্কফোর্সের অভিযানে দখলে থাকা ৩০টি ক্রাসার মেশিন উচ্ছেদ করা হয়। এরমধ্যে ১৭ ক্রাসার মেশিন ও একটি পাকা ঘরসহ ১৩টি স্থাপনা বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় এবং বাকিগুলো অভিযান চলাকালেই সরিয়ে নেন পাথর ব্যবসায়ীরা। 

বন বিভাগ সূত্র জানায়, বিভিন্ন সময় নোটিশ দেওয়া হলেও ভূমির দখল ছাড়েনি ক্রাসার মালিকরা। উপজেলা প্রশাসন, বন বিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর, বিজিবি, পুলিশের সমন্বিত অভিযানে ভূমি দখল মুক্ত করা হয়। 
অভিযানে ছিলেন সিলেটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) আর.এস.এম মনিরুল ইসলাম, গোয়াইনঘাটের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুমন চন্দ্র দাশ, পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেটের উপ-পরিচালক আলতাফ উদ্দিন, সহকারী বন সংরক্ষক জিএম আবু বক্কর সিদ্দিক, পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেটের সহকারী পরিচালক পারভেজ আলম, গোয়াইনঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হিল্লোল রায়, বনবিভাগের টাউন রেঞ্জ কর্মকর্তা দেলওয়ার রহমান, সারি রেঞ্জ কর্মকর্তা সাদ উদ্দিন আহমদ, জাফলং বন বিট কর্মকর্তা খালেদ আহমেদ।

সিলেটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আর.এস.এম মনিরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, পাথর ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট বেশ কয়েক বছর ধরে জাফলংয়ের ছৈলাখেল তৃতীয় খণ্ড মৌজায় বন বিভাগের গ্রিন পার্কের ভূমি দখল করে ক্রাশার মেশিন স্থাপন করে। 

তিনি বলেন, ওই স্থানে বন বিভাগের মালিকানা গ্রিন পার্কের ৫শ’ একর ভূমি আছে। উদ্ধার করা ২৫ একর ভূমি ছাড়াও বন বিভাগের ভূমিতে স্থপিত ডাম্পিং ইয়ার্ড আগামী সাতদিনের মধ্যে সরিয়ে নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই সময়সীমার পরই ওই স্থানে গাছের চাপা রোপণ করা হবে। 

বাংলাদেশ সময়: ২১৪৫ ঘণ্টা, মার্চ ০৬, ২০১৮
এনইউ/আরআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa