[x]
[x]
ঢাকা, শনিবার, ১ পৌষ ১৪২৪, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

bangla news

এবার কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণেও প্রকল্প!

মফিজুল সাদিক, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-১০-১২ ৬:১৫:২১ এএম
এবার কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণেও প্রকল্প!

এবার কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণেও প্রকল্প!

ঢাকা: জ্ঞান অর্জন ও দক্ষতা বাড়াতে ৩৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে বিদেশ ভ্রমণে যাচ্ছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও মাঠ প্রশাসনের বিভিন্ন শ্রেণীর ৪৪০ জন কর্মকর্তা। এজন্য আলাদা প্রকল্প নেওয়া হয়েছে, যা দেশে এবারই প্রথম।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্র জানায়, ‘ক্যাপাসিটি ডেভেলপমেন্ট অব দ্য ক্যাবিনেট ডিভিশন অ্যান্ড ফিল্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেশন’ প্রকল্পের আওতায় ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের জুন মেয়াদে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যাবেন কর্মকর্তারা।

বৈদেশিক শর্ট কোর্স, বৈদেশিক শর্ট ভিজিট ও সংযুক্তি কার্যক্রম নামে তিনটি কম্পোনেন্টে ভাগ করা প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে- কর্মকর্তাদের গর্ভনেন্স ও জনপ্রশাসনের বিভিন্ন বিষয়ে বৈদেশিক জ্ঞান অর্জন, প্রশিক্ষণ ও স্টাডি ট্যুর।

প্রকল্পের আওতায় প্রথম ধাপে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ৫০ জন ও মাঠ প্রশাসনের ১৫০ জনসহ ২০০ জন সরকারি কর্মকর্তা বিদেশ ভ্রমণে যাবেন। দুই সপ্তাহব্যাপী বিভিন্ন বিষয়ে বৈদেশিক শর্ট কোর্স করবেন তার।
 
দ্বিতীয় ধাপের ১৬০ জন সরকারি কর্মকর্তার মধ্যে আছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ৫০ জন ও মাঠ প্রশাসনের ১১০ জন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়-বিভাগের প্রয়োজন অনুসারে ১০ দিনব্যাপী বৈদেশিক শর্ট কোর্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ভ্রমণে যাবেন তারা।

তৃতীয় ধাপে একসঙ্গে যাবেন ৮০ জন সরকারি কর্মকর্তা। তাদের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ৫০ জন ও মাঠ প্রশাসনের ৩০ জন ১০ দিনের জন্য নির্বাচিত দেশগুলোর বিভিন্ন দাফতরিক সংযুক্তি দেখবেন।
 
প্রকল্পের আওতায় ২ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৫ জন সরকারি কর্মকর্তা কয়েকটি দলে বিভক্ত হয়ে বিভিন্ন দেশে অগ্রবর্তী দল হিসেবেও ভ্রমণ করবেন। তাদের মতামতেই সুবিধামতো দেশগুলোতে যাবেন ৪৪০ জন কর্মকর্তা।  
 
তবে আপত্তি তুলে পরিকল্পনা কমিশনের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) তদন্ত কমিটি মনে করছে, বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে অগ্রবর্তী দলের জন্য অহেতুক ব্যয়ের প্রয়োজন নেই।

প্রকল্পটির দেখভাল করছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সহকারী প্রধান (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন শাখা) মুন্না রানী বিশ্বাস।

তিনি বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তাদের জ্ঞান অর্জন ও প্রশিক্ষণে নেওয়া এমন প্রকল্প এবারই প্রথম। ডিজিটাল বাংলাদেশে অনেক নতুন নতুন প্রযুক্তি এসেছে, যেগুলো অনেক কর্মকর্তার কাছে কঠিন। সেগুলো শিখতে প্রয়োজনীয় দেশে প্রশিক্ষণ নেওয়া হবে। কর্মকর্তারা বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে আমাদের দেশের মাঠ পর্যায়ে প্রয়োগ করবেন। এতে করে প্রশাসনিক কাজেও গতি পাবে’।
 
প্রকল্পের আওতায় সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষণ, স্টাডি ভিজিট, সংযুক্তি কার্যক্রমে আমাদের দেশের প্রশাসন ব্যবস্থার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ দেশ নির্বাচন করে ভ্রমণে যাবেন কর্মকর্তারা। তবে এখনও দেশের নাম চূড়ান্ত করা হয়নি।
 
১৫ দিনের প্রশিক্ষণে অতিরিক্ত সচিব পর্যায়ের প্রত্যেক কর্মকর্তা ১১ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং যুগ্ম সচিবরা পাবেন ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা করে। দুই সপ্তাহের প্রশিক্ষণে মাথাপিছু ব্যয় ধরা হয়েছে উপ-সচিব, সিনিয়র সহকারী সচিব ও সহকারী সচিবদের জন্য ৮ লাখ টাকা এবং যুগ্ম সচিব ও সমপর্যায়ের কর্মকর্তাদের জন্য ১২ লাখ ২৬ হাজার টাকা। ৩০ দিনের প্রশিক্ষণে উপ-সচিবদের মাথাপিছু ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা।
 
প্রস্তাবিত প্রকল্পে সুনির্দিষ্ট দেশ নির্বাচিত না করা ও নতুন বেতন স্কেল ২০১৫-এর প্রেক্ষিতে বিদেশ ভ্রমণের টিএ-ডিএতে পরিবর্তন আসতে পারে। এ বিবেচনায় মাথাপিছু ব্যয় কিছুটা বেশি প্রাক্কলন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

বাংলাদেশ সময়: ০৬১৩ ঘণ্টা, অক্টোবর ১২, ২০১৭
এমআইএস/এএসআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

FROM AROUND THE WEB
Alexa