হাতবোমা-গুলি-আগ্নেয়াস্ত্রসহ ২ সন্ত্রাসী গ্রেফতার
[x]
[x]
ঢাকা, বুধবার, ৭ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ আগস্ট ২০১৮
bangla news

হাতবোমা-গুলি-আগ্নেয়াস্ত্রসহ ২ সন্ত্রাসী গ্রেফতার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০১-২৯ ১০:৩৪:৩৭ এএম
প্রতীকী

প্রতীকী

মেহেরপুর: ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও হাতবোমাসহ দুই শীর্ষ সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে গাংনী থানা পুলিশ। ‍তাদের বিরুদ্ধে থানায় হাফ ডজন মামলা রয়েছে।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) ভোর রাত তিনটার দিকে গাংনী থানার গাঁড়াডোব-আমঝুপি রাস্তার পাশে একটি কলাবাগানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন-গাংনী উপজেলার সাহারবাটি গ্রামের রিহান আলীর ছেলে আইচ (৩০) ও কসবা গ্রামের তজিম হোসেনের ছেলে সিদ্দিকুর রহমান (৪০)।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হরেন্দ্রনাথ সরকারের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল এ অভিযান পরিচালনা করে। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি এলজি শাটারগান, দুই রাউন্ড বন্দুকের কার্তুজ ও চারটি হাতবোমা উদ্ধার করা হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করে ওসি বাংলানিউজকে জানান, গাঁড়াডোব-আমঝুপি রাস্তায় ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অন্য ডাকাতরা পালিয়ে গেলেও এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী আইচ ও সিদ্দিকুর রহমান গ্রেফতার হয়।

তিনি আরো জানান, আইচ এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া জেলায় একটি হত্যা মামলাসহ, গাংনী ও সদর থানায় হত্যা, বিস্ফোরক, অস্ত্র, ডাকাতি, ছিনতাইসহ নানা ধরনের সন্ত্রাসী অভিযোগে প্রায় ৬/৭টি মামলা রয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এছাড়া সন্ত্রাসী সিদ্দিকুর রহমানের নামে গাংনী থানায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, অস্ত্র ও বিস্ফোরক আইনে হাফ ডজন মামলা রয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরে এই দুই শীর্ষ সন্ত্রাসীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালছিল। গ্রেফতারের পর তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিভিন্ন তথ্য দিয়েছে তারা।

অস্ত্র, ডাকাতির প্রস্তুতি ও বিস্ফোরক আইনে মামলা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে মেহেরপুর জেলহাজতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান ওসি।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩০ ঘণ্টা, ২৯ জানুয়ারি, ২০১৮
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa