Alexa
ঢাকা, শুক্রবার, ১০ চৈত্র ১৪২৩, ২৪ মার্চ ২০১৭
bangla news
symphony mobile

মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য: স্বাধীনতা সংগ্রাম

ইচ্ছেঘুড়ি ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৩-১৪ ৪:৪৫:১৮ পিএম
ভাস্কর্য: স্বাধীনতা সংগ্রাম/ফাইল ফটো

ভাস্কর্য: স্বাধীনতা সংগ্রাম/ফাইল ফটো

ঢাকা: বাংলার স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস ধারণ করে নির্মিত হয়েছে অনেক ভাস্কর্য। এসব ভাস্কর্যে ফুটে উঠেছে মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাঁথা। এমনই একটি ভাস্কর্য স্বাধীনতা সংগ্রাম।

ভাস্কর্যটির স্থপতি শামীম শিকদার। এতে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ধাপ-মহান ভাষা অন্দোলন, ৬৬ সালের স্বাধীকার আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ, ২৫ মার্চের কালরাত্রি, ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা ও ১৬ ডিসেম্বর বাঙালির চূড়ান্ত বিজয়ের চিত্র উপস্থাপন করা হয়েছে।

১৯৮৮ সালে ফুলার রোডে বর্তমানে প্রোভিসির ভবন সংলগ্ন স্থানে ভাস্কর্যটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সেসময় এর নামকরণ করা হয় অমর একুশে। দু’বছর পর ১৯৯০ সালের ফেব্রুয়ারিতে অধ্যাপক আহমদ শরীফ এটি উদ্বোধন করেন।

ভাস্কর্য: স্বাধীনতা সংগ্রাম/ফাইল ফটো১৯৯৮ সালে ভাস্কর্যটিকে স্থানান্তর করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফুলার রোডে সলিমুল্লাহ হল, জগন্নাথ হল ও বুয়েট সংলগ্ন সড়ক দ্বীপে। এসময় ভাস্কর শামীম শিকদার ভাস্কর্যটিকে মুক্তিযুদ্ধের সামগ্রিক ইতিহাসের প্রেক্ষাপটে সম্পন্ন করেন। যার নাম বদলে দেওয়া হয় স্বধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্য। ১৯৯৯ সালের ৭ মার্চ এ ভাস্কর্যটি উদ্বোধন করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শ্বেতবর্ণের স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্যে রয়েছে ১৮ জন শহীদের মুখাবয়ব, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ত্রিশ ল‍াখ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন বাংলার পতাকা। উচ্চতায় ৭০ ফুট ও প্রায় ৮৬ ফুট চওড়া মূল ভাস্কর্যকে কেন্দ্র করে চারপাশে তৈরি করা হয়েছে দেশ-বিদেশের বুদ্ধিজীবীদের মোট ১১৬টি ভাস্কর্য।

রয়েছে বঙ্কিমচন্দ্র, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, জগদীশ চন্দ্র বসু, মাইকেল মধুসুদন দত্ত, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, লালন, কাজী নজরুল ইসলাম, সুকান্ত ভট্টাচার্য, ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, শিল্পী এসএম সুলতান, জিসি দেব, সুভাসচন্দ্র বসু, কামাল আতাতুর্ক, মহাত্মা গান্ধী, রাজা রামমোহন রায়, মাও সে তুং, ইয়াসির আরাফাত, কর্নেল ওসমানী, তাজউদ্দীন আহমেদ, সিরাজ সিকদারসহ আরও অনেকের প্রতিকৃতি। এগুলোর গড় উচ্চতা তিন থেকে চার ফুট।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৩ ঘণ্টা, মার্চ ১৪, ২০১৭
এএ

 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

You May Like..