[x]
[x]
ঢাকা, সোমবার, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭

bangla news

বছরটি হজ গমনেচ্ছুদের জন্য আতঙ্কের বছর!

শরিফুল ইসলাম জুয়েল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৮-১৩ ৩:১০:৩৬ পিএম
হজ গমনেচ্ছুদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই; ছবি: আনোয়ার হোসেন রানা

হজ গমনেচ্ছুদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই; ছবি: আনোয়ার হোসেন রানা

ঢাকা: পর্যাপ্ত যাত্রী না পাওয়ায় এপর্যন্ত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও সৌদি এয়ারলাইন্সের ২৭টি হজ ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। রোববারও (১৩ আগস্ট) যাত্রীর অভাবে বাংলাদেশ বিমানের একটি অতিরিক্ত ফ্লাইট (বিজি-৯০২৯) বাতিল করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে বিমান অফিস বলছে, এভাবে ফ্লাইট বাতিল হতে থাকলে যাত্রী পাঠানো নিয়ে সমস্যায় পড়তে হতে পারে তাদেরকে। ইতোমধ্যে ফ্লাইট বাতিলের কারণে প্রায় ১১ হাজার যাত্রী পরিবহনের ক্ষমতা হারিয়েছে বাংলাদেশ বিমান।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক(জনসংযোগ)শাকিল মেরাজ বাংলানিউজকে বলেন, সবাইকে বাস্তবতা বুঝতে হবে। এভাবে ফ্লাইট বাতিল হতে থাকলে রিকভার করা (ধকল বা  ক্ষতি পুষিয়ে ওঠা) কঠিন হবে। বিমান অতিরিক্ত ফ্লাইটের ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু এজেন্সিগুলো হজযাত্রী না দেয়ায় তাও বাতিল হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২৪ জুলাই থেকে শুরু হয়ে রোববার(১৩ আগস্ট) সকাল ৯টা পর্যন্ত ২১দিনে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং সৌদি এয়ারলাইন্স মোট ৬০ হাজার ৫শ ১০জন হজ যাত্রী পরিবহন করেছে। এখন বাকি ১৪ দিনে নিতে হবে ৬৬ হাজার ৬শ ৮৮জন হজযাত্রী। এতো কম সময়ে অর্ধেকেরও বেশি যাত্রী কিভাবে পরিবহন করবে তারা তা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন হজগমনেচ্ছুরা।

অভিযোগ রয়েছে, হজ এজেন্সিগুলো অতিরিক্ত মুনাফার আশায় সময়মতো বাড়িভাড়া না করায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। যত কম দিনের জন্য বাড়ি ভাড়া করা হবে এজেন্সিগুলোর খরচ ততো কম হবে। এছাড়া শেষের দিকে কম খরচে বাড়িভাড়া পাওয়া যায় বলেও জানা গেছে। একারণেই তারা যাত্রীদের সৌদি আরবে নিতে দেরি করছে বলে দাবি করছেন হজগমনেচ্ছুরা।

কুষ্টিয়া-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য হজগমনেচ্ছু রেজা আহম্মেদ বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের ফ্লাইট ২টা ৪৫ মিনিটে। তবুও এখনো আতঙ্কে আছি। কারণ এবছর আমাদের জন্য ভীতির বছর।

তিনি বলেন, প্রতিবছরই হজ ফ্লাইট বাতিল হয়, কিন্তু এবছর একটু বেশি হচ্ছে। ই-ভিসা জটিলতা আর এজেন্সিগুলোর অতি মুনাফালোভী প্রবণতার কারণে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন হজগমনেচ্ছুরা।

হজ গমনেচ্ছুদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই; ছবি: আনোয়ার হোসেন রানাকথা হয় বর্ষা হজ এজেন্সির ম্যানেজার কামরুল হোসেনের সাথে। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, অনেকেই বাড়িভাড়া পায়নি। আর বাড়িভাড়ার প্রমাণ দেখাতে না পারলে ভিসাও হচ্ছে না। আমাদের এজেন্সি থেকে ৪২০ জন হজগমনেচ্ছু হজে যাবেন। তাদের সব কাগজপত্র রেডি করা আছে। আজকে (রোববার) ২টা ৪৫ মিনিটে আমাদের ১০০ জনের একটি দল যাচ্ছে। বাকিরা ধাপে ধাপে আরো ৩টি ফ্লাইইটে যাবেন। আমরাও আতঙ্কে আছি, না জানি কখন আবার ফ্লাইট বাতিল হয়ে যায়!

হজ অফিসের পরিচালক সাইফুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, আমরা আশা কররছি নির্ধারিত সময়ের আগিই সব হজ গমনেচ্ছু হজে যেতে পারবেন।

হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ(হাব)-এর কেন্দ্রীয় মহাসচিব আলহাজ্ব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বাংলানিউজকে বলেন, একটু জটিলতা হয়েছে। তবে বিমান, ধর্ম মন্ত্রণালয় এবং হাব সবার প্রচেষ্টায় সবাই হজে যেতে পারবেন আশা করি। ইতোমধ্যে বিমান তাদের শিডিউল ফ্লাইটে হজযাত্রী পরিবহন শুরু করেছে। আশা করি, আর কোনো সমস্যা হবে না।
বাংলাদেশ সময়:১৫১২ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০১৭
এসআইজে/জেএম

অন্তর্ভুক্ত বিষয়ঃ হজ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

FROM AROUND THE WEB
Alexa