[x]
[x]
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২১ নভেম্বর ২০১৭

bangla news

‘সীমান্তরক্ষায় জীবন দিতে প্রস্তুত পাপিয়া’ 

শেখ জাহাঙ্গীর আলম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৭-১৭ ৩:০৩:১৮ পিএম
শ্রেষ্ঠত্বের স্বীকৃতি নিচ্ছেন নবীন সৈনিকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী সিপাহী পাপিয়া আক্তার

শ্রেষ্ঠত্বের স্বীকৃতি নিচ্ছেন নবীন সৈনিকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী সিপাহী পাপিয়া আক্তার

চট্টগ্রাম, সাতকানিয়া থেকে ফিরে: ‘দেশের জন্য কিছু করতে হবে, এই ভেবে যে কোনো একটি বাহিনীতে যোগ দেয়ার ইচ্ছেটা ভীষণ বেড়ে যায় আমার। আজ আমি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র একজন সিপাহী। দেশরক্ষার ব্রত নিয়ে সীমান্ত রক্ষায় কাজ শুরু করতে যাচ্ছি। আমার মাধ্যমে যদি দেশের এক টুকরো মাটি রক্ষিত হয় তাতেই আমি গর্বিত। জীবন দিয়ে হলেও দেশ রক্ষায় আমি সর্বদা প্রস্তুত থাকবো।’

বাংলানিউজকে এমনটাই জানালেন -বিজিবি’র ৯০তম রিক্রুট ব্যাচ নবীন সৈনিকদের মধ্যে সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী সিপাহী পাপিয়া আক্তার। 

বিজিবি’র ৯০তম ব্যাচে নবীন সৈনিক হিসেবে প্রশিক্ষণ নিয়েছে ৪৩৩ জন। এদের মধ্যে পুরুষ সৈনিক ৩৩৬ জন ও নারী সৈনিক ৯৭ জন। বিজিবিতে নারী সৈনিকদের এটা ৩য় ব্যাচ। এই প্রথমবার কোনো নারী সৈনিক সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন।

গত ১৬ জুলাই চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার বায়তুল ইজ্জত এ অবস্থিত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ'র একমাত্র প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান “বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার এন্ড কলেজ” ৯০তম ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ ও শপথ গ্রহণের মাধ্যমে তারা বিজিবি'র সৈনিক জীবনে প্রবেশ করেন। 

সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী সৈনিক পাপিয়া আক্তার ছোট বেলা থেকেই নানা দখিল উদ্দিনের কাছে মুক্তিযুদ্ধের অনেক ঘটনা শুনেছেন। তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাগুলো আমার মনের ভেতরে থাকা দেশপ্রেমকে প্রখর করে দিয়েছে। জীবন দিয়ে হলেও এই মাতৃভূমিকে রক্ষা করে যাবো।’

কুষ্টিয়ার জেলখানা মোড়ের পিয়ারাতলা গ্রামের কৃষক আব্দুল ওহাবের মেয়ে পাপিয়া আক্তার। তার মা লাভলী বেগম একজন গৃহিনী ও তার ছোট ভাই তাজমির হোসেন পিয়াস ৮ম শ্রেণীর ছাত্র। পাপিয়া কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্সের প্রথম বর্ষের ছাত্রী।   

পাপিয়া বলেন, বিজিবির এই প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে এসে আমি অনেক ‍কিছু শিখেছি। সিনিয়র স্যারদের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেছি, চেষ্টা করেছি। 

‘সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠ হতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। এই শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ প্রয়োগ করে দেশের জন্য ভালো কিছু করতে পারলেই আমি নিজেকে গর্বিত মনে করবো’ -বললেন সিপাহী পাপিয়া।  

সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে আনন্দিত পাপিয়ার মা লাভলী বেগম মোবাইল ফোনে বাংলানিউজকে জানান, ‘আমরা অনেক আনন্দিত। পাপিয়া দেশের জন্য কাজ করবে এতে আমরা গর্বিত’।  

বিজিবি’র রিক্রুট ট্রেনিং ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্ণেল সাজ্জাদ হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, বিজিবিতে মেধাবী ও চৌকস জওয়ানরা আসছে। নারী সৈনিকদের বিষয়ে তিনি বলেন, নারী-পুরুষ বৈষম্য থেকে বেরিয়ে আসতেই দেশব্যাপী কাজ চলছে। সেই আঙ্গিকেই বিজিবিতে তিন ব্যাচ নারী সৈনিক নেওয়া হয়েছে। 

এবার নবীন সৈনিকদের মধ্যে সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন একজন নারী। এটা ইতিবাচক, কারণ আমাদের প্রধানমন্ত্রী একজন নারী, সংসদের স্পিকার একজন নারী। এখন বিজিবিতেও নারীরা ভালো করছে। এটা বাহিনীর জন্য ভালো।

এদিকে, বিজিবি’র ৯০তম এই নবীন সৈনিকদের ব্যাচে আরও তিনজন বিষয় ভিত্তিকভাবে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন। 

শারীরিক বিষয়ে প্রশিক্ষণে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেন সিপাহী সোমা লপা রায়। তিনি দিনাজপুর চিরিরবন্দর উপজেলায় দিনেশ রায় এর মেয়ে। দিনাজপুর ডিগ্রি কলেজে বিএ প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী সিপাহী লপা। পরিবারের দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে লপা বড়। 

সিপাহী সোমা লপা রায় বাংলানিউজকে বলেন, ‘মাতৃভূমিকে যেকোনো মূল্যে রক্ষা করতে আমি ব্রত নিয়েছি। দেশের সীমান্ত প্রহরার কাজ করতে চাই।’ 

পুরুষ সৈনিকদের মধ্যে শারীরিক বিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন সিপাহী মো. সুমন মিয়া। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানার সহদেবপুর গ্রামের মো. নোয়াজ আলীর ছেলে। পরিবারের পাঁচ ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি ছোট। সুমন ডিগ্রি প্রখম বর্ষের ছাত্র। 

ফায়ারিংয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছ্নে মো. নাহিদ হাসান। টাঙ্গাইলের টেংরি পাড়া গ্রামের মো. কামাল উদ্দিনের ছেলে তিনি।  

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫১ ঘণ্টা, জুলাই ১৭, ২০১৭
এসজেএ/আরআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

FROM AROUND THE WEB
Loading...
Alexa