[x]
[x]
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৯ জুলাই ২০১৮

bangla news

রোজার আগে বেগুনে আগুন!

ইয়াসির আরাফাত রিপন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৫-১৬ ৯:০৯:০০ পিএম
রোজা সামনে রেখে বেড়েছে সবজির দাম। ছবি বাংলানিউজ

রোজা সামনে রেখে বেড়েছে সবজির দাম। ছবি বাংলানিউজ

ঢাকা: মাত্র একদিন পরই পবিত্র মাহে রমজান শুরু। মুসলমানদের সবচেয়ে ত্যাগের মাস এটি। কিন্তু এ মাসকে পুঁজি করেই এক শ্রেণির অর্থলোভী অসাধু ব্যবসায়ী এরই মধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। 

বিশেষ করে সবজির বাজারে যেনো আগুন লেগেছে। সব সবজির দামই বাড়তি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে বেগুনের দাম। 

গত সপ্তাহে এ সবজিটির দাম ছিল বাজার ভেদে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি। কিন্তু বুধবার (১৬ মে) হঠাৎ করেই এক লাফে এর দাম বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। অন্যান্য সবজির দামও বেড়েছে কেজিতে ১৫ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত। রাজধানীর ধানমন্ডি, হাতিরপুল, সেগুনবাগিচা ও শান্তিনগর কাঁচাবাজার ঘুরে এ তথ্যই মিলেছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, মাত্র পাঁচদিনের ব্যবধানে কেজিতে বেগুনের দাম বেড়েছে বাজার ভেদে ৩০ থেকে ৫০ টাকা, শসার দাম কেজিতে বেড়েছে ৩০ টাকা, ধুন্দল কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা, ঝিঙা ও চিচিঙা বেড়েছে ১৫ টাকা, পটলের দাম বেড়েছে ১০ টাকা। এছাড়া সব ধরনের শাকেরই আটি প্রতি দাম বেড়েছে তিন থেকে পাঁচ টাকা পর্যন্ত। তবে মসলা জাতীয় সবজি, ডিম, মাছ ও মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

গত শুক্রবার সেগুনবাগিচা কাঁচাবাজারে বেগুন বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকা কেজি দরে। বুধবার সেই বেগুনের দাম হাঁকা হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা। শুক্রবার যে চিচিঙা প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকা, বুধবার তা বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। ধুন্দল কেজি প্রতি ২০ টাকা থেকে বেড়ে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। 

ইফতারে বেগুনীসহ বেগুন দিয়ে বানানো খাবারের চাহিদা বেড়ে যায়। এ সুযোগে বুধবার হাতিরপুল কাঁচাবাজারে এক কেজি বেগুনের দাম নেওয়া হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা। অথচ গত শুক্রবার এ বাজারে বেগুনের দাম ছিল প্রতি কেজি ৬০ টাকা। 

শরিফুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা জানান, প্রতি বছরই রমজান মাস উপলক্ষে সব ধরনের সবজি, মাছ-মাংসের দাম বাড়ানো হয়। শুক্রবার রমজান শুরু হচ্ছে। প্রতিবারের মতো এবারও বাজারদরও বেড়ে গেছে।

এ বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. আলম বাংলানিউজকে বলেন, আমরা কারওয়ান বাজার থেকে সব সবজি নিয়ে আসি। সেখানে এখন সব সবজিরই দাম বাড়তি, তাই আমাদেরও বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। 

রোজার কারণে এমন বাড়তি দাম কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাজারে সরবরাহ অন্য সময়ের চেয়ে কিছুটা কম থাকায় সবজির বাড়তি দাম চাওয়া হচ্ছে।

এদিকে পেয়াজ, রসুন, আলু, আদা, ছোলা, চাল, ডাল ও ডিম গত সপ্তাহের মতই বিক্রি হচ্ছে। মাংস ও মাছ বিক্রি হচ্ছে আগের দামেই। গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫০০ টাকা, খাসির মাংস ৭৫০ টাকা, মুরগি ব্রয়লার ১৬০ টাকা কেজি প্রতি, কক মুরগি (পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত মুরগি) ২০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। 

মাংস ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত মূল্যে মাংস বিক্রি শুরু করবেন আগামী শুক্রবার (১৮ মে) থেকে। 

বাংলাদেশ সময়: ২১০০ ঘণ্টা, মে ১৬, ২০১৮
ইএআর/এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa