Alexa
ঢাকা, শুক্রবার, ৩ ভাদ্র ১৪২৪, ১৮ আগস্ট ২০১৭

bangla news

সবুজ ধানেই সোনালী স্বপ্ন!

বেলাল হোসেন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৮-১৩ ২:০০:৫৩ এএম
সবুজ ধানেই সোনালী স্বপ্ন- ছবি: আরিফ জাহান

সবুজ ধানেই সোনালী স্বপ্ন- ছবি: আরিফ জাহান

গ্রামীণ জনপদ ঘুরে: জমির সীমানা বোঝাতে খেতের বিভিন্ন প্রান্তে রয়েছে আইল। তবে এখন বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে গাঢ় সবুজ ধানগাছে ঢাকা পড়েছে সেই আইলগুলো। চারদিকে বিরাজ করছে কেবলই গাঢ় সবুজের অপার সমারোহ। যা দৃষ্টিসীমাকেও ছাপিয়ে যায়।

সেই গাঢ় সবুজ রঙা ধানেই সোনালী স্বপ্ন বুনছেন হাজারো কৃষক। অনেকটা বিরূপ আবহাওয়া মাথায় নিয়ে রোপা-আউশ মৌসুমের ধান নিয়ে মাঠে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। তরতর করে ধানগাছগুলো বেড়ে উঠছে। সঙ্গে ক্ষণ গুণে গুণে পাল্টাতে হচ্ছে কৃষকদের পরিচর্যার ধরণও।

রোপনকাল অনুযায়ী কখনো নিড়ানিও দিতে হচ্ছে। আবার প্রয়োগ করতে হচ্ছে প্রয়োজনীয় সার ও কীটনাশক। পানির অভাব দেখা দিলে জমিতে সেচ দিতে হচ্ছে। বিগত বছরগুলোয় উৎপাদিত ধানের ভাল দাম পাওয়ায় মনে অনেকটা আনন্দ নিয়েই কষ্টকর কর্মযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছেন কৃষকরা।

বগুড়া সদর, শাজাহানপুর, নন্দীগ্রাম, শেরপুর উপজেলা ঘুরে কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে চলতি রোপা-আউশ মৌসুমের ধানচাষ সম্পর্কে সরেজমিনে সম্যক ধারণা পাওয়া গেল।

তবে সাম্প্রতিক বন্যায় যমুনা তীরবর্তী এই জেলার সারিয়াকান্দি, সোনাতলা ও ধুনট উপজেলায় ১ হাজার ৫৮০ হেক্টর আউশের জমি তলিয়ে যায়। এরপরও লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে এ জেলায় চলতি মৌসুমের ধান।
সবুজ ধানেই সোনালী স্বপ্ন- ছবি: আরিফ জাহান
রফিকুল ইসলাম, আবু সাঈদ, ইকবাল হোসেন, আব্দুস ছামাদসহ একাধিক কৃষক বাংলানিউজকে জানান, তাদের অন্য কাজ জানা নেই। কৃষিকাজই প্রধান কর্ম তাদের। এছাড়া বিগত বছরগুলোয় ধানের দামও ভাল পেয়েছেন। বর্তমানেও ধানের দরও ভাল যাচ্ছে। তাই তারা উদয়াস্ত শ্রম দিচ্ছেন চাষের কাজে।

এসব কৃষক জানান, সাধ্য অনুযায়ী বিভিন্ন উপজেলার কৃষকরা গেল রোপা-আউশ মৌসুমের তুলনায় এবার অনেক বেশি জমিতে এ মৌসুমের ধান লাগিয়েছেন। রোদ-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে আউশের জমি নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি রোপা-আউশ মৌসুমে এ জেলার ১২টি উপজেলায় ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ২১ হাজার ৬০০ হেক্টর জমি। অথচ লক্ষ্যমাত্রা ছাপিয়ে ধান চাষ হয়েছে ২২ হাজার ৭৫ হেক্টর জমিতে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (শস্য) কৃষিবিদ ওবায়দুর রহমান মণ্ডল বাংলানিউজকে জানান, গেল মার্চের মাঝামাঝি থেকে বর্তমান মৌসুমটি শুরু হয়েছে। মে মাসের পুরোটা সময় ধরেই কৃষকরা জমিতে ধান লাগিয়েছেন।

তিনি আরো জানান, রোপনের সময়ের ওপরই ধান বা যে কোনো ফসলের বেড়ে ওঠা নির্ভর করে। সে অনুযায়ী জেলার কিছু এলাকায় আগাম লাগানো ধানগাছে এরই মধ্যে পাকও ধরেছে। কিছু কৃষক নতুন ধান ঘরেও উঠিয়েছেন। তবে তাদের সংখ্যা হাতে গোনা।
সবুজ ধানেই সোনালী স্বপ্ন- ছবি: আরিফ জাহান
ওবায়দুর রহমান মণ্ডল আরো জানান, চলতি মৌসুমে চালের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৫ হাজার ২৪২ মেট্রিক টন। এ জেলায় কৃষকরা ব্রি ধান-৪৮, পারিজাত, পাটজাত জাতের ধান চাষ করেছেন।

এসব জাতের ধানের চালের দাম মোটা চালের চেয়ে বেশি। ফলনও ভাল হবে। এতে বিগত বছরগুলোর মতো এবারও কৃষকরা বেশ লাভবান হতে পারবেন।

বাংলাদেশ সময়: ০২০০ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০১৭
এমবিএইচ/জেএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

অর্থনীতি-ব্যবসা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

You May Like..
Alexa