ঢাকা, শুক্রবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৪, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

bangla news

দাম কম হওয়ায় মিয়ানমার থেকে চাল আনছি

বাংলানিউজ টিম | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৯-১০ ৬:৪৭:৩৩ পিএম
সংসদ ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম

সংসদ ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম

সংসদ ভবন থেকে: দামে কম এবং অল্প সময়ে চাল পরিবহন করা সম্ভব হওয়ায় মিয়ানমার থেকে চাল আনা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।

রোববার (১০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে দশম জাতীয় সংসদের ১৭তম অধিবেশনে জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধানের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

নাজমুল হক প্রধান মন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, দেশে রোহিঙ্গাদের নিয়ে চরম অবস্থা বিরাজমান, এর মধ্যে মন্ত্রী আবার মিয়ানমার থেকে চাল আনতে গেলেন। মিয়ানমার থেকে কি বিশেষ ছাড় পাচ্ছেন?

জবাবে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, একদিকে বাণিজ্য চলবে আরেক দিকে কূটনৈতিক তৎপরতাও চলবে। চাল কেনার জন্য আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমতি নিয়েই মিয়ানমার গিয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রীই বলেছেন একদিকে ট্রেড চলবে আরেক দিকে কূটনৈতিক তৎপরতাও চলবে। প্রধানমন্ত্রী এটাই আমাকে বলেছেন।

মিয়ানমার থেকে চাল আনার সুবিধা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার থেকে চাল আনার বড় সুবিধা সেখান থেকে চাল আসতে মাত্র ৩ দিন সময় লাগবে। আর বেশি সময় লাগবে না। আর থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামের চাইতে কম দামে মিয়ানমার থেকে চাল কিনতে পারছি। ভিয়েতনাম থাইল্যান্ড থেকে চাল আসতে প্রায় ১৫-২০ দিন সময় লেগে যায়। মিয়ানমার থেকে দ্রুত চাল আনতে পারবো বলেই সেখান থেকে কিনছি।

কামরুল ইসলাম বলেন, মিয়ানমারের সাথে আমাদের ৩ লাখ মেট্রিক টন চালের চুক্তি হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ১ লাখ ২০ হাজার মেট্রিক টন চাল আমরা পাবো। এক লাখ ‘হোয়াইট রাইস’ (সাদা চাল) ২০ হাজার টন সেদ্ধ চাল।

অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এই মুহূর্তে চালের  দাম স্থিতিশীল আছে। জনগণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যেই আছে। কোন রকম দাম বাড়তি নাই।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭
এসএম/এসকে/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

FROM AROUND THE WEB
Alexa