রমজানে ব্যালেন্সড খাবারেই সুস্থতা 
[x]
[x]
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৪ আগস্ট ২০১৮
bangla news

রমজানে ব্যালেন্সড খাবারেই সুস্থতা 

লাইফস্টাইল ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৫-১৬ ৬:৩৮:৩২ পিএম
রমজানে ব্যালেন্স খাবারেই সুস্থতা 

রমজানে ব্যালেন্স খাবারেই সুস্থতা 

রমজান মাস, সারাবছরের অপেক্ষার পালা শেষ হচ্ছে, সারাদিন না খেয়ে সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টির জন্য রোজা পালন করি আমরা। দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকার ফলে ইফতারের সময় অনেকেই বেশি খেয়ে ফেলি। 

ফলে ‍অস্বস্তিবোধ হয়, ডায়াবেটিস, প্রেসার ও গ্যাসট্রিকসহ নানা সমস্যা দেখা দেয়। বিশেষ করে আমরা  ইফতার শুরুই করি নানা ধরনের শরবতে, যেসব তৈরি হয় চিনি দিয়ে। আবার পরিমিত খাবারের কথা বলা হলেও খেতে শুরু করলে সেই অল্প খাবারে তুষ্টি হয় না আমাদের। খাবারের বড় একটা অংশ থাকে ডুবো তেলে ভাজা মুখরোচক নানা আইটেম। 

একে তো খাবার গ্রহণের সময়ের পরিবর্তন, এরপর গরমের সময়ে রোজা হচ্ছে, কীভাবে সুস্থ থাকতে পারি সেই পরামর্শ দিয়েছেন অ্যাপোলো হাসপাতালের পুষ্টিবিদ তামান্না চৌধুরী। 

তামান্না চৌধুরী বলেন, সারাদিন না খেয়ে থেকে অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খাবার শরীরের  জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই সুস্থ থাকতে হলে পরিকল্পনার মাধ্যমে ঠিক করতে হবে আমরা কতটুকু খাবো।

তিনি বলেন, সারাবছর যেমন আমরা তিন বেলা পুরো খাবারটা ভাগ করে খাই, রোজায়ও তাই করতে হবে। যেমন: 

•    ইফতারের সময় বেগুনি বা পিঁয়াজুর যেকোনো একটা রাখবেন। 
•    রমজানে মাংস খাওয়ার বিষয়েও লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ ইফতারে অনেক ধরনের কাবাব থাকতে পারে, মাংসের তৈরি। যেদিন ইফতারে মাংসের কোনো আইটেম খাবেন, সেদিন রাতের খাবারে বা সেহরিতে মাংস খাবেন না।  

•    ডালের তৈরি পিঁয়াজু  খেলে হালিম সন্ধ্যায় না খেয়ে রাতে ঘুমানোর আগে অল্প পরিমাণে খেতে পারি। 

•    হজমে সমস্যা রমজানে প্রায় সবারই হয়, তাই নিয়মিত অন্য পানীয়র সাথে এক গ্লাস ইসবঘোল বা বেলের শরবত রাখুন। 

•    সারাদিনের ক্লান্তি খুব সহজেই দূর করতে প্রতিদিনই ইফতারে কয়েকটি খেজুর রাখতে হবে। 

•    রাতের খাবারে ভাত বা রুটি, প্রচুর সবজি, দু-এক টুকরা মাছ বা মাংস, দুধ ও ফল খেতে হবে।

•    অনেকেই ঘুম থেকে উঠে সেহরি খাওয়াকে কষ্টের কাজ মনে করেন, এজন্য না খেয়েই রোজা রাখেন। এটা কখনোই উচিৎ নয়। কারণ এতে করে অনেক বেশি সময় না খেয়ে থাকা হয়, শরীর দুর্বল হয়ে যায়, প্রেসার কমে যেতে পারেন, এমন কি অজ্ঞান হয়ে যেতে পারেন।  ভাত, মাছ, ডাল, সবজি সেহরিতে খেতে পারেন।  

এছাড়া ইফতার থেকে শুরু করে সেহরির আগ পর্যন্ত কমপক্ষে দুই লিটার পানি খাওয়ারও পরামর্শ দেন তামান্না চৌধুরী।

যাদের প্রয়োজন, ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে রমজানের ওষুধ গ্রহণের সময় নির্ধারণ করে নিন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩৮ ঘণ্টা, মে ১৬, ২০১৮
এসআইএস 
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa